ঢাকা, বৃহস্পতিবার 1 February 2018, ১৯ মাঘ ১৪২৪, ১৪ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সিরিয়া বিষয়ক সোচি সম্মেলনে রাশিয়া তুরস্ক ইরানের মধ্যে মতৈক্য

রাশিয়ার সোচি শহরে সিরিয়া বিষয়ক ন্যাশনাল কংগ্রেস অনুষ্ঠিত

৩১ জানুয়ারি, আল জাজিরা, পার্সটুডে : রাশিয়ার সোচি শহরে সিরিয়া বিষয়ক ন্যাশনাল কংগ্রেস সফল হয়েছে বলে জানিয়েছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। তিনি বলেছেন, সোচি সম্মেলনে যেসব পক্ষ অনুপস্থিত ছিল তারা সিরিয়ার সংবিধান প্রণয়ন কমিটির বৈঠকে যোগ দেবে। গত ল্যাভরভ মঙ্গলবার রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, জাতিসংঘের সিরিয়া বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি স্ট্যাফান ডি মিস্তুরা সিরিয়ার পক্ষগুলোর মধ্যে ব্যাপকভিত্তিক আলোচনায় সহযোগিতা করবেন। এ বিষয়ে রাশিয়া, তুরস্ক ও ইরানের মধ্যে মতৈক্য হয়েছে বলে তিনি জানান।
সোচিতে মঙ্গলবার রাতে এক বিবৃতি প্রকাশের মধ্য দিয়ে সিরিয়া বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন শেষ হয়। বিবৃতিতে সিরিয়ার অখণ্ডতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে বলা হয়, সিরিয়ার ভবিষ্যত নির্ধারণের অধিকার একমাত্র দেশটির জনগণ সংরক্ষণ করেন এবং তারা ব্যালটের মাধ্যমে তাদের সে অধিকার প্রয়োগ করবেন।
সিরিয়ায় গণতান্ত্রিক উপায়ে নির্বাচন আয়োজনের জন্য আগে দেশটির জন্য একটি সংবিধান প্রণয়ন করা হবে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।
এতে আরো বলা হয়, সিরিয়ার সীমান্ত রক্ষা এবং দেশটির জনগণের নিরাপত্তা বিধানের লক্ষ্যে সেদেশের সেনাবাহিনী যেমন আছে তেমনই সক্রিয় থাকবে। সোচি সম্মেলনের বিবৃতিতে সব ধরনের উগ্রবাদ, সন্ত্রাস ও মাজহাবগত বিভেদের নিন্দা জানিয়ে সক্রিয়ভাবে এসব প্রতিহত করার আহ্বান জানানো হয়।
সোচিতে সিরিয়া বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন সোমবার শুরু হয়েছিল। গত নভেম্বরে মস্কোয় ইরান, রাশিয়া ও তুরস্কের মধ্যে এক সমঝোতার ভিত্তিতে এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
অন্যদিকে রাশিয়ার মধ্যস্থতায় সোচিতে সিরিয়ার শান্তি প্রচেষ্টায় আয়োজিত সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীরা য্দ্ধুবিধ্বস্ত দেশটির সংবিধান প্রণয়নে একটি কমিশন গঠনে একমত হলেও সম্মেলন বর্জনকারী বিরোধীদের বড় অংশই প্রস্তাবটি প্রত্যাখ্যান করেছে।
গত মঙ্গলবার সিরিয়ায় নিযুক্ত জাতিসংঘের বিশেষ দূত স্টাফান ডি মিস্টুরা বলেন, সোচিতে অনুষ্ঠিত দুই দিনের সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীরা কমিটি গঠনে সম্মত হয়েছেন। ১৫০ সদস্যের এই কমিটিতে সরকার ও বিরোধী কর্মকর্তাদের অন্তর্ভূক্ত করতেও তারা রাজি। ডি মিস্টুরা বলেন, জাতিসংঘের নেতৃত্বে জেনেভায় কমিটির ব্যাপারে চূড়ান্ত চুক্তি হবে। কিন্তু সম্মেলনের চূড়ান্ত বিবৃতিতেও প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদের ভাগ্যে কী ঘটবে তা বলা হয়নি। এর আগে এই বিষয়টি নিয়েই আলোচনায় সবচেয়ে বেশি কথা হয়েছে।
সিরিয়ার প্রধান বিরোধীগোষ্ঠী সিরিয়ান সমঝোতা কমিশন (এসএনসি) অভিযোগ করেছে, আসাদ ও রাশিয়া সামরিক শক্তি ব্যবহার অব্যাহত রেখেছে আর সত্যিকার সমঝোতা করার আগ্রহ দেখাচ্ছে না। এসএনসি’র মুখপাত্র মায়া আলরাহিবি বলেন, ‘আমরা এই পর্যায়ে কোনও ধরনের সাংবিধানিক কমিশন গঠনের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করছি।’
মায়া আলরাহিবি আল জাজিরাকে বলেন, তার পরিবর্তে গোষ্ঠীটি চায় সরকার ও বিরোধীরা মিলে প্রথমে একটি অন্তর্র্বতী সরকার গঠন করবে। ওই সরকারের মেয়াদে সিরিয়ার সব জনগণের প্রতিনিধি নিয়ে একটি সাংবিধানিক কমিটি গঠন করা যেতে পারে। তিনি আরও বলেন, ওই সাংবিধানিক কমিটি তখন একটি খসড়া সংবিধান প্রণয়ন করবে। তারপর অবাধ ও স্বচ্ছ ভোটাভুটির মাধ্যমে তা অনুমোদন দেওয়া হবে।
তুরস্কভিত্তিক বিরোধী গোষ্ঠী সিরিয়ান কোয়ালিশনের আইনজীবী হিশাম মারওয়াহ বলেন, নতুন সংবিধান লেখা ও ভোটাভুটির জন্য সিরিয়ায় একটি ‘নিরপেক্ষ ও নিরাপদ পরিবেশ’ দরকার। তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের এখন সেই পরিবেশ নেই। সিরিয়ার রাস্তায় এই মুহূর্তেও ট্যাংক ঘুরে বেড়াচ্ছে।’ তিনি বলেন, এই প্রক্রিয়ায় একবারে আমাদের অবশ্যই মাত্র একটি পদক্ষেপ নিতে হবে। জেনেভা প্রজ্ঞাপন ও জাতিসংঘ প্রস্তাবে তাই বলা আছে।
এদিকে বিশ্লেষকরা বলছেন, বিরোধীপক্ষের অংশগ্রহণ ছাড়া সোচি চুক্তি সিরিয়ার যুদ্ধ বন্ধে কাজে আসবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ