ঢাকা, শনিবার 17 February 2018, ৫ ফাল্গুন ১৪২৪, ৩০ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আদা-রসুন ও সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধি

স্টাফ রিপোর্টার: সরবরাহ বাড়ায় কমে এসেছে পেঁয়াজের দাম। কিন্তু গত দু’সপ্তাহ ধরে অব্যাহতভাবে বেড়েই যাচ্ছে রসুনের দাম। সেই সাথে আদা ও সয়াবিন তেলের দামও কিছুটা বেড়েছে। বৃদ্ধি পাওয়া চালের দাম কমেনি। উল্টো সরু চালের দাম বেড়েছে। সবজির মধ্যে শশা, লেবু ও করলার দাম বেড়েছে।
গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কাঁচা বাজারের ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, পেয়াঁজের দাম কিছুটা কমেছে। তবে দাম বেড়েছে আদা-রসুন ও সয়াবিন তেলের। পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা দরে। দেশী ও আমদানি করা পেঁয়াজ একই দামে বিক্রি হচ্ছে। উল্টো আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের দাম একটু বেশি। রসুন বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৯০-১২০ টাকা। আদার কেজি ৮০-১২০ টাকা। মশুরের ডাল কেজিপ্রতি ১০০ থেকে ১১০ টাকা দরে। সয়াবিন তেলের দাম কেজি প্রতি ২-৩ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১০৯ টাকা লিটার। চালের বাজারে সরু চালের দাম বেড়ে ৪৮ টাকা থেকে ৬৮ টাকা কেজি হচ্ছে। আর মোটা ৪৩ থেকে ৪৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
এদিকে সবজি বাজার ঘুরে দেখা যায়, সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা বেড়েছে সবজির দাম। তার মধ্যে শশার দাম বেড়ে ৮০-১০০ টাকায়কেজি বিক্রি হচ্ছে। লেবু ও করলার দাম বেড়েছে। করলার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০-১০০ টাকা। ফুলকপি ৩০ টাকা, খিরা ৮০ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, শিম ৪০ টাকা, বেগুন (কালো) ৫০ টাকা, বেগুন (সাদা) ৪০ টাকা, ঝিঙ্গা ৮০ টাকা, করলা ১০০ থেকে ১২০ টাকা, মটরশুটি ৬০ টাকা, টমেটো ৩০ টাকা এবং লাউ ৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে গত সপ্তাহের মতো আলু বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা দরে।
এদিকে আকার ভেদে প্রতি কেজি রুই মাছ ২০০-২৫০ টাকা, কাতলা ২৫০-৩০০ টাকা, চিংড়ি ৫০০ টাকা, চাষের কই ২০০ টাকা, পাঙ্গাস ১৫০ টাকা, দেশী ছোট শিং মাছ ৮০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আকারভেদে প্রতিটি ইলিশ বিক্রি ৪০০ থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত।
গোশতের বাজারে তেমন পার্থক্য দেখা যায়নি। গরুর গোশতের দাম ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকা, খাসির গোশত ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি ১৪৫ টাকা এবং পাকিস্তানি লাল মুরগি ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ