ঢাকা, শুক্রবার 26 January 2018, ১৩ মাঘ ১৪২৪, ৮ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সিলেটে আদালত প্রাঙ্গনে আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত বাহিনীর হামলায় ২ সাংবাদিক আহত

 

সিলেট ব্যুরো : সিলেটে আদালত প্রাঙ্গনে আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত বাহিনীর হামলায় দৈনিক যুগান্তরের আলোকচিত্রি মামুন হাসান ও যমুনা টেলিভিশনের ক্যামেরাপার্সন নিরানন্দ পাল আহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে জৈন্তাপুর উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলীর অনুসারীদের দ্বারা হামলার শিকার হন তারা। এসময় তাদের ক্যামেরাও ভাঙচুর করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শ্রীপুর পাথর কোয়ারিতে শ্রমিক মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা একটি মামলার হাজিরা শেষে আদালতের নির্দেশে আসামী লিয়াকত আলী ও অন্যান্যদের কারাগারে প্রেরণ করার সময় এর ভিডিওচিত্র ও স্থিরচিত্র ধারণ করতে থাকেন মামুন হাসান ও নিরানন্দ পালসহ অন্যান্য সাংবাদিকরা। এ সময় লিয়াকত আলী ও তার সহযোগীরা দায়িত্বপালনরত সাংবাদিকদের ওপর চড়াও হন এবং মারধর শুরু করেন। তাদের হামলায় মাথায় মারাত্মক আঘাত পান নিরানন্দ পাল এবং আহত হন মামুন হাসান। এ সময় তাদেরকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান উপস্থিত সংবাদকর্মীরা।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) আব্দুল ওয়াহাব জানান, হামলার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে এ হামলার ঘটনায় কাউকে আটক করা হয়নি বলেও জানান তিনি।

৬ ছাত্রলীগ কর্মীর কারাদ-

সিলেট নগরীর মীরের ময়দানে সেনাবাহিনীর মেজর মোস্তফা আনোয়ারুল আজিজ এর ওপর হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ৬ ছাত্রলীগ কর্মীর সাজা প্রদান করেছে আদালত। এ ঘটনায় আরো ২ কর্মীকে খালাস দেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরো দ্রুত বিচার আইনে করা এ মামলার রায় প্রদান করেন।

আদালতের সহকারী কৌঁসুলি মাহফুজুর রহমান জানান, মামলায় ছাত্রলীগ কর্মী হাসান শাহরিয়ার রকি, সাফকাত হোসেন শুভ, কাজি মাকসুদ আহমদ, ভানুলাল দাশ, সাইদুল ইসলাম ও সমীরণ চৌধুরী সৌরভকে ৪ বছরে কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন আদালত। রায়ে বেকসুর খালাস পান ছাত্রলীগ নেতা আসাদুজ্জামান খান জুয়েল ও হাবিবুর রহমান পাভেল।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৬ এপ্রিল রাতে নগরীর কেওয়াপাড়ার বাসা থেকে বের হন মেজর আজিজ। এ সময় ছাত্রলীগের কয়েক জন নেতাকর্মী মেজর আজিজকে তার গাড়ি সড়কের পাশে সরাতে বললে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তারা মেজর আজিজের ওপর হামলা চালায়। এ সময় মেজরের ডান কানের নিচে ছুরিকাঘাত করা হয় এবং তার গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। পরে আহত মেজর আজিজ বাদী হয়ে সাত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ