ঢাকা, শুক্রবার 23 February 2018, ১১ ফাল্গুন ১৪২৪, ৬ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বাঁশখালীর ঐতিহ্যবাহী জলকদর খাল: সমস্যা ও সম্ভাবনা

বাঁশখালী : জলকদর খালের তলদেশে এখন এভাবে চাষাবাদ হচ্ছে

মোঃ আব্দুল জব্বার, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম): চট্টগ্রামের একটি প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী উপজেলা বাঁশখালী। এক পাশে পাহাড় অন্য পাশে বঙ্গোপসাগর,মাঝ খানে সরল রেখার মত দক্ষিণ থেকে উত্তরে চলে গেছে ঐতিহ্যবাহী জলকদর খাল। এই জলকদর খালই অতিতে বাঁশখালীর জন মানুষের জীবন জীবিকার অন্যতম মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হতো। বাঁশখালী থেকে ব্যক্তিগত ও ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে কাউকে চট্টগ্রাম যেতে হলে নিশি যাপন করে অপেক্ষা করতে হতো বাংলা বাজার থেকে শুরু করে চৌধুরী ঘাট পর্যন্ত বিভিন্ন ঘাটে ঘাটে। জোয়ার ভাটার সময় নির্ধারন করে গভীর রাত থেকে কাক ডাকা ভোর পর্যন্ত কোলাহল মুখর থাকতো জলকদর খালের বাংলা বাজার, সরল, বশির উল্লাহ মিয়াজীর হাট ও চৌধুরী ঘাট। শুধু কি জনগণের আসা যাওয়া! ধান, চাউল, লবণ, মাছ, শাক-সবজি ও মাতামহুরী থেকে দীর্ঘ চালায় চালায় বাঁশের বাণিজ্যে মুখর থাকতো জলকদরখাল। কিন্তু সেই ঐতিহ্যবাহী জলকদরখাল কালের বিবর্তনে হারিয়েছে তার রূপ, যৌবন। এখন জলকদরখালকে অনেকটা মৃত বল্লেই চলে। সময়ের বিবর্তনে যোগাযোগ ব্যবস্থা যতই উন্নত হউক না কেন নদী মাতৃক বাংলাদেশে বাণিজ্যের প্রসারের জন্য নদীর ঐতিহ্য অস্বীকার করার জো নেই। ১৫০ বর্গমাইলের এই উপজেলার ঐতিহ্যের বিশাল অংশজুড়ে রয়েছে জলকদর খাল। খানখানাবাদের উত্তর সীমান্তে ঈশ্বরবাবুর হাট পয়েন্ট ও রাতারকুল গ্রামের জেলেপাড়া ঘেঁষে জলকদর শংখ নদীতে মিলিত হয়েছে। মোহনাটি লোকালয়ে কুরিচোরা ঘাট নামে পরিচিত। এর পূর্বপাশে রাতাখোর্দ্দ গ্রাম ছিলো, যা শংখের ভাঙনে আজ বিলীন। তাছাড়াও মোহনার উত্তর পাশে শংখের ওপারে আনোয়ারার জুইদন্ডীর গ্রামের অবস্থান। উত্তরে কুঁরিচোরা ঘাট থেকে শুরু হয়ে প্রায় ৩০কি.মি দীর্ঘ এই জলকদর বাঁশখালীকে দু’ভাগে বিভক্ত করে গ-ামারা থেকে একটি ধারা খাটখালী হয়ে বঙ্গোপসাগরে মিলিত হয়েছে। খাটখালী ঘাটের দক্ষিণ পাশে ছনুয়া ও উত্তরপাশে গন্ডামারার অবস্থান এবং মোহনার বিপরীত পাশে রয়েছে কুতুবদিয়া দ্বীপ। অন্যধারাটি গ-ামারা থেকে পূর্বদক্ষিণে প্রবাহিত হয়ে পেকুয়ার বারবাকিয়ার দিকে চলমান। জলকদর খাল দ্বারা বিভক্ত বাঁশখালীর পশ্চিমে রয়েছে খানখানাবাদ, বাহারছড়া, গ-ামারা ও ছনুয়া ইউনিয়ন। যে এলাকাটি পশ্চিম বাঁশখালী নামে পরিচিত। এর আরো পশ্চিমে রয়েছে সমুদ্র। কোথাও ঘাসঘেরা অনাবাদি জমি, লবণ মাট আবার কোথাও সমুদ্রতীরের সারি সারি ঝাউ বাগানের বিশালতায় পরিবেষ্টিত বাঁশখালীর পশ্চিম পাশটা। যদিও সেই নয়ন জুড়ানো রাশি রাশি ঝাউ বাগানের শোঁ শোঁ শব্দ তোলা অপরূপ দৃশ্যের ঝাউগাছ গুলো বনদস্যুদের নির্মমতায় বিরান ভূমিতে পরিণত হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ