ঢাকা, মঙ্গলবার 16 January 2018, ৩ মাঘ ১৪২৪, ২৮ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

হাউসা ব্রিজ থেকে খাদিজার বাড়ি পর্যন্ত রাস্তার উন্নয়ন কাজ শুরু করলো সিলেট জেলা পরিষদ

সিলেট ব্যুরো : সদর উপজেলার সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের মোগলগাঁও ইউনিয়নের হাউসা গ্রামের বিজ্র হাউসা ব্রিজ থেকে কলেজ ছাত্রী খাদিজা বেগম নার্গিসের বাড়ি পর্যন্ত কাচা রাস্তার ইট সোলিং কাজ শুরু করলো সিলেট জেলা পরিষদ। গতকাল সোমবার দুপুরে পূর্ব প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী এ কাজ শুরু করেন সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. লুৎফুর রহমান। 

সিলেট জেলা পরিষদের অর্থায়নে ৪ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ১ হাজার ফুট দৈর্ঘ্য এই রাস্তার ইট সোলিংয়ের কাজ পেয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মাহি ট্রেডার্স। কাজ পরিদর্শন শেষে সিলেট এমসি কলেজে সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত, মৃত্যুর পথ থেকে ফিরে আসা সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের মেধাবী শিক্ষার্থী খাদিজা বেগম নার্গিসকে  দেখতে তার বাড়িতে যান সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট লুৎফুর রহমান। এসময় তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানায় খাদিজার চাচাতো ছোট দু’বোন সাবিহা ও সাফাহ। বাড়িতে প্রবেশ করে খাদিজার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। চলতি বছর জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে খাদিজাকে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করার ঘোষণা দেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাৎ করার উদ্যোগ গ্রহণ করবেন বলে তিনি জানান। খাদিজাও রাস্তার উন্নয়ন কাজসহ সার্বিক সহযোগিতার জন্য তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী আব্দুল আহাদ, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান  জয়নাল আহমদ ও শামীম আহমদ, উপ প্রকৌশলী হাসিব আহমদ, সদস্য মতিউর রহমান মতি ও মো. শাহনূর, খাদিজার ভগ্নিপতি ও দৈনিক সংগ্রাম সিলেটের ব্যুরো প্রধান কবির আহমদ, মোগলগাঁও ইউপির ৬নং ওয়ার্ড সদস্য তাজিজুল ইসলাম জয়নাল, খাদিজা হত্যাচেষ্টা মামলার বাদী ও খাদিজার চাচা আব্দুল কুদ্দুছ, বিশিষ্ট মুরব্বি শওকত আলী, ইন্তাজ আলী, আব্দুল গনি, খাদিজার চাচা আব্দুল বাছির, সমাজসেবি মাস্টার আব্দুল কাইয়ূম, আশরাফ আহমদ, মাহি ট্রেডার্সের কন্ট্রাক্টর মঈন উদ্দিন শামীম ও সেলিম আহমদ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৩ অক্টোবর মাসে বখাটের হামলায় এমসি কলেজের পুকুরপারে সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ¯œাতক দ্বিতীয় বর্ষের মেধাবী শিক্ষার্থী খাদিজা বেগম নার্গিস। পরেরদিন তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঢাকায় চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে তার পরিবারের সদস্যদের খোঁজখবর নিতে সিলেট সদর উপজেলার হাউসা গ্রামের সৌদি প্রবাসী মাশুক মিয়ার বাড়িতে ছুটে আসেন সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট লুৎফুর রহমান। তখন তিনি ঘোষণা দেন এই কাচা রাস্তার উন্নয়ন কাজ অচিরেই শুরু করবেন। এবং এ রাস্তাটি খাদিজার নামে নামকরণ করা হবে। ১৫ মাসের মাথায় রাস্তার কাজ শুরু করা নির্বিবাদী এই জনপ্রতিনিধিকে সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকার বিশিষ্টজনেরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ