ঢাকা, বুধবার 14 March 2018, ৩০ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৫ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সরকার পরিকল্পিতভাবে দেশে বাকশালী রাজত্ব কায়েম করছে

স্টাফ রিপোর্টার : ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীসহ দেশব্যাপী বিক্ষোভ করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। ঢাকায় বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি এডভোকেট ড. হেলাল উদ্দিন বলেন, সরকার পরিকল্পিতভাবে দেশে ফ্যাসিবাদী বাকশালী রাজত্ব কায়েম করছে। এরই ধারাবাহিকতায় সরকার জামায়াত নেতৃবৃন্দসহ বিরোধী রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার, খুন, গুম, অপহরণ পথ বেছে নিয়েছে। ক্ষমতাসীনদের এইসব অপতৎপরতা ও সন্ত্রাসী কর্মকা-ে দেশের মানুষ অতিষ্ঠ ও বিক্ষুব্ধ। সরকারকে অবিলম্বে এসব অপতৎপরতা ও ষড়যন্ত্র বন্ধ করে ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত অধ্যাপক মুজিবসহ গ্রেফতারকৃত জামায়াত নেতাকর্মীকে মুক্তি দিতে হবে এবং সকল ধরনের পুলিশী হয়রানি বন্ধ করতে হবে অন্যথায় ভবিষ্যতে এর জন্য তাদেরকে চরম মূল্য দিতে হবে।
কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল সকাল ৯টায় এডভোকেট ড. হেলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে রাজধানীতে এক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ। মিছিলটি ঢাকা সাইন্সল্যাব বাটা সিগন্যাল মোড় থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ধানমন্ডি সিটি কলেজের সামনে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন-কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও মহানগরী কর্মপরিষদ সদস্য মুকাররম হোসাইন, মহানগরী কর্মপরিষদ সদস্য শামসুর রহমান, কামাল হোসেন, মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য আমিনুর রহমান, সগির বিন সাইদ, এডভোকেট জসিম উদ্দিন তালুকদার, মোঃ আহসান উল্লাহ, মহিব্বুল হক ফরিদ, ইসলামী ছাত্রশিবিরের ঢাকা  মহানগরী পূর্বের সভাপতি সোহেল রানা মিঠু, ঢাকা কলেজ সভাপতি মেহেদী হাসান সানি, শিবির ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ সেক্রেটারি তারিক মাসুম, জামায়াত নেতা আব্দুস সাত্তার সুমন, শাহিন আহমেদ খান, ছাত্রনেতা আব্দুল্লাহ আল মারুফ, হাফিজুর রহমান, মাইনুল ইসলাম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
ড. হেলাল উদ্দিন আরোও বলেন, সরকার ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ৫ই জানুয়ারির মত বিরোধী দল বিহীন আরেকটি প্রহসনের নির্বাচন করে আবারো ক্ষমতায় টিকে থাকার অপচেষ্টা করছে। এজন্য তারা বিরাজনীতি করণের পথ বেছে নিয়েছে। পুলিশ বাহিনীকে তারা আওয়ামী লাঠিয়াল বাহিনীতে পরিণত করেছে। তারা অন্যায়ভাবে জনগণের সাংবিধানিক অধিকারসমূহ পদদলিত করছে। সরকার দেশের গণতান্ত্রিক পরিবেশকে নসাৎ করে একদলীয় বাকশাল কায়েম করার যে হীন ষড়যন্ত্র করছে তাতে পুলিশ সক্রিয় সহযোগিতার ভূমিকা পালন করছে। তিনি পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, জনগণের অধিকার রক্ষায় আপনারা ভূমিকা পালন করেন কোন ষড়যন্ত্র বাস্তবায়ন আপনাদের কাজ নয়। তিনি সরকার ও পুলিশকে জনগণের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষায় শ্রদ্ধাশীল হওয়ার আহ্বান জানান।
ঢাকা মহানগরী উত্তর: কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সহকারি সেক্রটারি লস্কর মোহাম্মদ তসলিম বলেছেন, সরকার গণবিচ্ছিন্ন হয়ে ক্ষমতা হারানোর আতঙ্কে হিং¯্র হয়ে ওঠেছে। তারা অবৈধ ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত  করতেই জামায়াত সহ বিরোধী দলের ওপর দলন-পীড়নের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে। সে ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায় তারা ভারপ্রাপ্ত আমীরে  জামায়াত ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান এবং রাজশাহী মহানগরী আমীর প্রফেসর ড. আবুল হাশেমসহ নেতৃবৃন্দকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে জুলুম-নির্যাতন চালাচ্ছে। কিন্তু এসব করে  স্বৈরাচারি ও ফ্যাসিবাদী সরকারের শেষ রক্ষা হবে না। তিনি সরকারকে হঠকারিতা পরিহার করে অবিলম্বে ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ আটক সকল রাজবন্দীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।
কেন্দ্র ঘোষিত শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ কর্মসূচির অংশ হিসাবে জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী উত্তর আয়োজিত এক বিক্ষোভ পরবর্তী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। মিছিলটি উত্তর বাড্ডা থেকে শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন ও নাজিম উদ্দীন মোল্লা, শ্রমিক নেতা মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ, ঢাকা মহানগরী মজলিশে শূরা সদস্য ডা. ফখরুদ্দীন মানিক, আতাউর রহমান সরকার, এভোকেট ইব্রাহিম খলিল, হোসাইন আহমদ, কুতুবুদ্দীন, ডা. শফিউর রহমান ও আব্দুল আউয়াল আজম প্রমূখ।
লস্কর তসলিম বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় আসতে পারবে না বলেই দেশের গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ধবংস করে দিয়েছে। গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ জাতীয় ঐক্যমতের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত কেয়ারটেকার সরকার পদ্ধতি বাতিল করা হয়েছে। দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি হয়েছে। তারা জনগণের জানমালের নিরাপত্তা দিতে পারছে না। দেশের মানুষের ক্রয়ক্ষমতা না বাড়লেও দ্রব্যমূল্য পরিস্থিতি এখন সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। ক্ষমতাসীন দল ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের বেপরোয়া লুটপাট, চাঁদাবাজি ও দুর্নীতিতে রাষ্ট্রের সকল পর্যায়েই স্থবিরতা নেমে এসেছে। এমতাবস্থায় জনগণের দৃষ্টিকে ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্যই সরকার ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত সহ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার করে নির্যাতন চালানো হচ্ছে। এর আগে আমীরে জামায়াত মকবুল আহমাদ হ শীর্ষনেতাদের গ্রেফতার করে কথিত রিমান্ডের নামে হয়রানী চালিয়ে দীর্ঘদিন কারারুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। তিনি বর্ষীয়ান আমীরে জামায়াত মকবুল আহমাদ সকল জাতীয় নেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তি দিতে সরকারের প্রতি আহবান জানান। অন্যথায় সরকারকে একদিন জনগণের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।
ঢাকা জেলা উত্তর: গতকাল সকালে আশুলিয়া এলাকায় সকাল ৮টায় ঢাকা জেলা উত্তর শাখা বিক্ষোভ মিছিল করে। জামায়াত নেতা তাহসিন আহমদের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলে আরো উপস্থিত ছিলেন শিবিরের জেলা সভাপতি হাফেজ ফয়জুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রনেতা ফজল আহমদ, জামায়াত নেতা ডা. রফিকুল ইসলাম, শিবির নেতা রাশেদুল ইসলাম, রুহুল আমীন, মোঃ সালাউদ্দিন, জহিরুল ইসলাম প্রমুখ।
গাজীপুর সংবাদদাতা : বাংলাদেশের জামাযাতে ইসলামীর কেন্দ্রীয কর্মপরিষদ সদস্য গাজীপুর সিটি আমীর ও গাজীপুর সিটির মেযর প্রার্থী জননেতা অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহ বলেছেন জনগণের মেন্ডেটবিহীন কর্তৃত্ববাদী জালিম সরকার দেশপ্রেমিক নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের মাধ্যমে অবৈধ ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করার ষড়যন্ত্র করছে।
এরই অংশ হিসেবে ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত, জাতীয় সংসদে জামায়াতের সাবেক সংসদীয় দলনেতা জননেতা অধ্যাপক মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জনগণ সরকারের সব ষড়যন্ত্র প্রতিহত করে নেতৃবৃন্দকে মুক্ত করে আনবে ইনশাআল্লাহ।
 িেকন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবিতে মঙ্গলবার সকালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের সাইনবোর্ড এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল শেষে পথসভায় বক্তৃতাকালে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন ফাঁসির মঞ্চ আমাদের থামাতে পারিনি। গ্রেফতার-নির্যাতন করে ইসলামের অগ্রযাত্রা রুখা যাবে না।
অবিলম্বে সকল জাতীয় নেতাকে মুক্তি দিয়ে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে সকল দলের অংশগ্রহণে অবাধ নির্বাচনের ব্যবস্থা করার আহ্বান জানান। অন্যথায় জনগণ অবৈধ ক্ষমতার মসনদ চুরমার করে দিবে বলে তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।
এর আগে সিটি আমীরের নেতৃত্বে বিশাল মিছিলে অন্যান্যের মাঝে অংশ নেন মহানগর শিবির সভাপতি মিজানুর রহমান, সেক্রেটারি সিফাত হোসেন, নগর জামায়াতের সাংগঠনিক সেক্রেটারি আফজাল হোসেন, কাশিমপুর থানা জামায়াতের আমীর আবু সিনা মামুন, জয়দেবপুর উত্তর থানা জামায়াতের আমীর ছাদেকুজ্জামান খান, গাছা থানা জামায়াতের আমীর হাফেজ মোতালিব হোসেন, পুবাইল থানা জামায়াতের আমীর আশরাফ আলী কাজল, টঙ্গী পূর্ব থানা জামায়াতের সেক্রেটারি মুহিউদ্দিন, জামায়াত নেতা আনোয়ার হোসেন ভুঁইয়া প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
জেলা জামায়াতের উদ্যোগে কেন্দ্রীয় নেতাদের গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে গতকাল মঙ্গলবার মাদারীপুর পুরান বাজারে বিক্ষোপ অনু্িষ্ঠত হয়। এতে নেতৃত্ব দেন জেলা আমীর মাওলানা আঃ ছোবহান খান, জেলা সেক্রেটারি কাজি ইয়াদুল হক। উপস্থিত ছিলেন থানা আমীর মাওলানা মোখলেছুর রহমান, পৌর আমীর এনায়েত হোসেন।
খুলনা অফিস : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ রাজশাহীর অঞ্চলের ১০ নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে খুলনা মহানগরী জামায়াতের উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সমাবেশে মিলিত হয়।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন খুলনা মহানগরী জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি খান গোলাম রসুল, খালিশপুর থানা সেক্রেটারি এ গাজী, সহকারী সেক্রেটারি এ ইসলাম, এম রহমান, মো. সোহাগ প্রমূখ।
সামাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেছেন, সরকার দেশ থেকে ইসলাম ও ইসলামী মূল্যবোধ ধ্বংস করার জন্যই জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের অন্যায়ভাবে আটক করছে। মূলতঃ সরকার জাতীয় নেতৃবৃন্দকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে দেশকে অস্থিতিশীলতার দিকে নিয়ে যেতে চায়। কিন্তু দেশের জনগণ আজ এই জুলুমবাজ সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। সরকার যদি গণতান্ত্রিক পন্থায় ফিরে না আসে তাহলে দেশের আপামর জনগণ সর্বাত্মক আন্দোলনের মাধ্যমে জালিম সরকারের পতন ঘটিয়ে দেশে পুনরায় গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবে ইনশা’আল্লাহ।
নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, গ্রেফতার, নির্যাতন-নিপীড়ন ও খুন-গুম করে ইসলামী আন্দোলনকে নিশ্চিহ্ন করা যাবে না। বরং শত জুলুম-নির্যাতন, ত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশের জমীনে ইসলামের পতাকা উড্ডীন হবেই ইনশা’আল্লাহ।
নেতৃবৃন্দ আমীরে জামায়াতসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ অবিলম্বে প্রত্যাহার করে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।
ফেনী সংবাদদাতা : ফেনীতে জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর  ও সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মজিবুর রহমানসহ ১০ নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে ও কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবীতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার সকালে ফেনী শহর জামায়াতে ইসলামী বিক্ষোভ মিছিল বের করে। গতকাল সকালে ফেনী শহরের ট্রাংক রোড থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে শেষ হয়। বিক্ষোভে জামায়াত-শিবিরের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।
নীলফামারী সংবাদদাতা : জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ ১০ নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে নীলফামারীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জামায়াতে ইসলামী। মঙ্গলবার সকালে শহর জামায়াতের আমীর এ্যাডভোকেট আল ফারুক আব্দুল লতীফের নেতৃত্বে শহরে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়। মিছিলে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সদর জামায়াতের আমীর মাওলানা আবু হানিফা শাহ, সেক্রেটারী কারী আব্দুল আজিজ, শহর সেক্রেটারী আনিছুর রহমান আজাদ, ইসলামী ছাত্র শিবিরের জেলা সভাপতি  রায়হান রানা।
মেহেরপুর সংবাদদাতা : মেহেরপুরে ভারপ্রাপ্ত আমীরসহ নেত্রীবৃন্দকে অবৈধভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে মেহেরপুর জামাতের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মেহেরপুর জেলা মুজিবনগর উপজেলায় উপজেলা আমীর মাওঃ খানজাহানের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান জারজিস হুসাইন, মুনাখালি ইউনিয়ন আমীর আমিনুল ইসলাম, মহাজনপুর ইউনিয়ন আমীর আব্দুল হামিদ, বাগোয়ান ইউনিয়ন আমীর মাওঃ ফারুক হোসেন সহ জেলার নেত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা : নীলফামারীর সৈয়দপুরে (১৩ মার্চ) মঙ্গলবার সকালে জামায়াতে ইসলামী ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতারে প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে নীলফামারী জামায়াত ।
বিক্ষোভ মিছিলে ও প্রতিবাদ সভায় নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সৈয়দপুর শহর শাখার সেক্রেটারী সরফুদ্দিন খান। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সৈয়দপুর শহর শাখার আমীর হাফেজ আব্দুল মুনতাকিম, বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের সৈয়দপুর শহর শাখার সেক্রেটারী আব্দুল মোমেন।
প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য পেশ করেন, শহর শাখার আমীর হাফেজ আব্দুর মুনতাকিম তিনি বলেন, সরকার গনবিচ্ছিন্ন হয়ে ক্ষমতা হারানোর আতংকে হয়ে উঠেছে। তারা অবৈধ ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতেই জামায়াত সহ বিরোধী দলের ওপর দমন পীড়নের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে। ক্ষমতাসীন দল ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী বেপরোয়া লুটপাট, চাঁদাবাজি ও দুর্নীতিতে রাষ্ট্রের সকল পর্যায়েই স্থবিরতা নেমে এসেছে। দেশে ধর্ষণ, নারী নির্যাতন, খুন বেড়েই চলেছে।
এমনবস্থায় জনগণের দৃষ্টিকে ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্যেই সরকার ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত সহ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার করে নির্যাতন চালানো হচ্ছে।
বগুড়া অফিস : জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মজিবুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতাকর্মীর মুক্তির দাবিতে বগুড়ায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে জামায়াত। গতকাল মঙ্গলবার সকালে বগুড়া শহরের দ্বিতীয় বাইপাস সংলগ্ন ঘূনিয়াতলা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে জামায়াতে ইসলামী বগুড়া শহর শাখা। মিছিলটি সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ থেকে অবিলম্বে ভারপ্রাপ্ত আমীরসহ কারাবন্দী সকল জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীর নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানানো হয়।
রাজশাহী অফিস : জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মজিবুর রহমানসহ ১১ জামায়াত নেতাকে ঘরোয়া প্রোগ্রাম চলাকালে কোনপ্রকার মামলা ছাড়াই অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল সকালে রাজশাহী নগরীর রাজশাহী-চাঁপাই মহাসড়কের ডিংগাডোবা এলাকায় এক বিক্ষোভ মিছিল করে জামায়াতে ইসলামী রাজশাহী মহানগরী শাখা।
মিছিল উত্তর সমাবেশে জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, একটি ঘরোযা বৈঠক থেকে ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মজিবুর রহমান, রাজশাহী জোনের সহকারী পরিচালক অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, রাজশাহী মহানগরী আমীর প্রফেসর এম আবুল হাশেম, সেক্রেটারী অধ্যক্ষ সিদ্দিক হোসেনসহ ১১ জামায়াত নেতাদের কোন প্রকার মামলা ছাড়াই গ্রেফতার করা অমানবিক ও গণতন্ত্রের পরিপন্থী। মিছিল মিটিং করা এদেশের প্রত্যেক নাগরিক ও দলের গণতান্ত্রিক এবং সাংবিধানিক অধিকার। সেই অধিকারকে হরণ করে সরকার জামায়াতের প্রতি প্রতিহিংসা চরিতার্থ করছে। আসলে সর্বক্ষেত্রে ব্যর্থ এই সরকার দিশেহারা হয়ে জনগণের দৃষ্টিকে ভিন্ন দিকে ফেরাতে বিরোধীদলের নেতা-কর্মীদের ওপর হত্যা, নির্যাতন, গ্রেফতার-অভিযান চালাচ্ছে। তারা পুলিশ বাহিনীকে দলীয় কর্মীর মত ব্যবহার করছে।নেতৃবৃন্দ অন্যায়ভাবে গ্রেফতারকৃত জামায়াত নেতাদের মুক্তির দাবী জানান এবং সরকার ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সকল সদস্যকে সংযত, গণতান্ত্রিক ও সভ্য আচরণের আহ্বান জানান।
চট্টগ্রাম অফিস : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর ও জাতীয় সংসদের সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ ১০ জন নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে জামায়াতে ইসলামী চট্টগ্রাম মহানগরীর উদ্যোগে থানায় থানায় প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।
জামায়াতে ইসলামী চকবাজার থানার উদ্যোগে এম.এ. খালেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জামায়াত নেতা মুহাম্মদ একরামুল হক, মুহাম্মদ শাহেদ চৌধুরী, এম.আর. আলম, ছাত্রশিবির নেতা সাকিবুল হাসান প্রমুখ। সমাবেশ শেষে এক বিক্ষোভ মিছিল বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
জামায়াতে ইসলামী বাকলিয়া থানার উদ্যোগে মুহাম্মদ ইলিয়াছ মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জামায়াত নেতা নুর আহমদ, মহিউদ্দিন, ওমর ফারুক ও ছাত্রশিবির নেতা মো: মাসুক প্রমুখ। সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
জামায়াতে ইসলামী হালিশহর ও পাহাড়তলী থানার উদ্যোগে জামায়াতে ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃতদের নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ জামায়াত নেতা আবু গালিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগরী দক্ষিণ শাখার সেক্রেটারি মুহাম্মদ এমরানুল হক, জামায়াত নেতা এফ.কে.নুন ও ছাত্রশিবির নেতা কেফায়েত উল্লাহ প্রমুখ। সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। উক্ত সমাবেশে জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার জামায়াত নেতৃবৃন্দকে অন্যায়ভাবে বার বার গ্রেফতার করে বর্বর জুলুম-নির্যাতন চালাচ্ছে। সরকার বিনা উসকানিতে জামায়াত নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার করে মানুষের গণতান্ত্রিক মৌলিক অধিকার হরণ করছে যা চরম মানবাধিকার লংঘন। সরকার ক্ষমতা ও রাষ্ট্রীয় অর্থ অপচয় করে নৌকায় ভোট চাচ্ছে। আর জামায়াতসহ বিরোধী দলকে সভা সমাবেশ করতে বাধা দিচ্ছে। এটা জাতির জন্য লজ্জাজনক ও উদ্বেগ জনক। নেতৃবৃন্দ বলেন সরকার আবারও প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য গভীর ষড়যন্ত্র করছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, এ ভাবে দেশের মানুষের উপর অত্যাচার-নির্যাতন ও জুলুম চালিয়ে অতীতে যেমন কেউ ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেনি তেমনি বর্তমান অবৈধ সরকারও পারবেনা। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতা-কর্মীদের নি:শর্ত মুক্তির দাবি জানান।
বরিশাল অফিস : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবর রহমান সহ নেতাকর্মীকে গতকাল থেকে গ্রেফতার করা হয়। নেতৃবৃন্দকে আটকের প্রতিবাদ এবং তাদের মুক্তির দাবিতে মিছিল করেছে বরিশাল মহানগর জামায়াত। গতকাল নগরীর কড়াপুর রোডে এই মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে নেতৃত্বদেন মহানগর জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য মোঃ মিজানুর রহমান, মোঃ নাসির উদ্দিন, অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনসহ নেতৃবৃন্দ।
মিছিল পরবর্তী সমাবেশে বক্তারা বলেন, জালিম সরকার জামায়াতে ইসলামীকে নেতৃত্বশুন্য করতে খুন, গুম, জেল-জুলুমের পথ বেছে নিয়েছে। বিনাকারণে এবং মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ এনে মামলার পর মামলা দিয়ে নেতাকর্মীদের গণহারে গ্রেফতার করে জেলে আটক করা হচ্ছে। খুনি ও জালিম সরকার এভাবে জুলুম নির্যাতন করে জামায়াতের অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতে মরিয়া। অবৈধ সরকার কেন্দ্র থেকে শুরুকরে তৃনমূল নেতাকর্মীদের উপর উপর্যুপরি দমন-পীড়ন, জেল-জুলুম করে আমাদের অগ্রযাত্রাকে থমকে দেওয়ার চেষ্টা করছে। কিন্ত বোকার স্বর্গে থাকা জালিম সরকার জানেনা জামায়াতে ইসলামীকে এই ভাবে বাধাগ্রস্ত করে আটকে রাখা যায়না। জালিম শাসক যত বেশী জুলুম নির্যাতন করবে জামায়াতে ইসলামীর জনসমর্থন তত বৃদ্ধি পাবে, নেতৃত্ব সৃষ্টি হবে। জামায়াতের নেতৃত্ব একজন বা দুজনের উপর নির্ভর করেনা।
এদিকে জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবর রহমানসহ ১০ জনকে আটকের তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবি করে বিবৃতি দিয়েছে বরিশাল মহানগর জামায়াত। বিবৃতি দাতারা হলেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও বরিশাল মহানগর জামায়াতের আমীর এ্যাডভোকেট মুয়াযযম হোসাইন হেলাল, নায়েবে আমীর আলহাজ্ব বজলুর রহমান বাচ্চু ও অধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম খসরু, সেক্রেটারি জহির উদ্দিন মু. বাবর ও সহকারী সেক্রেটারি মাওঃমতিউর রহমান।
চকরিয়া সংবাদদাতা : কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সমর্থনে চকরিয়া পৌরসভা জামায়াতে ইসলামীর উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার এক বিক্ষোভ মিছিল বের হয়েছে। মিছিলটি পৌরশহরের চিরিঙ্গা কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এতে শাখা নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। এসময় জামায়াত-শিবিরের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতা : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত আমীর সাবেক এম.পি. অধ্যাপক মুজিবর রহমান সহ ১১ নেতার গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল মঙ্গলবার সকালে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে রায়পুর উপজেলা ও রায়পুর শহর শাখা। রায়পুর শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সেক্রেটারি আব্দুল আউয়াল রাসেল, পৌর শহর আমির মাষ্টার ইসমাইল, জামায়াত নেতা হাফেজ ফজলুল করিম, নুরুল আমিন দেওয়ান, আবুল কালাম, ফখরুল ইসলাম, শিবির নেতা কাউছার আহমেদ, ফয়েজ আহমেদ, জাফর ইকবালসহ অন্যান নেতৃবৃন্দ।
সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর ও সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃত অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবিতে সিরাজগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জামায়াতে ইসলামী। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে শহর জামায়াতে ইসলামীর কর্মপরিষদ সদস্য এস.এম সাইদুল ইসলাম এর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের এস.বি ফজলুল হক রোডের কাঁচা বাজারের সামনে থেকে শুরু হয়ে নর্দথ বেঙ্গল ফ্লাওয়ার মিলের সামনে গিয়ে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।
মিছিলে আরো উপস্থিত ছিলেন শহর ছাত্রশিবিরের সভাপতি আব্দুলাহ আল সাদিক ও সেক্রেটারি হাফিজুর রহমান, শিবির নেতা আলফেসানি সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তারা অধ্যাপক মুজিবুর রহমান সহ অন্যান্য সকল রাজবন্দীর মুক্তির দাবি করেন।
সিলেট ব্যুরো : সিলেট মহানগর জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেছেন- সকল দলের অংশ গ্রহণে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে যখন গোটা জাতি ঐক্যবদ্ধ। এই মুহূর্তে জাতির দৃষ্টি ভিন্নখাতে ফেরাতেই সরকার জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ নিরপরাধ জামায়াত নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার করেছে। বাকশালী ফ্যাসিস্ট সরকার গোটা দেশকে একটি বৃহৎ কারাগারে পরিণত করে পুনরায় ক্ষমতা দখলের ষড়যন্ত্র করছে। জামায়াতের আমীর মকবুল আহমদ ও সেক্রেটারী জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে দীর্ঘদিন ধরে ষড়যন্ত্রমুলক মামলায় কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ নিরীহ নেতৃবৃন্দকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। অবিলম্বে শীর্ষ জামায়াত নেতৃবৃন্দসহ কারান্তরীণ সকল নেতৃবৃন্দকে মুক্তির দাবি জানিয়েছেন তারা।
গতকাল মঙ্গলবার জামায়াত কেন্দ্র ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচির অংশ হিসেবে ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান সহ জামায়াত নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের প্রতিবাদে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে সিলেট মহানগর জামায়াত। মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নেতৃবৃন্দ উপরোক্ত কথা বলেন।
বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন- সিলেট মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি মো: শাহজাহান আলী, জামায়াত নেতা হাফিজ মশাহিদ আহমদ, মু. আজিজুল ইসলাম, চৌধুরী আব্দুল বাছিত নাহির, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির সিলেট মহানগরী সভাপতি নজরুল ইসলাম ও সেক্রেটারি ফরিদ আহমদ প্রমুখ।
কক্সবাজার সংবাদদাতা: জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ ১১জন নেতাকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল মঙ্গলবার বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে কক্সবাজার শহর জামায়াত। জামায়াত-শিবির নেতৃবৃন্দের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ থেকে বক্তারা, অবিলম্বে আমীরে জামায়াতসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ