ঢাকা, মঙ্গলবার 6 February 2018, ২৪ মাঘ ১৪২৪, ১৯ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সরকার দমন-নিপীড়ন চালিয়ে দেশকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে              - অধ্যাপক মুজিব

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নোয়াখালী জেলা শাখার আমীর মাওলানা আলাউদ্দিন, লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলা শাখার আমীর ড. নুরুদ্দিন মাহমুদ, রামগঞ্জ পৌরসভা শাখার সেক্রেটারি নাজমুল হাসান পাটওয়ারীসহ ১১ জন নেতা-কর্মীকে গত ৪ ফেব্রুয়ারি রাতে পুলিশের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করার ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানান। 

গতকাল সোমবার দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, আমরা উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি যে, গত কয়েকদিন যাবত পুলিশ সারা দেশেই জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরসহ বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা শুরু করেছে। গণবিচ্ছিন্ন সরকার কর্তৃত্ববাদী স্বৈরশাসন দীর্ঘায়িত করার হীন উদ্দেশ্যেই সারা দেশে ব্যাপক গ্রেফতার অভিযান শুরু করেছে। সরকার সারা দেশে জামায়াতসহ বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের উপর দমন-নিপীড়ন চালিয়ে দেশকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে। 

তিনি বলেন, সরকার একদিকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচার অভিযান শুরু করেছে। অন্যদিকে জামায়াতসহ বিরোধী দলগুলোর উপর অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে অন্যায়ভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার অপপ্রায়াস চালাচ্ছে। এ থেকে পরিষ্কার বুঝা যাচ্ছে যে, সরকার অবাধ, স্ষ্ঠুু, নিরপেক্ষ ও সকল দলের অংশগ্রহণে সকলের নিকট গ্রহণযোগ্য কোন নির্বাচন চায় না। তারা একতরফা প্রহসনমূলক নির্বাচনের নাটক করে ক্ষমতায় থাকার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। বর্তমান সরকার দীর্ঘ দিন থেকেই জামায়াতসহ বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করে তাদের উপর অত্যাচার-নির্যাতন চালাচ্ছে। আমি সরকারকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই যে, অতীতেও অনেক সরকার বিরোধী দলগুলোর উপর অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে অন্যায় ও অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার অপচেষ্টা চালিয়েছে। কিন্তু তাদের অত্যাচার-নির্যাতনের পরিণতি শুভ হয়নি। বর্তমান কর্তৃত্ববাদী সরকারের জুলুম-নির্যাতনের পরিণতিও কখনো শুভ হবে না। 

দমন-নিপীড়নমূলক গণ-গ্রেফতার অভিযান বন্ধ করে নোয়াখালী জেলা জামায়াতের আমীর মাওলানা আলাউদ্দিনসহ সারা  দেশে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের গ্রেফতারকৃত সকল নেতা-কর্মীকে অবিলম্বে মুক্তি প্রদান করার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ