ঢাকা, শনিবার 17 February 2018, ৫ ফাল্গুন ১৪২৪, ৩০ জমদিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চুয়াডাঙ্গায় সারের মূল্য বৃদ্ধি

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা: চুয়াডাঙ্গার  দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ও কুড়ুলগাছি বাজারে চলতি বোরো মওসুমকে সামনে রেখে ইউরিয়া, ডিওপি,টিএসপি ও এমওপি সারের  সরকারি মূল্যেকে তোয়াক্কা না করে বেশি দামে  বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
কার্পাসডাঙ্গা ও কুড়ুলগাছি বাজারের খুচরা বেশ কিছু ব্যবসায়ী ও ডিলাররা এ কাজে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকার চাষীদের অভিযোগ সরকার  প্রতি বস্তা ইউরিয়া  ৮শত টাকা,ডিওপি ১হাজার ২৫০ টাকা, টিএসপি ১ হাজার টাকা ও এমওপি ৭শত ৫০টাকা নির্ধারন করে দিলেও এর কোন তোয়াক্কা না করে ব্যবসায়ীরা এলাকার চাষিদের কাছ থেকে নিচ্ছে গলাকাটা দাম। ব্যবসায়ীরা চাষিদের কাছ থেকে  ইউরিয়া বস্তা প্রতি ৮৪০ থেকে ৮৬০ টাকা, টিএসপি  ১ হাজার ২শত থেকে ২৫০টাকা, ডিএপি ১ হাজার ৩শত ৫০টাকা থেকে ১ হাজার ৪শত টাকা, এমওপি ৮শত টাকা থেকে ৮৫০ টাকা নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
উপজেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে- উপজেলায় সারের কোনো সংকট নেই। যারা বেশি দাম নিচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কৃষি বিভাগ জানান, জেলায় পর্যাপ্ত পরিমাণ সার আছে।
দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ও কুড়ুলগাছি বাজার পরিদর্শনকালে দেখা যায়, বাজারের বেশ কয়েকটি সারের দোকানে কয়েকজন কৃষককে  ইউরিয়া ও টিএসপি কিনছে। এদের মধ্যে কয়েকজন কৃষক জানান, প্রতি বস্তা ইউরিয়া ৮শত ৬০ টাকা,ডিএপি ১ হাজার ৩৫০ ও টিএসপি ১ হাজার ২৫০ টাকা দরে কিনেছে। দাম বেশি নেওয়ার কথা বললে ব্যবসায়ীরা জানান, রাস্তায় গাড়ি বন্ধ, সার আসছে না তাই পাওয়া যাচ্ছে না। বাজারে সার সঙ্কট; তাই বস্তা প্রতি কিছু বেশি নিচ্ছেন তারা এমনটায় বক্তব্য সার ব্যবসায়ীদের । উপজেলার বাজারগুলোতে বিভিন্ন খুচরা দোকানের চিত্র একই। তাই ভুক্তভোগী কৃষকদের দাবী, গুদামে পর্যাপ্ত পরিমান সার মজুদ করে রেখে  রাস্তায় গাড়ি-ঘোড়া বন্ধের অযুহাত দেখিয়ে সরকারি মূল্যের চেয়ে চাষিদের কাছে বেশি টাকা নিয়ে সার বিক্রি করছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য  দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের  সুদৃষ্টি কামনা করেছে এলাকার চাষী মহল। দামুড়হুদা উপজেলা কৃষি অফিসার শাহ মো: রফিকুজ্জামান জানান অভিযোগ শুনে কার্পাসডাঙ্গা বাজারের  ডিলার ও সার ব্যবসায়ীদের সরকারী নির্ধারিত মৃল্যের চেয়ে বেশী মুল্যে বিক্রি না করার জন্য কড়া হুশিয়ারী দিয়ে এসেছি। তথ্য প্রমান পেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ