ঢাকা, বৃহস্পতিবার 8 February 2018, ২৬ মাঘ ১৪২৪, ২১ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজ জিততে চাই -মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ

 

স্পোর্টস রিপোর্টার : চট্টগ্রামে শ্রীলংকার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট ড্র করেছে বাংলাদেশ। এবার ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের সামনে জয়ের হাতছানি। এটা করতে পারলেই টেস্ট সিরিজ জিততে পারবে টাইগাররা। শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্ট জিততে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। কারণ ঢাকা টেস্ট জিতে তিন বছর পর ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজ জয়ের হাতছানি বাংলাদেশের সামনে। ২০১৪ সালের জিম্বাবুয়েকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে টেস্ট সিরিজ জিতে নেয় বাংলাদেশ। এরপর ঘরের মাঠে টেস্টে ধারাবাহিকভাবে ভালো ফল পাচ্ছে বাংলাদেশ। টেস্ট জিতলেও জেতা হচ্ছে না সিরিজ। তবে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার মতো দুই শক্তিশালী দলকে টেস্ট ম্যাচে হারানোও কম কথা নয়। এবার শ্রীলংকার বিপক্ষে দেশের মাটিতে টেস্ট সিরিজ জয়ের লক্ষ্য রিয়াদে। ঢাকা টেস্ট শুরুর আগের দিন গতকাল মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘অবশ্যই আমাদের টেস্ট সিরিজ জেতার সুযোগ আছে। প্রথম টেস্টে অনেক কঠিন পরিস্থিতির সামনে দাঁড়িয়ে আমরা ড্র করেছি। ২০১৪ সালের পর টেস্ট সিরিজ জিততে পারিনি, তবে এবার আমাদের সামনে ভালো সুযোগ। ঘরের মাঠে আমরা ভালো দল। সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে আমাদের হারানো কঠিন।’ ঘরের মাঠে বাংলাদেশের ওপরে চাপ থাকবেই এমন তত্ত্ব মেনে নিতে নারাজ অধিনায়ক রিয়াদ। তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যে কোনও ম্যাচেই চাপ থাকে। দলের সবার নিজের ওপরে আস্থা আছে। আমরা প্রতিপক্ষের চ্যালেঞ্জ নিতে উদগ্রীব। মাঠে ইতিবাচক থেকে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে চাই। খেলোয়াড়রা ইতিবাচক চিন্তা নিয়ে মাঠে নামলে তার সুফল পাওয়া যাবেই। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যে ধরনের ম্যাচই খেলবেন, চাপ তো থাকবে। আমার কাছে মনে হয় স্কিলগুলোর প্রতি যদি বিশ্বাস থাকে এবং চ্যালেঞ্জটা নিতে যদি আপনি উদগ্রীব থাকেন এটা ইতিবাচকভাবে কাজে দিবে। আমি এটাই বিশ্বাস করি। আমার মনে হয় আমাদের সব খেলোয়াড়রা এভাবেই দেখছে।’ চট্টগ্রাম টেস্টে বাংলাদেশকে সবচেয়ে সমস্যায় ফেলেছে ফিল্ডিং। অন্তত সাত-আটটি সুযোগ নষ্ট করেছেন স্বাগতিক ফিল্ডাররা, আর সেগুলো কাজে লাগিয়ে শ্রীলংকা গড়েছে রানের পাহাড়। এ ব্যাপারে তিনি বলেন,‘চট্টগ্রাম টেস্টে শুরুতে আমরা কয়েকটা সুযোগ তৈরি করেছিলাম। দুই-একটা রান আউটের সুযোগও ছিল। সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারলে ওদের চাপে ফেলা যেতো। এখানে ভিন্ন উইকেট থাকবে। উইকেট থেকে স্পিনাররা বেশি সাহায্য পেলে আমরা একটু উত্তেজিত হয়ে যাই। আবেগ নিয়ন্ত্রণ করে ঠিক জায়গায় বল করতে হবে। সব কিছু ঠিকঠাক হলে আমরা ভালো করতে পারবো।’ প্রথম  টেস্টে ৮৩ আর ২৮ রানের দুটো অপরাজিত ইনিংস এসেছে তার ব্যাট  থেকে। বাংলাদেশ যে হারের শঙ্কা দূর করে শেষ পর্যন্ত ড্র করেছে, সেজন্য তার অধিনায়কোচিত ব্যাটিংয়ের বড় অবদান। এটা নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সব সময় চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করি, দায়িত্ব আমাকে বাড়তি কিছু করার প্রেরণা  দেয়। হয়তো পরোক্ষভাবে অধিনায়কত্ব আমাকে সাহায্য করছে।’ তিন সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের স্কোরকে টপকে ৭১৩ রানের পাহাড় গড়ে শ্রীলংকা। এরপরও দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় ম্যাচটি ড্র করতে পারে বাংলাদেশ। দলের এমন পারফরমেন্স খুশী করেছে বাংলাদেশ দলপতি মাহমুদুল্লাহকে। তবে র‌্যাংকিং নিয়ে মোটেও চিন্তিত নয় মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তিনি বলেন, ‘অবশ্যই র‌্যাংকিং-এ উপরের উঠার দারুন সুযোগ। আর একটা ম্যাচ জিততে পারলে বাংলাদেশের জন্যই জেতা হলো। র‌্যাংকিং নিয়ে অতটা ভাবছি না। জিতলে অবশ্যই এটা ফেভার করবে। চট্টগ্রামের মতো একই ভাবে  খেলবো, ইতিবাচক মানসিকতা  থাকবে। চট্টগ্রামেও ব্যাটসম্যানরা বেশ ইতিবাচক ছিল, আক্রমনাত্মক ছিল। একই মনোভাব থাকবে।’ শ্রীলংকার বিপক্ষে সবশেষ খেলা টেস্ট সিরিজও ড্র করেছিল বাংলাদেশ। গত বছর শ্রীলংকা সফরে প্রথমে গলে টেস্ট ম্যাচে হারে বাংলাদেশ। পরবর্তীতে নিজেদের শততম টেস্ট ম্যাচে কলম্বো ঐতিহাসিক জয় তুলে নেয় সাকিব-তামিমরা। এবার সাকিব নেই। তামিম-মুশফিকরা রিয়াদের নেতৃত্বে দলকে জয় উপহার দিতে পারেন কিনা সেটাই দেখার। শ্রীলংকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে ইতিবাচক ফল অর্জন করতে পারলে তিনটি অর্জন হবে বাংলাদেশ। ম্যাচ ও সিরিজ জয়ের পাশাপাশি র‌্যাংকিং-এও উন্নতি হবে টাইগারদের। সিরিজটি জিততে বা ড্র করতে পারলে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে প্রথমবারের মতো আটে উঠবে টাইগাররা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ