ঢাকা, মঙ্গলবার 23 January 2018, ১০ মাঘ ১৪২৪, ৫ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

স্ত্রীর ডাকে ঘর ছেড়ে বাড়ি ফেরা হলো না তার

তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা: সাতক্ষীরার তালা ইসলামকাটি সাবরেজিঃ অফিসের মোহরার সেলিম শেখ(৪৫) এর ঢাকায় স্ত্রীর বাসায় রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে এলাকায় ব্যাপক গুঞ্জণ শুরু হয়েছে। এক দিন পর ঢাকা থেকে লাশ এনে ময়না তদন্ত ছাড়াই তালায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে। এঘটনায় তার পরিবারসহ এলাকাবাসীর পক্ষে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করলেও এখন পর্যন্ত কোথাও কোন মামলা বা অভিযোগ করা হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে ঢাকাস্থ তার স্ত্রী রোজিনা বা তার সঙ্গীরা মিলে তাকে হত্যা করে স্ট্রোকে অপমৃত্যু বলে প্রচার করছে।
অভিযোগে প্রকাশ,তালার কেচমত ঘোনা এলাকার মৃত শওকত আলী শেখ’র ছেলে সেলিমের আনুমানিক ৭/৮ বছর আগে বিয়ে হয় একই এলাকার বাবর আলী মৃধার মেয়ে রোজিনা আক্তারের(৩২)এর সাথে। বিয়ের পর পিত্রালয়ে থেকেই সেলিমের খরচে লেখা-পড়া করত। এর ২/৩ বছর পর তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটলেও কিছুদিনের মধ্যে তারা পুনরায় বিয়ে করেন। এমন অবস্থায় প্রায় বছর দেড়েক পূর্বে রোজিনা এল এল বি পড়তে ঢাকায় চলে যান। বাসা নেন ঢাকার মিরপুর-১ এলাকায়। সেলিম মাঝে মাঝে ঢাকায় গিয়ে তার সাথে দেখা করে পড়া-লেখার খরচ দিয়ে আসতেন। এক পর্যায়ে গত ৫ জানুয়ারী সেলিম স্ত্রী রোজিনার ডাকে ঢাকায় তার বাসায় গিয়ে আর ফেরেনি।
সেলিমের পারিবারিক সূত্র জানায়, ৭ জানুয়ারী রবিবার গভীর রাতে তার স্ত্রী ঢাকা থেকে তাদের বাড়িতে খবর দেয় যে,হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে। খবর পেয়ে সেলিমের বাড়ি থেকে লোক-জন গিয়ে দেখেন যে,তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফোলা জখম ছিল। এসময় তারা রোজিনার ভাষ্যমতে অসুস্থাবস্থায় তাকে যে ক্লিনিকে নেয়া হয়েছিল সেখানে  (ডেল্টা ক্লিনিকে) খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন যে,তার মৃত্যুর প্রায় আড়াই ঘন্টা পর তাকে তাদের ক্লিনিকে নেয়া হয়েছিল। এর পর বিষয়টি সেখানে কাউকে কিছু বুঝতে না দিয়েই লাশ নিয়ে বাড়িতে ফিরে ময়না তদন্ত না করেই পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন করেন।
প্রসঙ্গত রোজিনা সেলিমের ২য় স্ত্রী। বাড়িতে প্রথম পক্ষের স্ত্রীর দু’টি সন্তান রয়েছে। সেলিমের মৃত্যুর খবরে এলাকা ও পরিবারে গুঞ্জণের খবরে রোজিনা ঢাকা থেকে ফোনে সেলিমের পরিবারকে এনিয়ে বাড়াবাড়ি নাকরতে নানাবিধ ভয় ভীতি ও হুমকি ধামকি দেয়া হচ্ছে। আর এতে করে সন্দেহ আরো ঘণিভূত হয়েছে। পারিবারকি সূত্র জানায়,সেলিম তালার ইসলামকাটি সাবরেজিঃ অফিসের একজন মোহরার ছিলেন। তিনি খোনে প্রায় ২০/২৫ বছর যাবৎ কর্মরত ছিলেন। বিষয়টি সেখানে তার দির্ঘ দিনের সহকর্মীদেরকেও ভাবিয়ে তুলেছে। পরিবার থেকে দাবি করা হচ্ছে, রোজিনা এলাকা ও এলাকার বাইরে ঢাকায় বলগাহীন জীবন-যাপন করতেন। সে কারণে সেলিমের কাছে তার প্রয়োজন প্রায় ফুরিয়ে গিয়েছিল। এ নিয়ে বিভিন্ন সময় রোজিনার সাথে তার দুরত্ব বজায় রেখে গোলযোগ করতেও দেখেছেন তারা। সর্বশেষ তাকে ডেকে নিয়ে ঢাকার বাসায় নিয়ে গেলে আর সেখান থেকে আর জীবন্ত ফেরেনি সেলিম।
এব্যাপারে তালা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি হাসান হাফিজুর রহমানের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন,বিষয়টি তাকে কেউ জানায়নি। যেহেতু মৃত্যুটা ঢাকাতে হয়েছে সেহেতু মামলা হলে সেখানে হওয়ার কথা। তাছাড়া বিষয়টি তাকে জানালে তিনি ব্যবস্থা নিতে পারতেন।
সর্বশেষ মোহরার সেলিমের রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে তার পরিবার ও পরিবারের বাইরে ব্যাপক গুঞ্জণ শুরু হয়েছে। দাবি উঠেছে কবর থেকে পুনরায় লাশ উত্তোলনপূর্বক ময়নাতদন্ত ও রোজিনাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বেরিয়ে আসতে পারে তার মৃত্যুর অন্তরালের মূল রহস্য।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ