ঢাকা, শুক্রবার 9 February 2018, ২৭ মাঘ ১৪২৪, ২২ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনায় পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

 

খুলনা অফিস : খুলনায় পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায় ঘোষণার আগে ও পরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিনা উসকানিতে নেতাকর্মীদের উপর পুলিশ লাঠিচার্জ করলে ধাওয়া পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়। এখান থেকে পুলিশ বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজাসহ সাতজন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে। 

খুলনার সোনাডাঙ্গা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে বাস ঢুকলে সে বাস আর বের হয়নি। গতকাল বৃহস্পতিবার খুলনা থেকে অধিকাংশ বাস চলাচল ছিল স্থবিরতা। পালন হয়েছে অঘোষিত হরতাল। গোটা শহর ফাঁকা। বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলার রায়কে কেন্দ্র করে অনেকটা আতঙ্কে ছিল পরিবহণ ব্যবসায়ীরা। অনেকে মনে করেন যে কোন সময় ঘটতে পারে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা। যার ফলে সতর্কতা বলয়ে ছিল পরিবহণ ব্যবসায়ীরা।

বৃহস্পতিবার ভোর থেকেই রাজপথ দখলে নেয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। নাশকতা এড়াতে সর্বোচ্চ সর্তক অবস্থানে ছিল পুলিশ ও র‌্যাব। তাদের পাশাপাশি স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে ছিল বিজিবি। তবে এত কিছুর পরও আতঙ্ক কাটছে না নগরবাসীর। সবখানেই বিরাজ করছে চাপা আতঙ্ক। একান্ত প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হননি কেউই। রাস্তায় ব্যক্তিগত যানবাহন একেবারেই শূন্যের কোঠায়। রিকশা, অটোরিকশাসহ গণপরিবহনের উপস্থিতিও রয়েছে সীমিত।

রেলওয়ে স্টেশন ও বাস টার্মিনালে অন্যান্য দিনের মতো ছিল না ব্যাস্ততা। তবে দূরপাল্লা ও আন্তঃজেলা রুটের সকল যানবাহন চলাচল রয়েছে অনেকটাই স্বাভাবিক। সময়মতো ছেড়ে গেছে বিভিন্ন গন্তব্যের ট্রেন। বেলা বাড়লেও সেইভাবে খোলেনি নগরীর বিপণী বিতানগুলো। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খোলা থাকলেও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি রয়েছে সীমিত। পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা দিতে যেতে হয়েছে সাবধানে। 

কেএমপির মুখপাত্র মনিরা সুলতানা বলেন, নগরীর নিরাপত্তায় তারা পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিয়েছেন। জনগুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে সকল রাজনৈতিক দলের কার্যালয়ে। তল্লাশি ও টহল বাড়ানো হয়েছে। চলছে গোয়েন্দা তৎপরতা। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে বিজিবি দায়িত্বপালন করছে।

অপরদিকে খুলনা সদর থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে রায়ের আগে মহানগরীর কেডি ঘোষ রোডের মহানগর বিএনপি আফিসের সামনে থেকে গ্রেফতার করা হয় বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও খুলনা মহানগরী সিনিয়র সহ-সভাপতি সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, জাসাস’র কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান দিপু, নগর বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক শামসুজ্জামান চঞ্চল, রায়ের পরে বিক্ষোভ করাকালে মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, দৌলতপুর থানা যুবদল নেতা মো. সালাউদ্দিন ও রানাকে গ্রেফতার করে। এর মধ্যে মোর্ত্তজা ও দিপুকে গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে যায় এবং তাদেরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। 

মহানগর বিএনপির তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এহতেশামুল হক শাওন বলেন, সাহারুজ্জামান মোর্তুজাসহ গ্রেফতারকৃতরা দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করতে গেলে পুলিশ বাঁধা দেয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের বাক-বিতন্ডার হয়। পরে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে নিয়ে যায়।

খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, আটককৃতদের সদর থানায় রাখা হয়েছে।

এদিকে বুধবার দিবাগত রাতে নগরীর বিভিন্ন স্থানে তল্লাশি অভিযান চালিয়ে পুলিশ বিভিন্ন স্থান থেকে বিএনপির ৯ নেতাকর্মীসহ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রয়েছে নগর বিএনপির সদস্য আলমগীর হোসেন বাদশা, সদর থানা শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফি, সোনাডাঙ্গা থানার ১৬নং ওয়ার্ড যুবদল নেতা আল আমিন, ১৯নং ওয়ার্ড যুবদল নেতা বাদল, শ্রমিকদল নেতা শাহিন, খালিশপুরের ছাত্রদল নেতা আশিক নকিবুল, আহসান হাবিব, যুবদল নেতা নাজমুল হোসেন বাবু এবং খানজাহান আলী থানা বিএনপি নেতা শেখ মিঠু কামাল।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র ও নগর স্পেশাল ব্রাঞ্চের অতিরিক্ত উপ-সহকারী কমিশনার মনিরা সুলতানা জানান, মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার সকাল পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে অনেকের বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগ রয়েছে।

অপরদিকে নগরীর রয়েল মোড় এলাকার ঈগল পরিবহণের সেল্সম্যান মো. এনামুল ইসলাম জনি বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরের আগে কোন পরিবহন চলবে না। তবে পরিস্থিতি বুঝে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফাল্গুনি পরিবহনের রয়েল মোড় কাউন্টারের সেল্সম্যান আলমগীর হোসেন বলেন, বৃহস্পতিবারে কোনও পরিবহণ না চলাচল করেনি। বুধবারও কোন পরিবহণ চলাচল করেনি। মালিক সমিতির সিদ্ধান্তের কারণে পরিবহণ চলাচল করছে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ