ঢাকা, বৃহস্পতিবার 18 January 2018, ৫ মাঘ ১৪২৪, ৩০ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

উত্তর সিটি নির্বাচনের তফসিল ত্রুটিপূর্ণ ছিল -রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ত্রুটিপূর্ণ ছিল বলে দাবি করেছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। তার দাবি, এ কারণেই এই নির্বাচন স্থগিত চেয়ে রিট করা হয়েছে।
গতকাল বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সাংবাদিক সম্মেলেনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, নির্বাচন নিয়ে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের নীল নকশার কারণেই ভোট স্থগিত হয়েছে।
আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারির ভোট স্থগিত চেয়ে উত্তর সিটিতে অন্তর্ভুক্ত দুটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের আবেদনের পর বুধবার নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করেছে উচ্চ আদালত। রিজভী বলেন, রিটকারী যে কোন দলের হতে পারে। তবে ত্রুটিপূর্ণ তফসিলের জন্য নির্বাচন কমিশনই দায়ী। এটা সরকার ও নির্বাচন কমিশনের যৌথ প্রযোজনা।
রিজভী বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন উপ-নির্বাচন নিয়ে বর্তমান সিইসি সরকারের নির্দেশে আইনি ত্রুটি রেখে তফসিল ঘোষণা করেছেন। এটা সরকারের নীল নকশার অংশ।
প্রসঙ্গত, গত ৪ জানুয়ারি ঢাকা উত্তরে মেয়র পদে উপ-নির্বাচন এবং রাজধানীর সিটিতে ৩৬ কাউন্সিলর পদে ভোটের তারিখ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। আর ২৬ ফেব্রুয়ারির ভোটকে সামনে রেখে তফসিল ঘোষণা করা হয় ৯ জানুয়ারি।
বিএনপি নেতা বলেন, নির্বাচন কমিশনের ত্রুটিপূর্ণ তফসিলের কারণে সংক্ষুব্ধরা রিট করার সুযোগ পেয়েছেন। আমরা বারবার বলে আসছি নির্বাচন নিয়ে বর্তমান সিইসি আওয়ামী লীগের মাস্টারপ্ল্যানেরই অংশ। কেন না ডিএনসিসিসহ ঢাকা সিটিতে যদি সুষ্ঠু ভোট হয় তাহলে ক্ষমতাসীনদের ভরাডুবি হবে এটা সরকারি দল জানে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনও এ বছর হওয়ার কথা। তাই ঢাকা সিটিতে বিপুল ভোটে পরাজিত হলে আওয়ামী লীগের জাতকূল কিছুই থাকবে না।
রিজভী বলেন, গত ৯ জানুয়ারি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১৮ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হয়নি। এখন যিনি প্রার্থী হবেন তিনি জানেন না তিনি ভোটার কি না। তাছাড়া মনোনয়নপত্রে ৩০০ ভোটারের স্বাক্ষর থাকতে হবে। ভোটার তালিকা প্রকাশ না হলে এটা সম্ভব হচ্ছে না।
এছাড়া মেয়রের পদসহ কর্পোরেশনের শতকরা ৭৫ ভাগ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদের নির্বাচন হলে এবং নির্বাচিত কাউন্সিলরদের নাম সরকারি গেজেটে প্রকাশিত হলে কমিশন যথাযথ গঠিত হয়েছে বলে গণ্য হবে। এই আইনে উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নতুন যুক্ত হওয়া ১৮টি ওয়ার্ড মিলে কাউন্সিলর শতকরা ৭৪ ভাগ হয় না। কারণ নতুন ১৮টিতে নির্বাচনই হয়নি। তাছাড়া সম্প্রসারিত ১৮টি ওয়ার্ডে যারা কাউন্সিলর হবেন তারা কতদিনের জন্য নির্বাচিত হবেন। তারা কি পাঁচ বছরের জন্য হবেন, না আড়াই বছরের জন্য নির্বাচিত হবেন তা নির্ধারণ করেনি কমিশন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ