ঢাকা, বুধবার 24 January 2018, ১১ মাঘ ১৪২৪, ৬ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

স্কুলে ভর্তি নীতিমালার বয়স নিয়ে ভুল ব্যাখ্যায় নতুন করে জটিলতা

খুলনা অফিস: সরকারি স্কুলে ভর্তি নীতিমালা নিয়ে ভুল ব্যাখ্যা করায় জটিলতা তৈরি হয়েছে। নীতিমালায় প্রথম শ্রেণীতে ভর্তির ক্ষেত্রে ন্যুনতম বয়স ৬ বছর নির্ধারণ করা হয়েছে, যা ২০১৮ শিক্ষাবর্ষ হতে কার্যকর হবে। তবে এ নীতিমালা নিয়ে নগরীর অনেক স্কুল ‘এসএসসি পরীক্ষার সময় শিক্ষার্থীর বয়স ১৬ বছরের বেশি না হলে পরীক্ষা দিতে পারবে না’ এমন ব্যাখ্যা করায় জটিলতা তৈরি হয়েছে। এতে স্কুলগুলোতে অধ্যায়নরত বিভিন্ন ক্লাসের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক ও বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। গত ১৫ নবেম্বর ২০১৭ জারিকৃত সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তির নীতিমালা-২০১৭ এ বলা হয়েছে ‘জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ অনুযায়ী প্রথম শ্রেণীতে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীর বয়স ৬+ হতে হবে। সে হিসেবে ২য় থেকে ৯ম শ্রেণীর ভর্তির বয়স নির্ধারিত হবে। ভর্তির বয়সের উর্ধ্বসীমা সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় নির্ধারণ করবে।
শিক্ষার্থীদের বয়স নির্ধারণের জন্য ভর্তির আবেদন ফর্মের সাথে অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের সত্যায়িত ফটোকপি জমা দিতে হবে।’ তবে এ নীতিমালার উপর ভিত্তি করে নগরীর বিভিন্ন স্কুল শিক্ষার্থীদের কাছে ভুল ব্যাখ্যা করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্কুলগুলোর পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের কাছে ‘১৬ বছরের বেশি না হলে কেউ এসএসসি পরীক্ষা দিতে পারবে না’ এমন তথ্য জানানো হয়েছে এবং প্রয়োজনে জন্ম রেজিস্ট্রেশন সংশোধনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। সাথে সাথে বর্তমানে বিভিন্ন ক্লাসে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য ভর্তির এ নীতিমালা প্রযোজ্য হবে এমন ভুল তথ্য সরবরাহ করা হয়েছে। এতে বিভিন্ন শ্রেণীতে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক ও বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। অভিভাবকদের অভিযোগ, সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তির নীতিমালা-২০১৭ তে উল্লেখ রয়েছে, প্রথম শ্রেণীতে ভর্তির ক্ষেত্রে বয়স ৬+ হতে হবে। সে হিসেবে ২০১৮ সালে যারা ভর্তি হবে তারা ১৬+বছর বয়সে এসএসসি পরীক্ষা দিলেও, আগের বছরগুলোতে যারা ভর্তি হয়েছে তাদের বয়স ‘এসএসসি পরীক্ষার সময় ১৬ বছরের বেশি হতে হবে’ এটা কোথাও বলা নেই। তাহলে বোর্ড রেজিস্ট্রেশনের সময় বর্তমানে ৫ম বা ৮ম শ্রেণীতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীর বয়স ভর্তির নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নির্ধারণের ব্যাখ্যা সম্পূর্ণ ভুল। কারণ ঐসব শিক্ষার্থীর জন্ম রেজিস্ট্রেশন অনেক আগেই অনলাইনে সম্পন্ন করা হয় এবং তা ইচ্ছা অনুযায়ী সংশোধন করার সুযোগ নেই।  এ ব্যাপারে খুলনা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফারহানা নাজ বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েব সাইটে প্রকাশিত নীতিমালায় প্রকাশিত ভর্তি নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণ করা হচ্ছে। বিশেষ করে আমাদের স্কুলে যেহেতু তৃতীয় শ্রেণীতে ভর্তি করা হয় সেখানে আমরা ন্যূনতম বয়স ৮+অনুসরণ করা হয়েছে। তবে এর আগে যারা ভর্তি হয়েছে অর্থাৎ বর্তমানে ৪র্থ থেকে ১০ম শ্রেণীতে পড়ছে, তাদের ক্ষেত্রে এটা প্রযোজ্য নয়। সরকারি করোনেশন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ইদ্রিস আলী আজিজী বলেন, ২০১৮ সাল থেকে ভর্তি নীতিমালার আলোকে ভর্তি করানো হয়েছে। যেহেতু আমাদের স্কুলে তৃতীয় শ্রেণীতে ভর্তি করানো হয়, তাই ন্যূনতম বয়স ৮+ হিসেবে ভর্তি করানো হয়েছে। বর্তমানে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের ব্যাপারে নীতিমালায় কিছু বলা না থাকায় তারা এই নীতিমালার আওতায় আসবে না। খুলনা জেলা শিক্ষা অফিসার খোন্দকার রুহুল আমিন বলেন, সরকারি স্কুলে ভর্তি নীতিমালার আলোকে খুলনার সব স্কুলে শিক্ষার্থী ভর্তি নিশ্চিত করা হয়েছে। যেহেতু ২০১৮ সালে ভর্তির জন্য এই নীতিমালা জারি করা হয়েছে। তাই ২০১৮ সালের আগে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা এই নীতিমালার আওতায় আসবে না। তবে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর খুলনা অঞ্চলের পরিচালক টিএম জাকির হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীদের বয়স নির্ধারণ নিয়ে ভর্তি নীতিমালার বাইরে আর কোন সরকারি চিঠি পাওয়া যায়নি। সকল স্কুলে প্রথম শ্রেণীর ভর্তিতে ন্যূনতম বয়স ৬+ এর নীতি অনুসরণ করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ