ঢাকা, মঙ্গলবার 23 January 2018, ১০ মাঘ ১৪২৪, ৫ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বাংলাদেশকে হারিয়ে ফাইনালে যেতে চায় জিম্বাবুয়ে --গ্রায়েম ক্রেমার

স্পোর্টস রিপোর্টার : শ্রীলংকার বিপক্ষে জয়টাই জিম্বাবুয়েকে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে উঠার পথে অনেকটাই সুযোগ করে দিয়েছে। তবে পরের ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে আরেকটি জয় পেলেই নিশ্চিত হয়ে যেতো সেটা ফাইনাল। কিন্তু ঠিক সময়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছে শ্রীলংকা। পরের ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছে লংকানরা। এবার তাই জিম্বাবুয়ের সামনে একটি পথই খোলা, আজ বাংলাদেশকে হারানো। দলটির অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমারও সেই স্বপ্ন দেখছেন। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এসে জিম্বাবুইয়ান অধিনায়ক বলেন, 'আমার মনে হয়, আমরা ৩০টি রান কম করেছি। ২৩০ হলেই হতো। আমাদের ভালো সুযোগ থাকতো। তাদের লেজের ব্যাটসম্যানদের থেকে আমরা মাত্র এক বা দুই উইকেট পেছনে ছিলাম। ভালো লড়াই হয়েছে। তবে ১৯০-এর মতো রান নিয়ে আসলে লড়াই করা কঠিন।' এবার জিম্বাবুয়ে-শ্রীলংকা দুই দলেরই শেষ ম্যাচ বাংলাদেশের বিপক্ষে। যারা জিতবে, তারাই ফাইনালে নাম লেখাবে। ক্রেমার বলেন, ‘এখন ব্যাপারটা খুব ইন্টারেস্টিং হয়ে গেছে। আমাদের এক দলের বাংলাদেশকে হারিয়ে ফাইনালে উঠতে হবে। দর্শকদের জন্য এটা দারুণ। আমি শুধু আশা করছি, আমরাই সেই দলটি হব।' ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখতে আজ বাংলাদেশকে হারাতেই হবে জিম্বাবুয়েকে। জিম্বাবুয়ে তিন ম্যাচে একটাই জয় পেয়েছে শ্রীলংকার বিপক্ষে। আর ১২ রানের সেই জয়ের অনুপ্রেরণা নিয়ে স্বাগতিকদের মুখোমুখি হওয়ার লক্ষ্য জিম্বাবুয়ের। জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যান পিটার মুর বলেছেন, ‘আমরা বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের বাজে পারফরম্যান্স মনে রাখতে চাই না। বরং শ্রলিংকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচের সাফল্য মনে রেখে ম্যাচ খেলবো।’ টুর্নামেন্টে তিনটি ম্যাচ খেলে মিরপুরের পিচ আর কন্ডিশন সম্পর্কে ভালোই ধারণা হয়েছে জিম্বাবুয়ের। বাংলাদেশ শক্ত প্রতিপক্ষ হলেও পিটার মুরের কণ্ঠে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাস। তিনি বলেন, ‘প্রথম ম্যাচে আমরা ভালো খেলতে পারিনি। তবে আস্তে আস্তে পিচ আর কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছি। দ্বিতীয় ম্যাচের সাফল্যেই তা প্রমাণিত। আশা করি, বাংলাদেশের বিপক্ষে কাল আমরা সামর্থ্যওে প্রমাণ রাখতে পারবো।’ তবে ঘরের মাঠে বাংলাদেশকে হারানো যে ভীষণ কঠিন, তা ভালোমতোই জানা এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের, ‘দেশের মাটিতে বাংলাদেশ খুব শক্তিশালী দল। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বাইরেও তারা ভালো খেলেছে। আমরা বাংলাদেশের শক্তি সম্পর্কে ভালোমতোই জানি। ডেথ ওভাওে রুবেল আর মোস্তাফিজ খুবই দক্ষ বোলার। তবে আমরা প্রতিরোধ গড়ার সর্বাত্মক চেষ্টা করবো। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, পরিকল্পনার সঠিক বাস্তবায়ন।’ বাংলাদেশের পারফরম্যান্সের প্রশংসা করে মুর বলেন, 'আমরা সতর্ক আছি, বাংলাদেশ ঘরের মাঠে শক্ত দল। আসলে সাম্প্রতিক বছরের পারফরম্যান্সে তারা বাইরেও শক্তিশালী দল হয়ে উঠেছে। আমার মনে হয়, তারা স্পিন খুব ভালো খেলে, এটাই বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শক্তির জায়গা। এর সঙ্গে তাদের মোস্তাফিজ-রুবেলের মতো ডেথ ওভারের বোলার আছে, যারা খুবই শক্তিশালী। আমাদের এগুলো মাথায় আছে, সেই অনুযায়ী প্রস্তুতি নিচ্ছি। কাল আমাদের ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ অংশটায় জিততে হবে। আমার মনে হয়, আমাদের সেই সামর্থ্য আছে।'

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ