ঢাকা, শুক্রবার 16 March 2018, ২ চৈত্র ১৪২৪, ২৭ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা

 

খুলনা অফিস : বাগেরহাটের মোল্লাহাটে স্ত্রী সুমাইয়া আক্তার নিরমাকে (২৩)  পিটিয়ে হত্যার পর আত্মহত্যা করেছে স্বামী ইমরান বিশ্বাস (২৭) । গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে নিজ ঘরে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করে ইমরান। এর আগে বুধবার রাতে স্ত্রী সুমাইয়াকে পিটিয়ে হত্যা করে সে। নিহত সুমাইয়া মোল্লাহাট উপজেলার কোদালিয়া ইউনিয়নের সরোষপুর গ্রামের আবুবকর শেখের মেয়ে এবং ইমরান একই গ্রামের জাফর বিশ্বাসের ছেলে। ইমরান একজন দিনমুজুর।

নিহত সুমাইয়ার চাচি হেনা বেগম জানান, সাত মাস আগে একই গ্রামের ইমরানের সঙ্গে পারিবারিকভাবে সুমাইয়ার বিয়ে হয়। বুধবার বিকেলে মেয়ে সুমাইয়া স্বামীসহ নিজের বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর বাড়ি যায়। এদিনই রাত ১১টার দিকে সুমাইয়ার মৃত্যুর খবর শুনে তারা ইমরানের বাড়িতে যায়। তখন ইমরান বাড়িতে ছিল।  ইমরানের সঙ্গে সুমাইয়ার কোন রকম ঝগড়া ছিল না। তবে বিয়ের সময় ইমরানকে একটি ভ্যান গাড়ি দেয়ার কথা ছিল। সেটা দিতে বিলম্ব হওয়ায় ইমরান সুমাইয়াকে হত্যা করতে পারে। তিনি আরও জানান, বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ আসার খবর শুনে ইমরান ঘরে গিয়ে নিজেই আত্মহত্যা করে।

মোল্লাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সাইদ মো. খায়রুল আনাম জানান, বুধবার সন্ধ্যায় ইমরান পারিবারিক কলহের জেরে তার স্ত্রী সুমাইয়া আক্তারকে মারধর করে। এতে সুমাইয়া অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে পার্শ্ববর্তী গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। কিন্তু ইমরান তাকে খুলনায় না নিয়ে বাড়িতে নিয়ে আসলে ফেরার পথে সে মারা যায়। স্ত্রী মারা যাওয়ায় স্বামী ইমরান বৃহস্পতিবার সকালে ঘরের আড়ার সঙ্গে রশি দিয়ে ঝুলে আত্মহত্যা করে।

তিনি আরও বলেন, ওই দম্পতির লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। নিহত গৃহবধূর গলায়, ঘাড়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। দুই পরিবারের কেউ কোনও অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। থানায় সুরতহাল শেষে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, তার হাতে স্ত্রীর মারা যাওয়ায় ইমরান পুলিশের হাত থেকে রেহাই পেতে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ