ঢাকা, শুক্রবার 2 March 2018, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৪, ১৩ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ছড়া

ফুলপাখিদের সাথী

খালীদ শাহাদাৎ হোসেন

 

কাননে কাননে ফুল ডালে ডালে পাখি

দূরাকাশে যত তারা রাতে খোলে আঁখি,

পাখি গানে ফুল গ্রাণে ভাঙ্গে যার ঘুম

যাদের হাসিতে ঝরে মতি কুমকুম।

 

তুলনা ফুলের সাথে যেই মুখখানা,

কুসুম কোমল মনে সুখ ষোলআনা।

শিশুপাঠ নিয়ে আঁকে নবারুণ হাট,

ফুল পাখি ছবি ঠাসা খাতার মলাট।

 

বহুরূপী ফুল পাখি দেখে উৎসুখ

ঘ্রাণ আর গান সুরে মনে বাড়ে সুখ,

নিজের বাগান থেকে নানা ভুল তুলে

নিজ হাতে বিলি করে রোজ ইস্কুলে।

 

গুরুজনে অনুরাগী যাদের স্বভাব

কোমল সুরেতে দেয় কথার জবাব,

আগামী দিনের এরা আসল রতন

এদের গড়িতে হবে করিয়া যতন।

 

বই

রফিক মুহাম্মদ

 

বই হলোরে ফুলের বাগান

মিষ্টি ঘ্রাণে ভরা

গাছ-গাছালি পাখ-পাখালি

সবুজ বসুন্ধরা।

 

বইয়ে থাকে সূর্য ও চাঁদ

ঝলোমলো আলো

মনের আঁধার দূর করে বই

দূর করে সব কালো।

 

বইকে যদি বন্ধু করো

কষ্ট হবে দূর

খুঁজে পাবে সুখ অনাবিল

শান্তি সুমধুর।

 

 

পত্র

শাহিদ উল ইসলাম

 

দেখছে ভুবন অবাক চোখে

ফুল পাখিদের মেলা

নিত্য নতুন ছড়া লিখে 

দিচ্ছে মনে দোলা।

কারো ছড়া কাঁচামিঠা

অপূর্ব এক সৃষ্টি

কারো ছড়া ঝালে ভরা

কাড়লো সবার দৃষ্টি।

লিখছে তারা হাত খুলে আজ

নীল সবুজের হাটে 

ছড়াগুলোও বোমা হয়ে

ফাটছে ছড়ার মাঠে।

তাইতো কবি লোভে পড়ে

লিখলো যে এক ছত্র 

ছড়া তো নয় ছড়া তো নয়

এ যে কালের পত্র।

 

সেই ছেলেটি

শাহীন রায়হান

 

পথের ধারে সেই ছেলেটি

লক্ষ মানুষ দ্যাখে

চোখের তুলি দিয়ে মনে 

লোকের ছবি আঁকে।

 

তবুও তো কেউ ডাকে না 

খোকা বলে তাকে

তাইতো মনে দুঃখ ভারি

সে দেখেনি মাকে।

 

নেইতো কোন জামা জুতা 

গায়ে মাখা ধুলা

কান্না ভেজা চোখ দু’টি লাল

কেমন ফুলাফুলা।

 

খায় না খাবার পায় না পানি

একটুখানি আদর 

ভালোবেসে দেয় না কেহ

গায়ে জড়িয়ে চাদর।

 

এভাবেই দিন চলে যায়

মাকে ভাবি ভাবি

কল্পনায় নেয় মায়ের আদর 

আঁকে মায়ের ছবি।

 

নতুন বই

পলক রায়

 

নতুন বইয়ের মিষ্টি গন্ধে

খুশি ছোট খোকন

অংক কষে বাংলা পড়ে

বইয়ে যে মন এখন।

 

রূপকাহিনীর গল্পকথা

মিষ্টি মধুর ছড়া

নতুন বইটি পেয়ে খোকন

করলো শুরু পড়া।

 

বাংলা পড়ে, সমাজ ধরে

পড়ে যে বিজ্ঞান

ভাবে খোকন এসব কিছু 

মহান প্রভুর দান।

 

স্বপ্ন আঁকে খোকনসোনা

পেয়ে নতুন বই

সত্যপথে গড়বে জীবন

সুশিক্ষিত হই।

 

খুকুর হাসি

রুহুল আমিন রাকিব

খুকু হাসে চাঁদও হাসে

আরো হাসে তারা,

ওদের হাসির শব্দ শুনে

জেগে উঠে পাড়া।

খুকু ঘুমায় চাঁদও ঘুমায়

খুকুর সাথে খেলে,

স্বপ্ন দেখে হাসে আবার

একটু সুযোগ পেলে।

খুকু যখন পড়তে বসে

চাঁদনী বিলায় আলো,

চাঁদের আলোয় পড়তে খুকুর

লাগে অনেক ভালো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ