ঢাকা, বুধবার 7 March 2018, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৪, ১৮ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

উত্তাল কাশ্মীরে যৌথ অভিযান এনকাউন্টারে জইশ নেতা নিহত

৬ মার্চ, ইউএনআই : ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের সুনজুয়ান সেনা ক্যাম্পে হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ও পাকিস্তানী সশস্ত্র সংগঠন জাইশ-ই-মোহাম্মদের নেতা মুফতি ওয়াকাস নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছেন। ঘটনাকে এনকাউন্টার আখ্যা দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গত মাসে সেনা ক্যাম্পের ওই হামলায় সাত জন নিহত হয়েছিল। এমন সময় এই এনকাউন্টার সংঘটিত হলো, যখন টহলরত সেনাভ্যানে সশস্ত্র  হামলা পরবর্তী অভিযানে নিরপরাধ বেসামরিক নিহতের ঘটনায় কাশ্মির উত্তাল।

গত রোববার রাতে সোপিয়ানে সেনাবাহিনীর টহল ভ্যান আক্রান্ত হয় সশস্ত্র হামলায়। সেনাকর্মীদের পাল্টা গুলিতে সেসময় এক জঙ্গি নিহত হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলের খানিকটা দূরে একটি গাড়ি থেকে তিন তরুণের মরদেহ উদ্ধার করে। কর্তৃপক্ষ তাদের হামলাকারীর সহযোগী দাবি করলেও স্থানীয়দের সূত্রে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, তারা ছিলেন নিরপরাধ সাধারণ মানুষ।  পরে আরও একটি গাড়ি থেকে এক ‘নিরপরাধ’ শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। প্রসঙ্গত, কাশ্মীরে ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে বেসামরিক নিরপরাধ মানুষকে হত্যার পর তাদের জঙ্গি প্রমাণের চেষ্টার জোরালো অভিযোগ রয়েছে।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কাশ্মীর পরিস্থিতি আরও উত্তাল হয়ে ওঠে। জারি করা হয় কার্ফিউ। ররিবার সরকারি ঘোষণার মধ্য দিয়ে সোমবার থেকে স্কুল-কলেজ ও ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এই দিনেই পুলওয়ামার জেলার আওয়ান্তিপুরার হাতওয়ায় এক যৌথ অভিযানে ওয়াকাস নিহত হন। সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র বলেন, গোয়েন্দা খবরের ভিত্তিতে সেনাবাহিনী, পুলিশ ও সিআপিএফ’র মিলে ওই এলাকায় একটি যৌথ অভিযান চালানো হয়। এতে ওয়াকাস নিহত  হয়েছে।

কাশ্মীরের আইজি এসপি পাণী ভারতীয় বার্তা সংস্থা এএনআইকে বলেন, ‘জাইশ-ই-মোহাম্মদের বিভিন্ন অভিযান পরিচালনার দায়িত্বে থাকা ওয়াকাস ওই অভিযানে নিহত হয়েছেন। তিনি সুনজুয়ান হামলাসহ নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর বেশ কয়েকটি হামলার মূল পরিকল্পনাকারী। অভিযানে অস্ত্র ও আইইডির মতো গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছে। ওয়াকাস একজন বিদেশি সন্ত্রাসী বলে জানান তিনি।

সেনাবাহিনীর মুখপাত্র বলেছেন, ‘অভিযানে কোনও বেসামরিক লোক বা নিরাপত্তা বাহিনীর কেউ হতাহত হয়নি। এই ঘটনা জাইশ-ই-মোহাম্মদের সাংগঠনিক কাঠামোয় বড় ধরনের আঘাত। কারণ গত ডিসেম্বরে একই এলাকায় আরেকটি অভিযানে সংগঠনটির আগের কমান্ডার নুর মোহদ নিহত হন। এরপর তার উত্তরাধিকারীও নিহত হলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ