ঢাকা, রোববার 14 January 2018, ১ মাঘ ১৪২৪, ২৬ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কক্সবাজারে বিদেশী পর্যটকবাহী বাস ভেঙ্গে দিয়েছে ২ পুলিশ সদস্য

শাহনেওয়াজ জিল্লু, কক্সবাজার : কক্সবাজার শহরের কলাতলী এলাকায় বিদেশী পর্যটকবাহী এক বাসে ভাঙচুর চালিয়েছে দুই পুলিশ সদস্য। এঘটনায় জড়িত সুমন ত্রিপুরা ও জহিরুল হক নামের ওই দুই পুলিশ সদস্যকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের জিম্মায় আটক রাখা হয়েছে। শুক্রবার রাত ৮টায় কলাতলী মোড় এলাকায় এ ঘটনায় ঘটে।
সাভারের বাংলাদেশ হেলথ প্রফেশন্স ইনস্টিটিউটের রিহাবিলিটেশন সাইন্স বিভাগের কর্মকর্তা লোকমান হোসেন জানান, তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাস্টার্সের ৪র্থ ব্যাচের ১৭ জন বিদেশী শিক্ষার্থীসহ ৪০ জন শিক্ষাসফরে কক্সবাজার আসেন। তাদের মধ্যে শ্রীলঙ্কা, নেপাল, আফগাগিস্তান ও ভূটানের নাগরিক রয়েছে।
জুমাবার রাত পৌনে ৮টার দিকে তারা টেকনাফ থেকে ফেরার পথে তাদের বহনকারী বাসটি কক্সবাজার শহরে প্রবেশের সময় কলাতলী মোড়ের ডলফিন চত্বরে পৌঁছায়। ওই সময় বিপরীতমুখি শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস তাদের বাসকে ধাক্কা দেয়।
বাসের ধাক্কা খেয়ে বিদেশী পর্যটকবাহী বাসটি পাশের একটি ইজিবাইকে ধাক্কা খায়। ওই সময় তাৎক্ষণিক সাদা পোশাকধারী দুই ব্যক্তি নিজেদের দাঙা পুলিশ পরিচয় দিয়ে বিদেশী পর্যটকবাহী বাসটি আটকে দেন।
এক পর্যায়ে ওই দুই পুলিশ সদস্য উত্তেজিত হয়ে পর্যটকবাহী বাসের সামনে অংশের বামপাশের গ্লাসে ইট নিক্ষেপ করেন। এতে বাসের কয়েকটি গ্লাস ভেঙে যায়। এ সময় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন বিদেশী শিক্ষার্থীরা।
লোকমান হোসেন বলেন, এরপরও ক্ষান্ত হননি ওই দুই পুলিশ সদস্য। বিদেশী শিক্ষার্থী পর্যটক ও শিক্ষকদের মারধর করতে উদ্যত হন দুই পুলিশ সদস্য। এ সময় তারা আশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। এক পর্যায়ে জিম্মি করে কলাতলী মোড় থেকে বিদেশী পর্যটকবাহী বাসটি সুগন্ধা মোড় এলাকায় নিয়ে আসেন।
এরই মধ্যেই বিদেশী পর্যটকবাহী বাসের যাত্রীরা ঘটনাটি শিক্ষা মন্ত্রণালায়ের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলা প্রশাসককে অবহিত করেন। পরে রাত ১০টার দিকে জেলা প্রশাসকের পর্যটন শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম জয় ঘটনাস্থলে পুলিশ সদস্যদের জিম্মি দশা থেকে পর্যটকবাহী বাস ও যাত্রীদের উদ্ধার করেন। পরে ওই পুলিশ সদস্যকে আটক করেন।
তবে অভিযুক্ত দুই পুলিশ সদম্য সুমন ত্রিপুরা ও জহিরুল ইসলাম বিদেশী পর্যটকবাহী গাড়ি ভাঙচুরের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। অভিযুক্তদের দাবি, তাদের ইজিবাইককে বিদেশী পর্যটকবাহী বাসটি ধাক্কা দিলে একজন গুরুতর আহত হন। এ সময় উত্তেজিত জনতা ওই বাসটিতে ভাঙচুর চালায়। অথচ সেসময় জনতা উত্তেজিত হয়েছে এমন দৃশ্য কারোও চোখে পড়েনি বলে জানিয়েছে স্থানীয় জনসাধারণ।
কক্সবাজারের জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম জয় জানিয়েছেন, অভিযুক্ত দুই পুলিশ সদস্যকে আটক করে কক্সবাজার সদর থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। শনিবার তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ