ঢাকা, শনিবার 17 February 2018, ৫ ফাল্গুন ১৪২৪, ৩০ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দারুল উলুম দেওবন্দে উত্তেজনা

বিজেপি শাসিত ভারতের উত্তর প্রদেশের দারুল উলুম দেওবন্দের বাংলাদেশি ছাত্রদের এক মাসের মধ্যে ভারত ত্যাগের আল্টিমেটাম দিয়ে পোস্টারিং হয়েছে। এর ফলে সেখানে সৃষ্ট উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশি ছাত্ররা। যদি তাদের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে ওই ছাত্ররা ভারত ত্যাগ না করেন তাহলে এর মারাত্মক পরিণাম ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারিও দেয়া হয়েছে। এ খবর দিয়েছে পার্সটুডে। উল্লেখ্য, দারুল উলুম দেওবন্দ এখন শুধু নিছক একটি মাদরাসা নয়। পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়। সেখানে সারা ভারতের হাজার হাজার শিক্ষার্থী ছাড়াও দেশ-বিদেশের অসংখ্য শিক্ষার্থী পড়াশোনা করে থাকেন। দেওবন্দ থেকে এসব শিক্ষার্থী দীন ইসলামের বিভিন্ন বিষয়ে ফারিগ হয়ে নিজদেশে ফিরে এবং নানা দেশে ছড়িয়ে পড়ে দীনের বিরাট খিদমত করেন। ফলে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ সত্যদীনের সোনালি আভায় উদ্ভাসিত হয়। চির অন্ধকারের অমানিশা থেকে অগণিত মানুষ খুঁজে পান মুক্তির দিশা। দেওবন্দ দারুল উলুম এমনই একটি আলোকিত শিক্ষায়তন। অন্যান্য দেশের মতো তাই বাংলাদেশ থেকেও প্রতিবছর বহু শিক্ষার্থী সেখানে গিয়ে ভর্তি হন এবং পড়াশোনা শেষ করে দেশে ফিরে দীনের খিদমত করেন।
ভারতের উত্তরপ্রদেশের সাহারানপুর জেলা পুলিশ পোস্টার লাগানো ব্যক্তিদের খোঁজে তদন্ত শুরু করছে। সম্প্রতি গণমাধ্যমে প্রকাশ, ওই পোস্টারে দেওবন্দ ও অন্য মাদ্রাসায় পড়া বাংলাদেশি ছাত্রদের নাম এবং সংখ্যাও উল্লেখ করা হয়েছে। শহরের বিভিন্ন দেওয়াল ও মসজিদের বাইরে লাগানো এসব পোস্টারে অবশ্য কারুর নাম বা সংগঠনের উল্লেখ করা হয়নি। সাহারানপুর পুলিশের এসএসপি বাবলু কুমার বলেন, ওই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। যারা এ কাজ করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিতর্কিত ওই পোস্টারে বলা হয়েছে, দেওবন্দে অবৈধভাবে থাকা বাংলাদেশিদের ব্যাপারে তারা জানে। তারা এটাও জানে যে, বিভিন্ন মাদ্রাসায় পাঠরত ছাত্ররা এখানে কী নামে আছেন। যদি এ সকল ব্যক্তি এক মাসের মধ্যে দেশ না ছাড়েন তাহলে এর ফল হবে ভয়ানক। দারুল উলুম দেওবন্দের ভাইস চ্যান্সেলর এ সময় দশদিনের জন্য বাংলাদেশ সফরে আছেন। সেজন্য এ সময় ওই বিতর্কিত পোস্টার লাগানোর বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। ওই ঘটনায় বাংলাদেশি ছাত্রদের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি হলেও  বৈধ বাংলাদেশি ছাত্রদের ভয় পাবার কিছু নেই বলে পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশ এ ব্যাপারে দায়িত্বশীলদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। গোয়েন্দা কর্মকর্তারাও আলাদাভাবে বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে দারুল উলুমের এক সিনিয়র মাওলানা গণমাধ্যমকে বলেন, এ ধরণের কাজের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা করা হচ্ছে। ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির ভাইস-চ্যান্সেলর বর্তমানে বাংলাদেশ সফরে থাকায় উদ্দেশ্যমূলকভাবে ওই পোস্টার লাগানো হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।
ভারতের উত্তর প্রদেশের সাহারানপুর জেলায় অবস্থিত দারুল উলুম দেওবন্দ বিশ্বখ্যাত ইসলামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এখানে ভারতসহ বিভিন্ন দেশের হাজার হাজার ছাত্র পড়াশোনা করেন। যুগ যুগ ধরে বাংলাদেশের অসংখ্য শিক্ষার্থীও সেখানে পড়াশোনার জন্য যান। পড়াশোনা শেষে নিজদেশসহ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েন। আর দারুল উলুম দেওবন্দ কেবল মুসলিমদের প্রতিষ্ঠান নয়। এর প্রতিষ্ঠার পেছনে মুসলিমদের সঙ্গে সঙ্গে অনেক বন্ধুপ্রতিম অমুসলিমেরও অবদান রয়েছে। কাজেই দারুল উলুম সকল ভারতীয়ের অহঙ্কার এবং গৌরব। এর স্থিতিশীলতা রক্ষাও সকল ভারতীয়ের দায়িত্ব।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ