ঢাকা, সোমবার 19 March 2018, ৫ চৈত্র ১৪২৪, ৩০ জমদিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ইন্দুরকানীতে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তাদের নাম ভাঙ্গিয়ে সরকারি গাছ বিক্রির অভিযোগ

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) সংবাদদাতা : ইন্দুরকানীতে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তাদের নাম ভাঙ্গিয়ে বেড়িঁবাধের সরকারি গাছ বিক্রির অভিযোগ। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতির অজুহাতে বালিপাড়া পানি ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন ওই কমিটির অন্যান্য সদস্যদের না জানিয়ে গোপনে একের পর এক সরকারি গাছ বিক্রি করে যাচ্ছে।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়নের পূর্ব চরবলেশ্বর ছোরের খালের উপর নির্মিত স্লুইস গেটের দু’পাশে এবং কচা নদী সংলগ্ন পার্শবর্তী বেঁড়িবাধের পাশে রেইন্ট্রি, চম্বল, মেহেগনি সহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ১৭ থেকে ১৮টি গাছ রয়েছে। গত ৩ মাস আগে এখানে বেঁড়িবাধের রাস্তা নির্মাণ করার সময় ২টি চম্বল ও মেহেগনি গাছ বিক্রি করে। এর আগে  তিনি স্লুইস গেটের উত্তর পাশের রেইন্ট্রি, চম্বল ও একটি গুলব গাছ বিক্রি করে। যার বাজার মূল্য ছিল প্রায় অর্ধ লক্ষ টাকা। আর এ পুরো টাকাই তিনি কমিটির অন্যান্য সদস্যদের না জানিয়ে একা নিজেই পকেটস্থ করেছেন। এছাড়া সম্প্রতি স্লুইস গেটের উত্তর পাশ থেকে দুটি চম্বল গাছ স্থানীয় বাবুল নামে এক ব্যক্তির কাছে অভিযুক্ত দেলায়ার হোসেন বিক্রি করেন। স্থানীয় পানি ব্যবস্থাপনা সদস্য আব্দুল বারেক হাওলাদার জানান, দেলোয়ার হোসেন ফকির যে কমিটির সেক্রেটারি ঐ কমিটির আমি একজন সদস্য।
অথচ আমাদের কোন সদস্যকে না জানিয়ে এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে তিনি  গোপনে  পানি উন্নয়ন বোর্ডের ২টি গাছ কেটে বিক্রি করেছেন। এর আগেও তিনি চরবলেশ্বর ছোরের খালের স্লুইস গেট এলাকা থেকে ৫টি সরকারি গাছ বিক্রি করেছে। ৪ নং চরবলেশ্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম হাওলাদার বলেন, গাছ বিক্রির বিষয়ে আমাদের আগে তিনি কিছুই জানাননি।
এ ব্যাপারে বালিপাড়া ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বাবুল বলেন, গাছ বিক্রি করার ব্যাপারে আমাদের পরিষদকে কোন অবহিত করা হয়নি। অভিযুক্ত দেলোয়ার হোসেন ফকির জানান, কৃষ্ণ ভক্তের হয়ে আমি ঐ গাছ বিক্রি করেছি। গাছ বিক্রির টাকা তাকে দেয়া হবে বলে এড়িয়ে যান। এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা কৃষ্ণ ভক্তের স্ত্রী জানান, আমরা কাউকে দিয়ে গাছ বিক্রি করাইনি এবং এবিষয়ে আমরা কিছু জানিনা। গাছ বিক্রির কোন টাকা আমরা পাইনি।
পিরোজপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সাইদ আহম্মদ জানান, আমরা কাউকে গাছ বিক্রির অনুমতি দেইনি। কেহ অনুমতি ছাড়া গাছ বিক্রি করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ