ঢাকা, শুক্রবার 2 March 2018, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৪, ১৩ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পর্যাপ্ত ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় আতংকে বাগেরহাটের উপকূলবাসী

ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রে পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা না থাকায় কোমলমতি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে

 

 শেখ আবু সাঈদ, বাগেরহাট : বাগেরহাটে পর্যাপ্ত ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মিত না হওয়ায় আতংকে রয়েছে উপকূলীয় এলাকার কয়েক লাখ মানুষ। সুপার সাইক্লোন সিডর ও আইলা বিধ্বস্ত বাগেরহাটের উপকূলীয় এলাকার মানুষ এখন জীবন বাঁচাতে দুর্যোগকালিন ও পরবর্তী করণীয় বিষয় প্রশিক্ষণ নিয়ে সচেতন হচ্ছেন। সিডরের ১১ বছর পার হলেও বাগেরহাটে গড়ে উঠেনি পর্যাপ্ত সাইক্লোন শেল্টার। এতে উপকূলীয়বাসীর মধ্যে ক্রমস ক্ষোভ বাড়ছে। বাগেরহাটে চাহিদার তুলনায় যে অপ্রতুল ঘুর্র্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মিত হয়েছে সেগুলোতেও বিশুদ্ধ পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা না থাকায় স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছে উপকূলবাসী।

বাগেরহাটের শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ, মোংলা ও রামপাল উপজেলার প্রায় ৬লাখ মানুষের অভিমত, সিডরের সময়ে পর্যাপ্ত আশ্রয়কেন্দ্র না থাকায় প্রলয়ঙ্করী ঘুর্ণিঝড়ে এই  জেলায় ২ হাজারের অধিক মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। তখন  থেকেই এই জেলার উপকূলবাসীর অন্যতম প্রধান দাবি ছিল পর্যাপ্ত সাইক্লোন  শেল্টার নির্মাণ।

সিডরের পর কিছু এলাকায় সাইক্লোন  শেল্টার হলেও এতে ধারণ ক্ষমতা অনেক কম। একটি আশ্রয় কেন্দ্রে ৬-৭ শ লোকের ধারণ ক্ষমতা থাকলেও সেখানে আশ্রয় নিতে হয় আড়াই থেকে ৩ হাজারের অধিক। ঘুর্ণিঝড় সতর্ক সংকেত  ঘোষণা হলে এই আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে তিল ধারণের ঠাঁই থাকে না। অনেকে আবার আশ্রয় কেন্দ্র জায়গায়ও পান না। আবার অনেক ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়নি। অনেকগুলো আবার রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে ব্যবহার অনুপযোগী। অনেক স্থানে আশ্রয় কেন্দ্র যাওয়ার রাস্তাঘাটের অবস্থা খারাপ।

সিডরের পর শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ, মোংলা ও রামপাল উপজেলায়  বেশকিছু স্কুল কাম সাইক্লোন  শেল্টার নির্মাণ করা হয়েছে। নির্মিত হয়েছে রাস্তাঘাট। সুপেয় পানির ব্যবস্থার জন্য ট্যাঙ্কি, টিউবওয়েল, বাথরুম টয়লেটের ব্যবস্থা থাকলেও সেগুলো ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় স্যানিটেশন ব্যবস্থা চরম আকার ধারণ করেছে। ওই সকল সাইক্লোন শেল্টারে পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা না থাকায় কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ও শিক্ষকরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। উদ্বিগ হয়ে পড়েছে অভিবাবকেরা।

শরণখোলার সাইথখালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাব্বির, তন্নী , নাজমুল বলেন, ‘ভবনে টিউবওয়েল আছে পানি নেই। আমরা স্কুলে আসার পর টয়লেটে যেতে পারি না। অন্যের বাড়ির টয়লেটে যেতে হয়। তারপর খাবার পানি খেতে পারি না’। মোরেলগঞ্জের বানিয়াখালী গ্রামের মমতারানী ও শাহানাজ বেগম বলেন, ‘আমাদের এলাকায় ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র অনেক কম। যা আছে তাতে সংকুলান হয় না। পর্যাপ্ত ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় আমরা দুর্যোগকালিন ও পরবর্তী করণীয় বিষয় প্রশিক্ষণ নিয়েছি। আমাদের মত অনেকেই প্রশিক্ষণে অংশ গ্রহণ করেছে।’

 বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা জেজেএস’এর মহড়া প্রকল্প সমন্বয়কারী মো. আব্দুল মালেক বলেন, ‘আমরা ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সাথে কাজ করছি। সিডরের পর বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের সহায়তায় সরকারি ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে উপকুলিয় এলাকাবাসীকে দুর্যোগকালিন প্রস্তুতি ও পরবর্তী করণীয় বিষয় প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি। বর্তমানে অধিকাংশ মানুষ প্রশিক্ষণ পেয়ে সচেতন হয়েছে। দুর্যোগের বিপদ সংকেতের খবর পেলে তারা দ্রুত আশ্রয় কেন্দ্রে যান। তবে বাগেরহাটের দুর্যোগ প্রবণ এলাকা শরনখোলা ও মোরেলগঞ্জ উপজেলায় পর্যাপ্ত আশ্রয় কেন্দ্র নেই।

 মোরেলগঞ্জ উপজেলার খাউলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান  মো. আবুল খায়ের বলেন,‘ঘুর্ণিঝড় সিডরে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় শরণখোলা ও মোরেলগঞ্জ উপজেলাতে। এখনও পর্যাপ্ত আশ্রয় কেন্দ্র গড়ে না ওঠায় এসব এলাকার মানুষ আতংকে থাকে। দ্রুত আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণের দাবি জানান তিনি’।

শরণখোলা উপজেরার সাউথখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোজ্জাম্মেল হেসেন বলেন, তার ইউনিয়ন সিডরে দেড় হাজারের অধিক মানুষ মারা যায়। এখনও এই ইউনিয়নে প্রয়োজনের তুলনায় আশ্রয় কেন্দ্র অনেক কম। দ্রুত এই এলাকায় নতুন ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ করা দরকার। যেগুলো আছে সেগুলোর অধিকাংশই সংরক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে গেছে। আশ্রয়  কেন্দ্রগুলো সংস্কার করা জরুরি’।

বাগেরহাট  জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘সরকারি- বেসরকারি মিলিয়ে জেলায় বর্তমানে ২৩৪ টি ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র রয়েছে। নতুন করে আরও ২০টি নির্মাণ করা হচ্ছে। জনসংখ্যার অনুপাতে পর্যায়ক্রমে জেলায় আরও ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণের পাশাপাশি এসব কেন্দ্রে যেতে নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ সুবিধাসহ গৃহপালিত পশু-পাখি রাখার সুব্যবস্থা থাকে এখন থেকে এমন ডিজাইনে ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণে জোর দেওয়া হবে’।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ