ঢাকা, মঙ্গলবার 13 February 2018, ১ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৬ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পথিক কেন পথ হারাচ্ছে?

হবিগঞ্জ শহরের নিউফিল্ডে আয়োজিত বাণিজ্য মেলায় কলেজছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করার পর ওই ছাত্রীর পা ধরে ক্ষমা চাইতে হয়েছে যুবক শাহ আলমকে। ১২ ফেব্রুয়ারি পত্রিকান্তরে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, গত শনিবার রাত ১১টায় শহরের নিউ ফিল্ডের বাণিজ্য মেলায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঘুরতে আসেন হবিগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের এক ছাত্রী। কেনাকাটা করে বাসায় ফেরার সময় মেলা প্রাঙ্গণেই তাকে উত্ত্যক্ত করে শাহ আলম। এ সময় ছাত্রীর পরিবারের লোকজন যুবককে পাকড়াও করেন। খবর পেয়ে মেলা ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যসহ কর্তব্যরত পুলিশরা ছুটে আসেন। তখন মেলা ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যরা শাহ আলমকে ছাত্রীর পা ধরে ক্ষমা চাইতে বলেন। ওই যুবক তখন কলেজছাত্রীর পা ধরে ক্ষমা প্রার্থনা করে।
একজন যুবক একজন ছাত্রীর পা ধরে ক্ষমা চাইতে যাবে কেন? এতে কি যৌবনদীপ্ত মানুষটির অপমান হয় না? যৌবন তো জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়। এই সময়টায় তো মানুষ মানুষের জন্য, সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য ভালো কিছু করতে পারে। কিন্তু আলোচ্য ক্ষেত্রে আমরা লক্ষ্য করলাম ভিন্ন চিত্র। এখানে যৌবনের অপচয় হতে দেখলাম। যৌবন যেন এখানে পথ হারিয়েছে। শুধু এক শাহ আলম নয়, যৌবনে ভুল পথে হাঁটার মতো পথিকের সংখ্যা দিন দিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এসব যুবকরা তো ভিন গ্রহ থেকে এসে সমাজে ভুল কাজ করছে না। তারা তো আমাদের সমাজেই বসবাস করে থাকে এবং তাদের সাথে সম্পর্ক আছে পরিবারের, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের, রাজনৈতিক সংগঠনেরও। এইসব সম্পর্ক কি ওদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে সমর্থ হচ্ছে না ? তা হলে তো ওইসব প্রতিষ্ঠান সম্পর্কেই প্রশ্ন জাগে।
সমাজের সব যুবক নষ্ট হয়ে যায়নি। যারা ভালো কিছু করতে চায়, বিবেকের ডাকে সাড়া দিতে চায়, তাদের তো উৎসাহিত করা উচিত। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই তা হয় না। যেমন ১২ ফেব্রুয়ারি তারিখে পত্রিকান্তরে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনের শিরোনাম ছিল ‘ধর্ষিতার উদ্ধারকারীদেরই আটক করলো পুলিশ’। এটি তো দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালনের উদাহরণ হতে পারে না। আমরা এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছি। আশুলিয়ায় গণধর্ষণের শিকার মেয়েটি যেন সুবিচার পায় এবং উদ্ধারকারীরাও যেন হেনস্তার হাত থেকে রক্ষা পায়। কারণ কোন সমাজে ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা এবং অন্যায় প্রতিরোধের অনুকূল পরিবেশ নির্মিত না হলে সেই সমাজ আর মানুষের বসবাসযোগ্য থাকে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ