ঢাকা, সোমবার 5 February 2018, ২৩ মাঘ ১৪২৪, ১৮ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পরিকল্পনা ছাড়া সরকারের পক্ষে দাবি পূরণ সম্ভব নয় -প্রধানমন্ত্রী

বাসস : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিক্ষোভ করলেই সরকারের পক্ষে দাবি পূরণ সম্ভব নয়, কারণ সরকার পরিকল্পনা এবং বাজেট ছাড়া দাবি পূরণ করতে পারে না। দাবি আদায়ে রাজপথে আন্দোলনরত শিক্ষকদের একটি অংশের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি আজ একথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের শেষ বছরে এসে কেউ যদি মনে করেন সরকারের এটা শেষ বছর কাজেই দাবি করলেই আমরা সব শুনে ফেলবো, সেটা সম্ভব নয়। কারণ আমাদের একটা বাজেট দিয়ে পরিকল্পিতভাবে চলতে হয়।
’তিনি বলেন, ‘কোথায় কোথায় সরকারিকরণ করতে হবে, কোন নীতিমালার ভিত্তিতে করতে হবে, সেটাওতো একটা নীতিমালার ভিত্তিতেই হতে হবে। যখন-তখন যে কেউ দাবি করলে সেটাতো পূরণ করা সম্ভব নয়। সেটা সবাইকে অনুধাবন করতে হবে।’
শেখ হাসিনা রোববার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই সহস্রাধিক কলেজ অধ্যক্ষের অংশগ্রহণে আয়োজিত ‘শিক্ষা সমাবেশে’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এই কথা বলেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী দেশের সম্পদের সীমাবন্ধতার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, ‘দিলেই আরো দাও আরো দাও করলে আমরা দিতে অপারগ হবো, কারণ আমাদের একটা বাজেট দিয়ে পরিকল্পিতভাবে চলতে হয়।’ক্ষমতায় থাকার জন্যই কেবল রাজনীতি করেন না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষকতাকে একটি মহত পেশা, আপনাদের হাতেই রয়েছে জাতির ভবিষ্যত। একজন শিক্ষকের কাছে আমি এটুকুই চাই আপনারা কতটুকু দিতে পারলেন, করতে পারলেন। কি ধরনের শিক্ষাটা আপনারা দিয়ে যেতে পারলেন যাতে ভবিষ্যত প্রজন্ম দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে, দেশকে আরো উন্নত করতে পারবে- সেটাই হচ্ছে বড় কথা। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এবং শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসেইন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড.হারুন-অর-রশীদ অন্ষ্ঠুানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১টি ভবন, প্রকল্প ও স্থাপনার উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্থর স্থপান করেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী কলেজ র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষস্থান অর্জনকারি কলেজের অধ্যক্ষদের হাতে সন্মাননা স্মারক, পুরস্করের চেক এবং বঙ্গবন্ধুর লেখা দুটি বই অসমাপ্ত আত্মজীবনী এবং কারাগারের রোজ নামচা তুলে দেন। রাজশাহী কলেজ, জাতীয় পর্যায়ে প্রথম এবং সরকারি কলেজ সমূহের মধ্যেও প্রথম স্থান, জাতীয় পর্যায়ে দ্বিতীয়-সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ, পাবনা, জাতীয় পর্যায়ে তৃতীয় কারমাইকেল কলেজ, রংপুর, জাতীয় পর্যায়ে ৪র্থ সরকারি ব্রজমোহন কলেজ বরিশাল এবং জাতীয় পর্যায়ে ৫ম স্থান অধিকার করে- সরকারি আজিজুল হক কলেজ, বগুড়া। সিদ্ধেশ্বরী মহিলা কলেজ, ঢাকা, জাতীয় পর্যায়ে সেরা মহিলা কলেজ এবং ঢাকা কমার্স কলেজ জাতীয় পর্যায়ে সেরা বেসরকারি কলেজের পুরস্কার লাভ করে।
প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বর্তমান সরকার দেশের বাজেট ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকায় উন্নীত করে দেশকে সাধ্যমত এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে বলেন, সকলের বেতন-ভাতা অনুদান তাঁর সরকার বাড়িয়ে দিয়েছে, সরকারি-বেসরকারি সব জায়গায় সহযোগিতা করে যাচ্ছে, কাউকে বঞ্চিত করা হচ্ছে না।
প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে সরকারের দু’ই মেয়াদের ৯ বছরে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ সমূহ তুলে ধরেন।
তিনি বলেন, তাঁর সরকার সারাদেশে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন, সুবিধা বঞ্চিত বিশেষ অঞ্চলের জনগোষ্ঠী কিংবা ক্ষুদ্র ও নৃ-গোষ্ঠীর জন্য তাদের নিজস্ব ভাষায় পাঠ দান, প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা সহায়ক সিলেবাস প্রণয়ন, পরীক্ষার সময় বাড়িয়ে দেওয়া, আনন্দ স্কুলসহ বিশেষায়িত বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, কারিগরি শিক্ষার ব্যাপক প্রসার এবং উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্র সম্প্রসারণ ও মানোন্নয়নসহ সবক্ষেত্রে যুগান্তকারী পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করেছে। প্রধানমন্ত্রী এ দিন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের যে ১১টি ভবন, প্রকল্প ও স্থাপনার উদ্বোধন ও ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন সেগুলো হচ্ছে- মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট, স্বাধীনতা ম্যুরাল ১৯৫২ থেকে ১৯৭১, কলেজ শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ডরমেটরি ভবন, আইসিটি ভবন, সিনেট ভবন, কর্মকর্তা ভবন ও কর্মচারি ভবন, বরিশাল, রংপুর ও চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কেন্দ্র নির্মাণ এবং বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় ১০৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘কলেজ-শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্প (সিইডিপি)’ শীর্ষক প্রকল্প।
মিরপুরে সরকারি কর্মকর্তাদের ফ্ল্যাট
নির্মাণসহ ১১ প্রকল্পের অনুমোদন
বাসস : রাজধানীর মিরপুর ৬ নং সেকশনে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ২৮৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণসহ ১১ প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯০ কোটি ৫০ লাখ টাকা। ফ্ল্যাট নির্মাণসহ বাকী ১০ প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৭ হাজার ৪২৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা। সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে পুরো অর্থ ব্যয় হবে। রোববার রাজধানীর শেরেবাংলানগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় এসব প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠকশেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল প্রকল্প সম্পর্কে সাংবাদিকদের বিস্তারিত ব্রিফ করেন। তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংখ্যা বহুগুণে বৃদ্ধি পেলেও সরকারি আবাসন সুবিধা আগের মতই রয়ে গেছে। ফলে বর্তমানে আবাসন সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। এজন্য সরকারি কর্মকর্তাদের আবাসন সুবিধা তথা স্বাস্থ্যকর ও উপযুক্ত বাসস্থান নিশ্চিত করতে এই প্রকল্পটি নেয়া হয়েছে।‘ ঢাকাস্থ মিরপুর ৬নং সেকশনে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ২৮৮টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ’ প্রকল্পটি গণপূর্ত অধিদফতর সেপ্টেম্বর ২০১৭ হতে জুন, ২০২০ মেয়াদে বাস্তবায়ন করবে। পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রত্যেক হাওর অঞ্চলের জন্য আলাদা আলাদা প্রকল্প নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, মাছের জন্য ল্যান্ডিং স্টেশন নির্মাণ, মাছ বাজারজাতকরণে ভ্যান কেনাসহ বিকল্প ফসল উৎপাদন ও বিকল্প আয়ের পথ খুঁজে বের করতে হবে। এজন্য প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয় ও হাওর উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থাকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে বলেছেন। তিনি আরো জানান, প্রধানমন্ত্রী জাতীয় রাজস্ব ভবন ২০তলার পরিবর্তে ১২ তলা করার নির্দেশনা দিয়েছেন। কারণ, বিমান বন্দর কাছাকাছি থাকায় এটি ২০তলা করা যাচ্ছে না। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ঢাকায় র‌্যাব ফোর্সেস সদর দফতর নির্মাণের জন্য প্রাথমিক অবকাঠামো নির্মাণের লক্ষ্যে র‌্যাব ফোর্সেস সদর দফতর নির্মাণ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে র‌্যাব সদর দফতরের স্থায়ী অবকাঠামোর প্রথম ধাপের কাজ সম্পন্ন হবে। প্রকল্পটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৯৫ কোটি ১০ লাখ টাকা এবং বাস্তবায়নকাল জানুয়ারি ২০১৮ হতে জুন, ২০২১। একনেকে অনুমোদন পাওয়া অন্য প্রকল্পসমূহ হচ্ছে-উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়কে দীর্ঘ সেতু নির্মাণ প্রকল্প, বৃহত্তর ফরিদপুর গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন (২য় পর্যায়), ‘বৃহত্তর ফরিদপুর গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন (৩য় সংশোধিত) প্রকল্প, সমন্বিত কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ প্রকল্প, ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ইন্দ্রপুল হতে চক্রশালা পর্যন্ত বাঁক সরলীকরণ প্রকল্প, চট্টগ্রাম বিএফ ঘাঁটি জহুরুল হক বিমান সেনা প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপন প্রকল্প, বরিশাল টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ উন্নীতকরণ প্রকল্প, জামালপুরের মাদারগঞ্জে শেখ রাসেল টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট প্রকল্প এবং জাতীয় রাজস্ব ভবন নির্মাণ (সংশোধিত) প্রকল্প।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ