ঢাকা, মঙ্গলবার 27 February 2018, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৪, ১০ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জয় পেয়েছে লিজেন্ড অব রূপগঞ্জ ও প্রাইম দোলেশ্বর

স্পোর্টস রিপোর্টার : প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে জয় পেয়েজে লিজেন্ড অব রূপগঞ্জ ও প্রাইম দোলেশ্বর। মোহাম্মদ শরীফের হ্যাটট্রিকে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সেও বিপক্ষে জয় পেযেছে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। শরীফের হ্যাটট্রিকে ৫ বল বাকি থাকতে ৫ উইকেটে জিতেছে তার দল। শুধু হ্যাটট্রিক নয়, লিস্ট ‘এ’র ক্যারিয়ার সেরা বোলিং পারফরম্যান্স করেছেন শরীফ। ৬.৪ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে নেন ৬ উইকেট। বৃষ্টির কারণে সাভারে বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠের এই ম্যাচ শুরু হয় বেশ দেরিতে। খেলা নির্ধারিত হয় ৩৩ ওভারের। টস জিতে ফিল্ডিং নিয়ে শুরুতেই জোড়া আঘাত করেন মোহাম্মদ শহীদ। নিজের দ্বিতীয় ওভারে পরপর আব্দুল্লাহ আল মামুন ও মুমিনুল হককে ফেরান তিনি। ৭৬ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারায় গাজী গ্রুপ। তারপর শুরু হয় শরীফের তোপ। ৫০ রানের মধ্যে গাজী গ্রুপের শেষ ৬ উইকেট তুলে নেয় রূপগঞ্জ, যার পাঁচটিই দখল করেন শরীফ। নিজের সপ্তম ও দলের ৩৩তম ওভারের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ বলে রাজিবুল ইসলাম, নাদীফ চৌধুরী ও রুহেল আহমেদকে ফেরান ৩৪ বছরের এ পেসার। ৩২.৪ ওভারে ১৯০ রানে অলআউট হয় গাজী গ্রুপ। ৭ ওভারে ৩২ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন শহীদ। লক্ষ্যে নেমে নাঈম হাসানের জোড়া আঘাতে ৮৬ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়েছিল রূপগঞ্জ। তবে তুষার ইমরানকে নিয়ে পারভেজ রসুলের ১০২ রানের জুটিতে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে তারা। লক্ষ্য থেকে ২ রান দূরে থাকতে তুষার ৩৮ রানে নাঈমের তৃতীয় শিকার হন। ৫৭ বলে পাঁচ চার ও দুই ছয়ে ৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন রসুল। দ্বিতীয় সেরা ৩৯ রান করেন রূপগঞ্জ অধিনায়ক নাঈম ইসলাম। এই জয়ে ৬ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে উঠে গেছে রূপগঞ্জ। ৪ পয়েন্ট নিয়ে সাত নম্বরে গাজী গ্রুপ। রূপগঞ্জের সমান পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব। চার পয়েন্টের ব্যবধানে আবাহনী লিমিটেড (১২) সবার উপরে।

প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে সেঞ্চুরি করেছেন নুরুল হাসান সোহান। তবে সেঞ্চুরি করেও শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে জিতাতে পারেননি এই অধিনায়ক। প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাবের কাছে তার দল হেরেছে ৫৬ রানে। ফতুল্লায় নিজেদের ষষ্ঠ রাউন্ডে মুখোমুখি হয়েছিল দোলেশ্বর ও শেখ জামাল। টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন সোহান। দোলেশ্বরের ৫৪ রানে ওপেনার ইমতিয়াজ হোসেনকে (৩৩) ফিরিয়ে দিয়ে শুভ সূচনা করেছিল তার দল। কিন্তু ফজলে মাহমুদ ম্যাচটা কেড়ে নেন শেখ জামালের কাছ থেকে। আরেক ওপেনার লিটন দাসের সঙ্গে ৮২ রানের সেরা জুটি গড়েন তিনি। ৮৯ বলে তিনটি চার ও চারটি ছয়ে ৬৯ রানে লিটন আউট হলেও ফজলে একাই ম্যাচটা টেনে তোলেন দারুণ এক সেঞ্চুরিতে। ৯৬ বলে পাঁচ চার ও তিন ছয়ে তিন অঙ্কের ঘরে পৌঁছান তিনি। ফজলে পরের ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে উপযুক্ত সঙ্গ পাননি। তবে ১০১ বলে ১২০ রানের ইনিংস খেলে দলকে এনে দেন লড়াই করার মতো রান। ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে দোলেশ্বর করে ২৯৩ রান। শেখ জামালের পক্ষে রবিউল হক সর্বোচ্চ দুই উইকেট নেন। আরাফাত সানির স্পিন ও ফরহাদ রেজার তোপে পড়ে ১০৬ রানে ৬ উইকেট হারায় তারা। এরপর ইলিয়াস সানিকে নিয়ে সোহান ৯৯ রানের জুটিতে প্রতিরোধ গড়েন। ইলিয়াস ৩১ রানে মাঠ ছাড়লে আবার ব্যাটিং ধসের মুখোমুখি হয় শেখ জামাল। শেষ ৪ উইকেট তারা হারায় ৩২ রানের ব্যবধানে। ৮৬ বলে ৭ চার ও ১ ছয়ে সেঞ্চুরি করেন সোহান। এরপর আর ২ বল খেলে আউট হন তিনি ১০০ রানে। ৪৫ ওভারে ২৩৭ রানে অলআউট হয় শেখ জামাল। দোলেশ্বরের অধিনায়ক ফরহাদ ৪ উইকেট নেন। দুটি পান আরাফাত। দেওয়ান সাব্বির, মোহাম্মদ আরাফাত ও শরিফউল্লাহ একটি করে উইকেট নেন। ৬ ম্যাচে ৪ জয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে উঠে এসেছে দোলেশ্বর। ৬ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নম্বরে শেখ জামাল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ