ঢাকা, বৃহস্পতিবার 8 February 2018, ২৬ মাঘ ১৪২৪, ২১ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্নও ফাঁস

স্টাফ রিপোর্টার : সরকারি নানা ঘোষণা সত্ত্বেও চলমান এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস থামছেই না। গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্নপত্রও ফাঁস হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর ফলে দেশের সর্ববৃহৎ এই সাধারণ পরীক্ষার এ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত চারটি বিষয়ের প্রশ্নই ফাঁস হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেলো।  বাংলা প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র এবং ইংরেজি প্রথম পত্রের পর গতকাল ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের রচনামূলক পরীক্ষার প্রশ্নপত্রও ফাঁস হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ দিকে প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে মাদারীপুর থেকে এক জনকে আটক করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার পরীক্ষা শুরুর আগেই সকাল ৯টা ২০ মিনিট থেকে ৯টা ২৪ মিনিটের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক গ্রুপে `L`সেট এর প্রশ্ন ফাঁস হয়ে  দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এর আগে বাংলা প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগের ভিত্তিতে করণীয় নির্ধারণে একটি কমিটি গঠন করা হয়।

এরই মধ্যে প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে রোববার শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রশ্ন ফাঁসকারীকে ধরিয়ে দিলে পাঁচ লাখ টাকা পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা দেন। কিন্তু মন্ত্রীর ঘোষণা আসার পরও সোমবার ইংরজি প্রথম পত্রের প্রশ্নও ফাঁস হয় ।

বুধবার ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষার সকালে ৯টা ২০ মিনিটেU ÔEnglish Suggestion for SSC and HSC examineeÕ নামে ফেইসবুক মেসেঞ্জার গ্রুপে সকাল ৯টা ২৪ মিনিটে ‘মো. ইমাজ উদ্দিন রিয়াদ’ এবং ÔSSc English 2nd 2018Õ  নামের গ্রুপেÔRidoy KhanÕ নামের আইডি থেকে ‘খ’ সেটের প্রশ্নের দুটি ইমেজ পাঠানো হয়।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকারের কাছে প্রশ্ন ফাঁস সম্পর্কে জানতে চাইলে গণমাধ্যমেকে তিনি বলেন, আপনারা যে সময় প্রশ্ন পেয়েছেন, ওই সময়ে তো বাচ্চারা পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকে গেছে। তার মানে তারা তো প্রশ্ন পায়নি।

এ দিকে চলমান এসএসসি পরীক্ষার ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে মাদারীপুর থেকে এক জনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃত শিক্ষার্থীর নাম মো. জোবাইদুল ইসলাম।

গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সদর উপজেলার মস্তফাপুর বাসস্ট্যান্ডে থেকে তাকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় প্রশ্ন ফাঁসকারীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আটকৃত ওই যুবক নিজেকে ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বলে দাবি করেন।

মাদারীপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সৈয়দ ফারুক আহম্মেদ বলেন, ঈগল পরিবহনে থাকা একজন এনজিও কর্মী আমাদের কাছে ফোনে জানায় তারা এক প্রশ্ন ফাঁসকারীকে তাদের বাসের মধ্যে আটক করেছে। পরে আমরা মস্তফাপুর বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে তাকে আটক করি। এসময়  তার কাছে থাকা মুঠোফোন ও ল্যাপটপ তল্লাশি করে ইংরেজি ২য় পত্র প্রশ্নের সাথে হুবহু মিল খুঁজে পাই। সেই সাথে প্রশ্নের উত্তরপত্রও পাওয়া যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ