ঢাকা, বৃহস্পতিবার 18 January 2018, ৫ মাঘ ১৪২৪, ৩০ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ওয়ানডে ম্যাচের সেঞ্চুরি করল মিরপুর ক্রিকেট স্টেডিয়াম 

 

স্পোর্টস রিপোর্টার : ওয়ানডে ম্যাচের সেঞ্চুরি করল মিরপুর স্টেডিয়াম। বিশে^ ষষ্ঠ ভেন্যু হিসেবে গতকাল শততম ওয়ানডে আয়োজনের কৃতিত্ব গড়ল মিরপুর শেরে-এ-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম। ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে শ্রীলংকা বনাম জিম্বাবুয়ের ম্যাচ দিয়েই শততম ম্যাচ আয়োজনের ইতিহাস গড়ল এই স্টেডিয়াম। সর্বোচ্চ ২৩১টি ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হয়েছে শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত হয়েছে ১৫৪টি। অস্ট্রেলিয়ার আরেক ভেন্যু মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ১৪৮টি। এরপর আছে জিম্বাবুয়ের হারারে স্পোর্টস ক্লাব ১৩৬টি, শ্রীলংকার কলম্বোস্থ আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম ১২৪টি। ২০০৬ সালের ৮ ডিসেম্বর ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে যাত্রা শুরু হয় মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের। মিরপুরের অভিষেক ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিলো বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ে। ম্যাচটি ৮ উইকেটে জিতেছিলো টাইগাররা। তবে মিরপুরের শততম ম্যাচে খেলা নেই বাংলাদেশের। ত্রিদেশীয় সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটি হচ্ছে মিরপুরের শততম ম্যাচ। এ ম্যাচে মুখোমুখি শ্রীলংকা ও জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের দুর্ভাগ্য হলেও, সৌভাগ্য জিম্বাবুয়ের। মিরপুরের প্রথম ওয়ানডের পর শততম ম্যাচেও রয়েছে জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের প্রধান এ ভেন্যুতে ২০০৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত মোট রান হয়েছে ৪২,৩২৭ এবং উইকেট পড়েছে ১৪৭৭টি।

এ ভেন্যুর উল্লেখযোগ্য বিষয়

সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ: মিরপুরের এ মাঠে সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ ভারতের। বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ২০১১ বিশ^কাপ মিশন শুরু করে ভারত। দুই ওপেনার শচিন টেন্ডুলকার ও গৌতম গম্ভীর বিশেষ কিছু করতে না পারলেও বিরেন্দার শেবাগের ১৪০ বল মোকাবেলায় ১৭৫ এবং বিরাট কোহলির ৮৩ বলে অপরাজিত ১০০ রানে ৪ উইকেটে ৩৭০ রানের বিশাল স্কোর গড়ে ভারতীয়রা। এ ম্যাচ দিয়ে অভিষেক ঘটে কোহলির। তাদের এ দুর্ধর্ষ ব্যাটিংই বাংলাদেশের আত্মবিশ^াসে চির ধরাতে যথেষ্ট ছিল। তামিম ইকবালের ৭০ এবং সাকিব আল হাসানের ৫৫ রান সত্ত্বেও টাইগাররা শেষ পর্যন্ত ৮৭ রানে ম্যাচটি হেরে যায়।

ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ স্কোর: এ মাঠে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলেছেন অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়াটসন। ২০১৫ সালে দলের বাংলাদেশ সফরে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ১৮৫ রান করেন তিনি। ১৫টি করে চার ছক্কায় ৯৬ বলে তার করা ১৮৫ রানের ইনিংসটি আজও এ মাঠের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের ইনিংস।

ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ রান: এ ভেন্যুতে এ পর্যন্ত ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ রানের মালিক তামিম ইকবাল। এ পর্যন্ত ৭১ ইনিংসে ৩৪.৬২ গড়ে তার মোট রান ২৩৮৯।

সেরা বোলিং স্পেল: ২০১৪ সালে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসে ভারতীয় দল। প্রতিটি ম্যাচেই বাগড়া দেয় বৃষ্টি। তাসকিন আহমেদের ২৮ রানে ৫ উইকেট শিকারে দ্বিতীয় ম্যাচে মাত্র ১০৫ রানে গুটিয়ে যায় ভারত। কিন্তু তারপর ভেল্কি দেখান ভারতের স্টুয়ার্ট বিনি। তিনি মাত্র ৪ রানে ৬ উইকেট শিকার করে দলের জয় এনে দেন। বিনির ৪ রানে ৬ উকেট শিকারই এ মাঠে সেরা বোলিং স্পেল। এ মাঠে তাই সেরা বোলিং স্পেলও তার।

ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ উইকেট: ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এ মাঠে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী সাকিব আল হাসান। এ পর্যন্ত মোট ৭৪ ইনংসে তার ২৪.৯৩ গড়ে তার মোট উইকেট ১০৪টি।

উইকেটরক্ষক হিসেবে সর্বোচ্চ ডিসমিসাল: শেরে-বাংলা স্টেডিয়ামে উইকেটরক্ষক হিসেবে সর্বোচ্চ ৮১টি ডিসমিসাল করেছেন বাংলাদেশের মুশফিকর রহিম। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন শ্রীলংকার কুমার সাঙ্গাকারা (২১)।

মাঠের সর্বোচ্চ ক্যাচ: বাংলাদেশ দলের অন্যতম সেরা ফিল্ডার মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। এ মাঠে সর্বোচ ক্যাচ নেয়ার মালিক তিনি। এ পর্যন্ত তিনি ক্যাচ নিয়েছেন ২২টি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ