ঢাকা, শনিবার 17 February 2018, ৫ ফাল্গুন ১৪২৪, ৩০ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চুয়াডাঙ্গায় কয়েক হাজার মানুষের স্বপ্ন আটকে গেছে বৈদ্যুতিক খুঁটিতে ॥ প্রতিকারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছে গ্রামবাসী

এফ.এ আলমগীর, চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গার একটি গ্রামে কয়েক হাজার মানুষের স্বপ্ন আটকে গেছে বৈদ্যতিক একটি খুঁটিতে। চলমান রাস্তা পাকা করনের কাজ হয়ে গেছে বন্ধ। দ্রুত প্রতিকারের আশায় কর্তৃপক্ষের দ্বারে দিনের পর দিন ঘুরছে গ্রামবাসী। সরকারি উন্নয়ন প্রকল্প বন্ধ হয়ে থাকলেও মাথা ব্যাথা নেই সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের। ফলে উন্নয়ন প্রকল্প বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। 

এলাকা সূত্রে জানাগেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর ইউনিয়নের ডিহি কৃষ্ণপুর গ্রামের ডাক্তার পাড়ার কয়েক হাজার মানুষের বহু দিনের স্বপ্ন ডাক্তার পাড়ার চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি পাকা করন। দীর্ঘ তদবিরের পর অবশেষে গ্রামবাসীর স্বপ্ন পূরণে রাস্তা পাকা করণের কাজ কয়েক মাস আগে থেকে শুরু হয়। চলমান এই রাস্তার কাজে বাধা হয়ে দাড়িয়েছে একটি বৈদ্যুতিক খুটি। বন্ধ হয়ে গেছে রাস্তা পাকা করণের কাজ। গ্রামবাসীর অভিযোগ ১০ ফুট চওড়া রাস্তার ঠিক মাঝামাঝি স্থানে একটি বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকায় ঠিকাদার কাজ করতে পারছেনা, ফলে কাজ আপাততঃ বন্ধ রয়েছে। এ বিষয়ে বেগমপুর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য জিল্লুর রহমান জুলমত বলেন গ্রামবাসীর সহযোগিতায় ডাক্তার পাড়ার ৮২ জনের গণস্বাক্ষর নিয়ে বেগমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সুপারিশসহ জরুরি ভিত্তিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি স্থানান্তর করার আবেদন করি মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দর্শনা জোনাল অফিসে। জনস্বার্থে প্রয়োজন হলেও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির নির্দেশ মোতাবেক অমানবিকভাবে জনগণের নিকট হতে নিয়ে পোল সরানো বাবদ গত মাসের ১৪ তারিখে দর্শনা অফিসে ১ হাজার ৫শত টাকা জমা দেয়া হয়েছে। তাছাড়া দর্শনা অফিস থেকে প্রধান অফিস মেহেরপুরে পাঠিয়ে জেনারেল ম্যানেজারের নিকটে উক্ত আবেদনের একটি কপি দিয়ে অপর কপিতে জিএম এর স্বাক্ষর করে আনা হয়েছে। কিন্তু প্রায় দেড় মাস অতিক্রম হলেও এর কোন সমাধান হয়নি। তাছাড়া যখনই পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে যাওয়া হয় তখনই কর্তৃপক্ষ বলে আপনাদের কাজটি দ্রুত হয়ে যাবে। এভাবে দিনের পর দিন কর্র্তৃপক্ষের দ্বারে ঘুরছে গ্রামবাসী। এ বিষয়ে মেহেরপুর পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির দর্শনা শাখার জোনাল ইনচার্জ এজিএম (কম) অমিত দাস জানায়, এ ধরনের জনস্বার্থের কাজ বেঁধে থাকার কথা না। আবেদন সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন-এ ধরনের আবেদন সম্পর্কে আমার সঠিক জানা নেই। এদিকে রাস্তার কাজ প্রায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম। ঠিকাদার টিটু মিয়া গ্রামবাসীদের জানিয়েছে- আপনারা পল্লি বিদ্যুতের খুঁটিটি দ্রুত স্থানান্তর করেন আমি যতদ্রুত পারি রাস্তা পাকা করণের কাজ সমাপ্ত করবো। জনস্বার্থের বিষয়টি বিবেচনা করে এলাকাবাসী দ্রুত রাস্তার উপর থেকে বৈদ্যুতিক খুঁটিটি স্থানান্তর করার জন্য মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দৃষ্টি কামনা করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ