ঢাকা, সোমবার 19 February 2018, ৭ ফাল্গুন ১৪২৪, ২ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সিলেট স্টেডিয়ামের অন্যরকম অভিষেক

স্পোর্টস ডেস্ক : ২০১৪ সালে আন্তর্জাতিক ভেন্যু হিসেবে স্বীকৃতি পায় সিলেট ভেন্যু। কিন্তু দীর্ঘ চার বছর পর এই ভেন্যুতে আজই প্রথম ম্যাচ লাল-সবুজের জার্সিতে বাংলাদেশ জাতীয় দলের খেলা উপভোগ করে সিলেটের ক্রিকেটপ্রেমীরা। বিসিবি সূত্র মতে, এই ভেন্যুতে আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের টি-২০ ম্যাচটিকে নিয়ে চলে অনেক প্রস্তুতি। ম্যাচে টসের জন্য বিশেষ কয়েনের ব্যবস্থা রয়েছে। তাছাড়া দুই দলের ক্রিকেটার ও অতিথিদের দেয়া হয় বিশেষ সম্মাননা স্মারক। মাঠে নামার সময় দুই দলের খেলোয়াড়দের ফুল দিয়ে  বরন করা হয়। পাহাড়ের গা ঘেঁষে গড়ে উঠা সিলেটের নয়নাভিরাম স্টেডিয়ামের চারপাশে নেয়া হয়েছে চরম নিরাপত্তাব্যবস্থা। পুরো শহর ঢেকে দেয়া হয়েছে কড়া নিরাপত্তার চাদরে। চা বাগান আর পাহাড়ের কোল ঘেঁষে অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিলেটে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট  স্টেডিয়ামটি নির্মাণ হয় ২০০৭ সালে। এর আগে এটি সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়াম নামে পরিচিত ছিল। ২০১৪ সালে টি-২০ বিশ্বকাপ ও আইসিসি প্রমিলা টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজনের লক্ষ্যে স্টেডিয়ামটি সম্প্রসারণ করা হয়।ইংল্যান্ড লায়নস, ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৯ ও নেপাল অনূর্ধ্ব-১৯ দল এই স্টেডিয়ামে খেলেছে। অবশ্য ১৮ হাজার ৫০০ দর্শক ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন এই স্টেডিয়াম এখনো টেস্ট খেলার উপযুক্ত হয়নি। একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ না হলেও এই স্টেডিয়ামে  ছটি টি-২০ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৪ সালের ১৭ মার্চ আয়ারল্যান্ড ও জিম্বাবুয়ে ম্যাচের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে এই স্টেডিয়ামের।গত বছর বিপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচসহ আটটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হলেও এর আগে বাংলাদেশ জাতীয় দল এ মাঠে কোনো ম্যাচ খেলেনি।গতকাল রোববার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-২০ এই মাঠে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ। জাতীয় দলের প্রথম অভিষিক্ত এই ম্যাচকে ঘিরে সিলেটের মানুষের মধ্যে  বেশ উদ্দীপনা। কানায় কানায় পূর্ণ হয় গেছে স্বল্প পরিসরের এই ক্রিকেট স্টেডিয়ামের গ্যালারি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পেলে অভিষিক্ত ক্রিকেট মাঠে জয়ের সাক্ষী হয়েও থাকবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ