ঢাকা, বৃহস্পতিবার 15 March 2018, ১ চৈত্র ১৪২৪, ২৬ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নাটোরে জঙ্গি সন্দেহে আটক চারজনকে পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর

নাটোর সংবাদদাতা : নাটোরের দিঘাপতিয়া থেকে জঙ্গি সন্দেহে আটক চারজনকে আদালত পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। বুধবার বেলা ৩টার দিকে নাটোরের অতিরিক্তি চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রবিউল ইসলাম তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে বুধবার সকালে আটক চার জঙ্গিকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে বাগাতিপাড়া উপজেলার চাপাপুকুর গ্রামের মৃত শুকুর আলীর ছেলে শফিকুল ইসলাম, একই গ্রামের মৃত ভিকু মন্ডলের ছেলে ফজলুর রহমান, সিংড়া উপজেলার আরকান্দি পশ্চিমপাড়ার ইউনুস আলীর ছেলে আনিছুর রহমান ও নলডাঙ্গা উপজেলার খোলাবাড়িয়া গ্রামের ফোজলার রহমানের ছেলে জাকির হোসেন ওরফে জাকির মাস্টার নাটোর আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও নাটোর ডিবি পুলিশের উপ-পরিদর্শক আবু সাদাদ জঙ্গি সন্দেহে আটক চারজনকে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের কাছে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আবেদনের রিমান্ড শুনানি শেষে বিচারক শুনানি শেষে প্রত্যেককে পাঁচদিনের করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গত ১৩ মার্চ নাটোর সদর উপজেলার দিঘাপতিয়া এলাকার দুবাই প্রবাসী ইকবাল শিকদারের এর বাড়িতে রাতভর অভিযান চালিয়ে পুলিশ জঙ্গি সন্দেহে ওই চারজনকে আটক করে।
ঐতিহ্য নষ্ট করে নতুন স্থাপনা না করার অনুরোধ
নাটোরের উত্তরা গণভবনের ট্রেজারি ভবনে রাজ-রাজদের ব্যবহৃত বিভিন্ন সামগ্রী ও নিদর্শন প্রদর্শনের জন্য প্রতিষ্ঠা করা সংগ্রহশালা নিয়ে জেলা প্রশাসন এক প্রেস ব্রিফিং করেছে। বুধবার জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এই প্রেস ব্রিফিং এ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, রাজবাড়িটিকে আরও আকর্ষণীয় এবং দর্শক নন্দিত করতে নতুন ভবন, বাগান ও লেক সংস্কারের পাশাপাশি নতুন কিছু স্থাপনা পরিকল্পনা তুলে ধরেন। এ সময় উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীদের অনেকেই দিঘাপতিয়ার রাজবাড়ির এতিহ্য নষ্ট না করে সেখানে নতুন কোন স্থাপনা না করা জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন। গণমাধ্যম কর্মীরা বলেন, প্রাচীন এই রাজবাড়িটি রাজ-রাজদের স্মৃতি ধারণ করে আছে তাই এখানে নতুন করে স্থাপনা তৈরি করা ঠিক হবে না। জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুনের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রাজ্জাকুল ইসলাম, এনডিসি অদিন্দ্র কমুার, নাটোর প্রেসক্লাবের সভাপতি জালাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আল মামুন, সাংবাদিক রনেন রায় এবং এস এম মঞ্জুরুল হাসান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ