ঢাকা, রোববার 14 January 2018, ১ মাঘ ১৪২৪, ২৬ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুমেকে শিক্ষক সঙ্কট চরমে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত

খুলনা অফিস ঃ প্রয়োজনীয় সংখ্যক অধ্যাপক ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ছাড়াই চলছে খুলনা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগ। ওই বিভাগ ছাড়াও আরো ১৯ অধ্যাপক পদ খালি রয়েছে। অনুমোদিত ১৩৫টি পদের বিপরীতে ৫৮টি পদ শূন্য রয়েছে। শিক্ষক সঙ্কটে কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।
খুলনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আহাদ বলেন, দীর্ঘ বছর ধরে ফরেনসিক বিভাগসহ অধিকাংশ বিভাগে অধ্যাপকের পদটি শূন্য রয়েছে। সেক্ষেত্রে কলেজের শিক্ষার্থীদের তাদের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি এই কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নিতে হিমশিম খেতে হয়। যেসব অধ্যাপক চাকরি থেকে অবসরে চলে গেছেন তাদেরকে চুক্তিভিত্তিক মাধ্যমে সরকার নিয়োগের উদ্যোগ নিলে সঙ্কট অনেকটা দূর হয়ে যেতো। প্রতি মাসেই শিক্ষক সঙ্কটের বিষয় উল্লেখ করে মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়। তিনি বলেন, ফরেনসিক বিভাগে অপমৃত্যু, হত্যা, ধর্ষণসহ স্পর্শকাতর নানা জটিল বিষয় নিয়ে কাজ করা হয়। যার ফলে অধিকাংশ মেডিকেল পড়ুয়া শিক্ষার্থী এখানে চিকিৎসাদানে খুব বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না। আর শিক্ষার্থীদের অনাগ্রহের ফলেই অভিজ্ঞ শিক্ষক ও দক্ষ চিকিৎসক তৈরি হচ্ছে না। খুব শিগগিরই শিক্ষক সঙ্কটের বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ পদক্ষেপ নেবে বলে তিনি আশাবাদী।
স্বাচিপ ও বিএমএ খুলনা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ বলেন, ফরেনসিক বিভাগের অধ্যাপক পদ দীর্ঘ বছর ধরে শূন্য রয়েছে। নেই সহযোগী অধ্যাপকও। সহকারী অধ্যাপক নিয়ে কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। এতে বিভিন্ন সময় অস্বাভাবিক মৃত ব্যক্তিদের পোস্টমর্টেম ও ভিসেরা রিপোর্ট সময়মতো দিতে বিলম্ব হচ্ছে। পোস্টমর্টেম রিপোর্ট পেলেও ভিসেরা রিপোর্ট সময়মত না পাওয়ায় বিভিন্ন মামলা সংক্রান্ত জামিনের ক্ষেত্রে জটিলতার সম্মুখিন হতে হচ্ছে। এছাড়া অন্যান্য আরও গুরুত্বপূর্ণ বিভাগেও অধ্যাপকের পদ খালি রয়েছে।
খুলনা মেডিকেল কলেজ অফিস সূত্র জানা গেছে, ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগসহ মোট ৩০টি বিভাগের মধ্যে অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক, কিউরেটর, প্রভাষকসহ অনুমোদিত পদের সংখ্যা রয়েছে ১৩৫টি। এর মধ্যে ফরেনসিক মেডিসিন, মেডিসিন, এনাটমি, ফিজিওলজী, বায়োকেমিস্ট্রি, প্যাথলজি, মাইক্রোবায়োলজী, ফার্মাকোলজী, কমিউনিটি মেডিসিন, কার্ডিওলজী, নিউরোলজী, সাইকিয়াট্রি, ডার্মাটোলজী, পেডিয়াট্রিক্স, সার্জারি, অর্থোসার্জারি, চক্ষু, ইএনটি, অ্যানেস্থেসিওলজী, ব্লাড-ট্রান্সফিউশন, রেডিওলজী ও গাইনি-অবস.। এই সব বিভাগের অধ্যাপকের পদের সংখ্যা রয়েছে মোট ২৩টি। এর মধ্যে শুধুমাত্র মেডিসিন ও গাইনী-অবস. বিভাগ মিলে তিনজন অধ্যাপক রয়েছেন। বাকী বিভাগে কোন অধ্যাপক নেই। এছাড়া ওইসব বিভাগগুলোতে সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক, প্রভাষক পদ মিলে মোট ১৩৫টি পদের বিপরীতে ৭৭টি পদে কর্মরত রয়েছেন। এর মধ্যে আবার ওএসডি হিসেবে সংযুক্তিতে কর্মরত রয়েছেন ৭ জন। গত ২০১২ সালের জুন মাসে ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগে অধ্যাপক ডা. মো. শাহজান আলী পিআরএল এ যাওয়ার পর ওই পদ আজও পর্যন্ত শূন্য রয়েছে। বর্তমানে এই বিভাগে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে ডা. একেএম শফিউজ্জামান রয়েছেন।
বিভিন্ন মামলার সাক্ষী হবার কারণে তিনি বেশির ভাগ সময় বাইরে অবস্থান করেন। আবার এ বছরে তিনি অবসরে চলে যাবেন। এছাড়া অনেক বিভাগে অধ্যাপকের পাশাপাশি সহযোগী অধ্যাপক এর পদও খালি রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ