ঢাকা, শনিবার 24 February 2018, ১২ ফাল্গুন ১৪২৪, ৭ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সরকার অসন্তুষ্ট বিএনপি কেন ভাঙচুর করছে না ---------নজরুল

গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাগপার উদ্যোগে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, সরকার অসন্তুষ্ট এই কারণে যে, বিএনপি কেন ভাঙচুর করছে না। তিনি বলেন, বিএনপি যদি ঢিল মারতো সরকার তাহলে গাড়িতে আগুন দিত। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপি চেয়ারপার্সনের মুক্তির দাবিতে ২০ দলের শরিক জাগপা আয়োজিত এক মানববন্ধনে বক্তব্য রাখছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। বিএনপি ভাঙচুর করলে সরকার আরও বেশি নাশকতা করে বিএনপির ওপর দায় দিত বলেও দাবি করেন তিনি।

 প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদ-ের প্রতিবাদে বিএনপির এখন পর্যন্ত সব কর্মসূচি হয়েছে শান্তিপূর্ণ। গত ২৫ জানুয়ারি রায়ের তারিখ ঘোষণার দিক বিএনপির পক্ষ থেকে আগুন জ্বালানোর ঘোষণা এলেও রায়ের পর দলটি মানববন্ধন, মিছিল, অনশন, অবস্থান, গণস্বাক্ষরের মতো নমনীয় কর্মসূচি দিয়েছে। আর ক্ষমতাসীন দলের পক্ষ থেকে এসব কর্মসূচির কটাক্ষ করে বিএনপির শক্তি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে।

জবাবে রায়ের দিন খালেদা জিয়ার বহর ঘিরে বিএনপির মিছিলের কথা উল্লেখ করেন নজরুল ইসলাম খান বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীদের সাহস কম নয়। যদি সাহস নাই থাকত তাহলে প্রশাসন যে বলেছে, চার জন একত্র হওয়া যাবে না, স্লোগান, মিছিল করা যাবে না, সেই পুলিশ কমিশনারের অফিসের সামনে দিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার বহরে হাজার হাজার নেতাকর্মী থাকত না।

খালেদা জিয়ার নির্দেশেই বিএনপি নমনীয় কর্মসূচি দিচ্ছে বলেও জানান নজরুল। বলেন, তিনি আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালনের নির্দেশ দিয়েছেন। শুধুমাত্র নেত্রীর নির্দেশেই আমরা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করছি। সরকার অসন্তুষ্ট বিএনপি কেন ভাঙচুর করছে না। আমরা যদি গাড়িতে ঢিল দিতাম, কাচ ভাঙতাম ওই সুযোগে আওয়ামী লীগ বাসে আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে আরও নেতাকর্মীদের নামে মামলা দিতে পারত।

খালেদা জিয়া সুবিচার পাননি দাবি করে নজরুল বলেন, তার মন ভাঙার জন্য ইচ্ছা করে তাকে কারাগারে রেখেছে। কিন্তু আইনের প্রতি শ্রদ্ধা আছে বলেই তিনি কারাগারে গেছেন। গণতন্ত্র, সুশাসন ও অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল জানিয়ে মানববন্ধনে দাবি করা হয়, এই উদ্দেশ্য এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। আজ দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের অর্থনৈতিক সমস্যা রয়েছে কি না? খুন, গুম হামলা- মামলা নারী নির্যাতনে ভরে গেছে দেশ। অতএব দেশে কোনো সুশাসন প্রতিষ্ঠা হয়নি।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি রেহেনা প্রধানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকতুল্লাহ বুলু, খন্দকার লুৎফর রহমান প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ