ঢাকা, শুক্রবার 9 February 2018, ২৭ মাঘ ১৪২৪, ২২ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে  দেয়া রায়ে  দেশে রাজনৈতিক সংকট আরো ঘণীভূত হবে  --- মির্জা ফখরুল

 

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায় ‘ দেশে রাজনৈতিক সংকট আরো ঘণীভূত’ হবে বলে মন্তব্য করেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এই মন্তব্য করেন। তিনি বলেন,  দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে এই গণবিচ্ছিন্ন অনৈতিক সরকার রাজনীতি ও আসন্ন নির্বাচন থেকে দূরে রাখবার জন্যে ভুয়া ও মিথ্যা মামলা ও নতি তৈরি করে তাকে সাজা দিয়েছে। যা এদেশের জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে। আমরা অত্যন্ত ঘৃণার সঙ্গে এই রায়কে প্রত্যাখ্যান করছি। আমরা মনে করি, এই মামলা রায় দেশের যে বর্তমান রাজনৈতিক সংকট আরো ঘণীভূত করবে এবং দেশে মানুয়ের এই বিচার ব্যবস্থার ওপর আস্থা চলে যাবে। অবিলম্বে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিও জানান মির্জা ফখরুল। খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তা এবং ৯ বছরের স্বৈরাচার আন্দোলনে তার ভুমিকা তুলে ধরেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, এই রায়কে কেন্দ্র করে সরকার গত তিনদিন ধরে এক যুদ্ধাবস্থা তৈরি করেছে। সরকারই গোটা পরিবেশকে অস্থিতিশীল করেছে। রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে তারা রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস করেছে।

খালেদা জিয়া যখন আদালতে যান সেসময়ের ঘটনা তুলে ধরে তিনি বলেন, দেশনেত্রী আইনের প্রতি এতোটাই শ্রদ্ধাশীল যে, তিনি সব সময় আদালতে হাজিরা দিয়েছেন। আজকেও যখন তিনি এই রায়ের জন্য আদালতে যাচ্ছিলেন। তখন স্বতঃস্ফূর্ত যে সমর্থক-নেতা-কর্মীরা তার গাড়ির সঙ্গে এসেছে তাদের ওপরে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা চড়াও হয়েছে। সারা শহরে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা মোড়ে মোড়ে পাহারা বসিয়েছে। তারা পুলিশের সহযোগিতায় আক্রমনও করেছে দেশনেত্রীর বহরের ওপরে। খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, চট্টগ্রাম থেকে মহানগর সভাপতি সাহাদাত হোসেনসহ সারাদেশে সাড়ে তিন হাজারের অধিক নেতা-কর্মী গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবি জানান বিএনপি মহাসচিব।

সাংবাদিক সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান রুহুল আলম চৌধুরী, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালসহ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে আদালতে খালেদা জিয়ার রায় ঘোষণার পর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ঘোষিত রায় ‘প্রধানমন্ত্রীর প্রতিহিংসাপূর্ণ রায়’। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া থাকলে দেশে গণতন্ত্র থাকবে তাই একদলীয় শাসন প্রতিষ্টা ও প্রতিপক্ষকে নিশ্চিন্ন করতেই এমন রায় দেয়া হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি এমন রায়ে ‘ঘৃণা, প্রতিবাদ ও নিন্দা’ জানান। 

এসময় তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত থাকা বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বেলাল আহমেদ, শিল্পী বেবী নাজনীন, আবুল হোসেন, অধ্যাপক আমিনুল ইসলামসহ অন্যরাও চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। এসময় সেখানে এক আবেগ ঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে রিজভী আহমেদ দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ চালিয়ে যাবার আহজবান জানান। 

আজ ও কাল বিক্ষোভ: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার কারাদ- হওয়ায় আজ শুক্রবার সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে বিএনপি। এ ছাড়া আগামীকাল শনিবার সারা দেশে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালনের ডাকও দিয়েছে দলটি। গতকাল বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য দেওয়া হয়। 

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা, ভুয়া ও জাল নথির মাধ্যমে সাজানো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় আজ আদালত কর্তৃক সাজা প্রদানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির উদ্যোগে আগামীকাল বাদ জুমা ঢাকা মহানগরসহ দেশব্যাপী সব জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা ও বিভিন্ন ইউনিট সমূহে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় সাজা দেওয়ার বিরুদ্ধে শনিবার ঢাকা মহানগরসহ দেশব্যাপী সব জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা ও বিভিন্ন ইউনিটগুলোয় প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ