ঢাকা, শুক্রবার 2 February 2018, ২০ মাঘ ১৪২৪, ১৫ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ছড়া

পাখির ভালোবাসা

শফিকুল ইসলাম শফিক

 

পরিবেশের বন্ধু বটে  

পাখি হীনে বিঘœ ঘটে

নানান জাতের নানান পাখি

দৃষ্টি জুড়ে তারে রাখি।

 

পাখির প্রতি মমতাশীল

ভালোবাসা দাও অনাবিল

গ্রামে যেতে না যেতে ভাই

পাখির গানে কী ধ্বনি পাই!

 

কিচিরমিচির কত শুনি

ইচ্ছে করে সবই গুনি

সারা গায়ে পাখির মেলা

আপন মনে করে খেলা।

 

কিচিরমিচির চারিপাশে

দূর থেকেও ভেসে আসে।

খড় কুটাতে বানায় বাসা

সেই বাসাটি ভারী খাসা।

 

পাখির গানই চির চেনা 

ভোরে বেলাতে ওঠে কে-না?

গাঁয়ের মানুষ পাখির ডাকে

সারাটা দিন বিভোর থাকে।

 

 

নতুন দিনের স্বপ্ন

প্রহরী মনিরুজ্জামান

 

নতুন দিনের স্বপ্ন নিয়ে ভোরের আলো সেকি!

ডাকলো পাখি আপন মনে, ফুল ফুটেছে দেখি।

কৃষক বুনে নতুন ফসল নতুন মাটি পেয়ে

দেশের ছেলে-দেশের মেয়ে উঠলো সবে গেয়ে।

নতুন করে জোয়ার এলো নদ নদীতে ভেসে

আঁখির কোনায় স্বপ্নঝরে শান্তি সুখের দেশে।

আপন মনে মিলে মিশে থাকুক চির কাল।

সবার মাঝে আসলো দেখি দুই আটারো সাল।

 

 

মন হয়ে যায় 

তাজ ইসলাম

 

মন হয়ে যায় উদাস বাউল

শৈশবে যাই ফিরে

ভাই বোনেরা বসে আছি

আমরা মাকে ঘিরে।

 

শীতের ভোরে মা বানাবেন

স্বাদের কোন পিঠা

মা বলবেন দেখতো বাবা

চলবে নাকি মিঠা।

 

মন হয়ে যায় উদাস বাউল

শৈশবে যাই ফিরে

আমরা সবাই বসে আছি

ন্যাড়ার আগুন ঘিরে।

 

পৌষে পোহাই সকালি রোদ

বসে পুকুর পাড়ে

উদাসী মন ছুটে সেথায়

কেবল বারে বারে।

 

হাতে হাতে মুড়কি মুড়ি

রৌদ্রে বসে খাই

উদাসী মন শৈশবেতে

কেবল ছুটে যায়।

 

আমার এ মন হয় উচাটন

ভাল্লাগে না কিছু 

কালের করাত কাটছে সময়

ছুটছি স্মৃতির পিছু।

 

আহ্! কত  দিন মায়ের হাতে

পিঠা পুলি খাইনি

কেমনে খাব?  রীতিমত

গ্রামের বাড়ীই যাইনি।

 

মেলা

বুশরা রহমান

 

     মেলা

সেথায় আমি দেখবো অনেক

    খেলা।

 

    মেলা

সেথায় আছে রঙের

    ভেলা।

মেলায় আছে অনেক রকম জিনিস

কিনতে গিয়ে টাকা হবে ফিনিশ। 

 

 

শীতল হাওয়া

ফরিদুল মাইয়ান

 

শীতল হাওয়ার হিমেল পরশ

গা জড়িয়ে ধরে

শিশির বিন্দু ধানের ডগায়

পড়ে থরে থরে।

 

খেজুর রসের গুড় পাটালি

নতুন ধানের খই

এক সাথে আজ খাবো সবে

বন্ধু তোরা কই।

 

দাড়িয়াবান্দা ছি কিৎ কিৎ

খেলবো পুকুর ঘাটে

গোল্লাছুটে ছুট দেবো যে

তেপান্তরের মাঠে।

 

মাঠ পেরিয়ে ঘাট পেরিয়ে

হয়ে যাবো ঘুড়ি

জোসনা রাতের বন্ধু হবে

চরকা কাটা বুড়ি।

 

খুকির সাধ

সা’দ সাইফ

 

খুকির হাতে তুলি-কাগজ

আঁকবে হরেক ছবি,

সকাল বেলার গ্রাম এবং

আঁকবে লাল রবি।

 

রঙতুলির ওই আল্প-ছোঁয়ায়

আঁকবে সবুজ মাঠ,

কৃষক ভাইয়ের ছবি এবং

আঁকবে নদীর ঘাট।

 

রাতের আকাশ চাঁদের ছবি

আঁকবে অনেক তারা,

পাহাড় এবং নদীর স্রোত

আঁকবে ঝর্ণাধারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ