ঢাকা, বৃহস্পতিবার 18 January 2018, ৫ মাঘ ১৪২৪, ৩০ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনায় রাষ্ট্রায়ত্ত আট পাটকল শ্রমিকদের লাল পতাকা বিক্ষোভ মিছিল

খুলনা অফিস : খুলনায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের কর্মবিরতির ১৯তম দিনে মহানগরীব্যাপী লালপতাকা হাতে নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শ্রমিকরা। গতকাল বুধবার সকাল ৯টা থেকে খুলনা-যশোর অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত আট পাটকলের শ্রমিকরা স্ব স্ব মিল গেটের সামনে অবস্থান নেয়। পরে বেলা ১১টায় নগরীর খালিশপুর, আটরা ও যশোরের নওয়াপাড়া শিল্প এলাকার পাটকলের গেটের সামনে থেকে শ্রমিকরা লাল পতাকা হাতে ট্রাক যোগে বিক্ষোভ মিছিল করে। এসময় শ্রমিকরা পাট প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি জানান।
লালপতাকা মিছিল-পূর্ব গেট সভায় বক্তৃতা করেন, আন্দোন কমিটির কার্যকরী আহ্বায়ক ক্রিসেন্ট জুট মিলস শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. সোহরাব হোসেন, জেজেআই এর সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ মল্লিক, ইস্টার্ন জুট মিলের সাধারণ সম্পাদক এস,এম জাকির হোসেন, স্টার মিলের সভাপতি বেল্লাল মল্লিক, ইস্টার্ন মিলের সভাপতি মো. আলাউদ্দিন, আলীম জুট মিল মজদুর ইউনিয়নের সভাপতি সাইফুল ইসলাম লিটু, জেজেআই মিলের সিবিএ নেতা মো. হাসান উল্যা, ক্রিসেন্ট মিলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. পান্নু মিয়া, খালিশপুর জুট মিলের সভাপতি চৌধুরী মিজানুর রহমান মানিক, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান, দৌলতপুর জুট মিলে এডহক কমিটির সভাপতি মো. হেমায়েত উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মো. আক্তার হোসেন, শ্রমিক নেতা মো. দ্বীন ইসলাম, মো. আবু জাফর, কাওসার আলী মৃধা, খলিলুর রহমান, হুমায়ন কবির, গাজী মাসুম, সরদার আলী আহমেদ, আ. সালাম, আ. রশিদ, আবু হানিফ, মো. নুরুল হক, হুমায়ন কবির খান, ইজদান আলী খান, মো. হানিফসহ সিবিএ-নন সিবিএ নেতৃবৃন্দ।
উল্লেখ্য, বকেয়া মজুরি ও বেতনের দাবিতে ২০১৭ সালের ২৮ ডিসেম্বর থেকে খুলনা-যশোর অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৮টি পাটকলের উৎপাদন বন্ধ রেখেছেন শ্রমিকরা। মিলগুলোতে ৫ থেকে ১২ সপ্তাহের মজুরি বাবদ ২৫ হাজার শ্রমিকের পাওনা রয়েছে প্রায় ৪০ কোটি টাকা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ