ঢাকা, মঙ্গলবার 13 February 2018, ১ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৬ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

উত্তেজনার মধ্যেই এরদোগানের সহযোগীর সঙ্গে মার্কিন উপদেষ্টার বৈঠক

তুরস্ক ও মার্কিন শীর্ষ দুই কর্মকর্তা                                  -রয়টার্স

১২ ফেব্রুয়ারি, রয়টার্স : চলমান টানাপড়েনের মধ্যেই তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ানের মুখপাত্রের সঙ্গে বৈঠক করেছেন মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেনারেল এইচ.আর.ম্যাকমাস্টার। সিরিয়ায় মার্কিন সমর্থিত কুর্দি গেরিলা গোষ্ঠী ওয়াইপিজি’র বিরুদ্ধে তুরস্কের সামরিক অভিযান নিয়ে যখন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তুর্কি সরকারের মারাত্মক টানাপড়েন চলছে তখনই এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো। হোয়াইট হাউসের এক বিবৃতিকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা।

গত ২০ জানুয়ারি থেকে তুরস্ক সিরিয়ার আফরিন এলাকায় কুর্দি গেরিলা গোষ্ঠী ওয়াইপিজি’র বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালিয়ে আসছে। কিন্তু তা মোটেও ভালোভাবে নিচ্ছে না যুক্তরাষ্ট্র। কুর্দিরা আইএসবিরোধীযুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অভিযানে সহযোগিতা করেছিল এবং যুক্তরাষ্ট্র তাদের অস্ত্র দিয়ে সহযোগিতা করে। তুরস্ক ও যুক্তরাষ্ট্র দু দেশই ন্যাটোর সদস্য হলেও তুর্কি সরকার ওয়াইপিজি-কে নিজেদের শত্রু বলে বিবেচনা করে। সম্প্রতি সিরিয়ার তুর্কি অভিযান বন্ধের জন্য এরদোয়ানকে ফোন করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে তুর্কি প্রেসিডেন্ট জানিয়ে দিয়েছেন, কুর্দিদের নিষ্ক্রিয় করতে তুরস্কের সেনাবাহিনী প্রয়োজনে ইরাকে গিয়েও যুদ্ধ করবে।

ওয়াশিংটন ও ইস্তানবুলের মধ্যে এ নিয়ে তুমুল উত্তেজনা চলার মধ্যেই রবিবার তুরস্ক সফর করেন মার্কিন নিরাপত্তা উপদেষ্টা। তুরস্ক সফরে পৌঁছে তিনি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

পরে এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউস জানায়, যুক্তরাষ্ট্র ও তুরস্কের মধ্যে দীর্ঘমেয়াদী কৌশলগত অংশীদারত্ব প্রশ্নে দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। এছাড়া, ’দু’দেশের মধ্যকার সামগ্রিক সম্পর্ক, অভিন্ন কৌশলগত চ্যালেঞ্জ ও আঞ্চলিক ঘটনাবলী’ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট কার্যালয়র এক জানায়, দুই পক্ষের সম্পর্ককে প্রভাবিত করছে এমন বিষয়গুলো শনাক্ত করার চেষ্টা করা হয়েছে। পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানা যায়নি। 

শিগগিরই মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের তুরস্ক সফরের কথা রয়েছে। তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু বলেন, তুরস্ক সফরের সময় দুই দেশের মধ্যে নষ্ট হ্ওয়া আস্থার জায়গা ঠিক করার জন্য টিলারসনকে বলবেন তিনি। তবে টিলারসন কবে তুরস্ক সফর করবেন সে ব্যাপারে কিছু জানা যায়নি।  '

পরিবারের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের সত্যতা পাওয়া যায়নি

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগানের পরিবারের বিরুদ্ধে অফশোর কোম্পানিতে অর্থ পাচারের অভিযোগের কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। ফলে বিষয়টি নিয়ে আর অগ্রসর না হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আঙ্কারার প্রধান প্রসিকিউটর কার্যালয়। গত রোববার রাষ্ট্র পরিচালিত বার্তা সংস্থার প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

দেশটির প্রধান বিরোধী রিপাবলিকান পিপলস পার্টির (সিএইচপি) তরফ থেকে অভিযোগ করা হয়েছিল যে, এরদোগানের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়রা বিদেশি অফশোর কোম্পানিতে হাজার হাজার ডলার পাচার করেছেন। অভিযুক্তদের মধ্যে ছিল এরদোগানের ভাই, তার ছেলে এবং তার নির্বাহী সহকারী।

সিএইচপি’র প্রধান কেমাল কিলিকডারগ্লু'র অভিযোগের ভিত্তিতে তার কাছ থেকে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট চাওয়া হয়। তার দেয়া ব্যাংকিং ডকুমেন্টসমূহের সত্যতা যাচাই করে আঙ্কারার প্রধান প্রসিকিউটর কার্যালয়। প্রয়োজনীয় যাচাই শেষে প্রসিকিউটর কার্যালয় থেকে বলা হয়েছে যে, প্রাসঙ্গিক লেনদেন মানি লন্ডারিং অপরাধের অংশ নয়।

কেমাল কিলিকডারগ্লু’র অভিযোগে বলা হয়েছিল যে, অভিযুক্ত পাঁচজন ট্যাক্স হ্যাভেন ‘আইল অফ ম্যান’ এর মাধ্যমে একটি অফশোর কোম্পানির একাউন্টে ১৫ মিলিয়ন ডলার লেনদেন করেছেন।

এক বিবৃতিতে প্রসিকিউটর কার্যালয় থেকে বলা হয়, ‘দুর্নীতির মাধ্যমে ‘বেলওয়ে’ কোম্পানির কাছে অর্থ স্থানান্তরের পক্ষে জোড়ালো কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।’

মানি লন্ডারিং এর অভিযোগের কোনো প্রমাণ না থাকায় এই বিষয়ে আইনি প্রক্রিয়া অপ্রয়োজনীয় বলে বিবৃতিতে বলা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ