ঢাকা, রোববার 18 March 2018, ৪ চৈত্র ১৪২৪, ২৯ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এতিমের প্রতিপালনকারী বেহেস্তে নবীজির সাথে থাকবে-জৈনপুরী পীরসাহেব কেবলা

সম্প্রতি ৩/১৪, ব্লক-জি, লালমাটিয়া, কাজী নজরুল ইসলাম রোড, মোহাম্মদপুর, ঢাকাস্থ আদর্শ ইসলামী মিশন এতিম খানা ও জৈনপুরী খানকা শরীফ কমপ্লেক্সের উদ্যোগে এক খতম ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। 

অনুষ্ঠানে বয়ান ও দোয়া করেন আমীরে সত্যের ডাক, খাঁটি দ্বীন ও হক কথা বর্ণনাকারী, আল্লামা সৈয়দ মাহ্বুবুর রহমান জৈনপুরী পীরসাহেব কেবলা।

প্রধান অতিথি ছিলেন অত্র কমপ্লেক্সের আজীবন সদস্য এতিমের দরদী বিশিষ্ঠ সমাজ সেবক মোঃ খোরশেদ আলম চৌধুরী। খতম শরীফ পাঠ করেন এতিম খানা ও হেফজ খানার ছাত্র ছাত্রীবৃন্দ। বয়ানে পীরসাহেব কেবলা বলেন, আজ দেশে হাহাকার চলছে, সর্বাদিক দিয়া মানুষ দিশেহারা, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে। কেহ টাকার পাহাড় গড়ছে আর কেহ না খেয়ে মরছে। শেয়ার বাজার সম্পূর্ণ ধ্বংসের পথে। মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নাই। অহরহ গুম, খুন, ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। যাহা আমরা জীবনে কোনদিন দেখি নাই। দেশ ও সমাজের এই বিভীষিকাময় পরিস্থিতি দেখিয়া নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করা জঘন্য অপরাধ মনে করিয়া জনগণ ও দেশের মঙ্গলার্থে এবং আল্লাহর গজব থেকে বাঁচার মানষে কিছু হক কথা না বলিয়া পারলাম না। আমি একজন নির্দলীয়, নিরপেক্ষ খাঁটি সমাজ সেবক ও দীন প্রচারক হিসাবে জনগণের হিতার্থে এবং সরকারের সুদৃষ্টি আকর্ষণার্থে বলতে চাই যে, আমি একটি এতিমখানার প্রতিষ্ঠাতা, পূর্বে চাউলের দাম, শাক সবজি ও খাদ্য সামগ্রীর মূল্য কম থাকায় নির্বিগ্নে এতিম খানা, লিল্লাহ্ বোডিং ইত্যাদি মানব সেবামূলক কাজ চালাইয়া আসিয়াছি। কিন্তু বিগত কয়েক বছর যাবৎ মহা কষ্টের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান চালাইয়া আসিতেছি। বর্তমানে প্রতিষ্ঠান লক্ষ লক্ষ টাকার ঋণগ্রস্ত। লিল্লাহ বোডিং বন্ধ হয়ে যাওয়ার পথে। কারণ এক দিকে সরকারি ও বিদেশী কোন সাহায্য নাই অপর দিকে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, ব্যবসা বাণিজ্যে ঘাটতি, সামান্য শেয়ারছিল তাহা সম্পূর্ণ ধ্বংস প্রায়। তাই অতি সত্তর মানুষের দুঃখ দুর্দশা লাগবার্থে কর্তৃপক্ষকে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের ঊর্ধ্বগতি বিশেষ করিয়া খাদ্যদ্রব্যের মূল্য হ্রাস করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য সরাসরি সরকারের সু-দৃষ্টি আকর্ষণ করিতেছি। অন্যর্থায় ক্রমান্বয়ে দেশের অবস্থা ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে এগিয়ে যাবে। দেশের আপামর জন সাধারণ বাস্তববাদী, গল্পে বিশ্বাস নহে। নদীতে পানি নাই, পুকুরে ও ঘিরে মাছ নাই, বাজারে বিশুদ্ধ খাদ্য নাই, পেটে ভাত নাই, বিদ্যালয়ে শিক্ষা নাই, পূর্বে ছেলে-মেয়েরা যেইভাবে নির্বিগ্নে লিখা-পড়া করত, শৃজনশীল ও প্রশ্ন ফাঁস ও নিত্য নতুন পরিবর্তন পরিবর্ধন, ভর্তি পদ্ধতির ডিজিটাল করণ ইত্যাদি দ্বারা শিক্ষার্থীদেরকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। ফলে মেধাবী ছেলে-মেয়েরা ক্ষতিগ্রস্ত ও নিরাশ হচ্ছে।

অবশেষে সাহায্য বঞ্চিত, সমাজের অবহেলিত নারীজাতির সেবায় নিবেদিত তাহার প্রতিষ্ঠিত মহিলা কামিল মাদরাসা ও এতিম খানায় সাহায্যের হাত নিয়া এগিয়ে আসার জন্য বিত্তবান ও দানকারীদেরকে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানান। হাদীস শরীফের উদ্ধৃতি দিয়া বলেন প্রিয় নবীজি এরশাদ ফরমাইয়াছেন “আনা ওয়া কাফেলুল ইয়াতীম কাহাতাইনে ফিল জান্নাহ্”। অর্থাৎ নবীজি বলেন আমি এবং ইয়াতিমের প্রতিপালন (সাহায্য) কারী বেহেস্তে আমার হাতের এই দুইটা আঙ্গুল যেমন পাশাপাশি (এক সাথে) রহিয়াছে তেমন এক সাথে থাকবে। অর্থাৎ এতিমের দরদী বেহেস্তে নবীজি (সাঃ) এর সাথে এক সঙ্গে থাকবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ