ঢাকা, মঙ্গলবার 20 March 2018, ৬ চৈত্র ১৪২৪, ১ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

তিন দিনেও মংলা-ঘষিয়াখালী নৌরুটে ডুবে যাওয়া কার্গোটি উদ্ধার হয়নি

খুলনা অফিস : গত তিন দিনেও মংলা-ঘষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ-প্রটোকলভুক্ত চ্যানেলে ডুবে যাওয়া এমভি মদিনা মুনাওয়ারা-১ নামের কার্গোটি উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।
মংলার সেনাকল্যাণ সংস্থার সিমেন্ট মিলস থেকে দুই হাজার ব্যাগ সিমেন্ট নিয়ে পটুয়াখালীর লেবুখালীতে শেখ হাসিনা ক্যান্টনমেন্টে যাওয়ার পথে ১৭ মার্চ বিকেলে চ্যানেলের বাগেরহাটের রামপাল খেয়াঘাটসংলগ্ন এলাকায় কার্গোটি ডুবে যায়।
বিআইডব্লিউটিএ মংলার নৌ-সংরক্ষণ বিভাগ প্রধান পাইলট মো. শাহ আলম জানান, আন্তর্জাতিক এই নৌরুটের নাব্যতা রক্ষায় দ্রুত ডুবে যাওয়া কার্গোটি উদ্ধার করা প্রয়োজন। তবে কার্গো ডুবির ফলে আপাতত আন্তর্জাতিক এ চ্যালেলের নৌচলাচলে কোনো সমস্যা হচ্ছে না। বিষয়টির নিয়ে  সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হচ্ছে। নিয়মানুযায়ী ১৫ দিনের সময় বেঁধে দিয়ে কার্গোটি উদ্ধারে মালিক পক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে। যদি মালিক পক্ষ উদ্ধারে ব্যর্থ হয়, তাহলে কার্গোটিকে নিলামে দিয়ে তা উদ্ধার করা হবে।
বিআইডব্লিউটিএ খুলনা বিভাগের যুগ্ম পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) এস এম সানোয়ার হোসেন জানান, যে পয়েন্টে কার্গোটি ডুবে গেছে, সেখানে বয়া দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে, যাতে এই আন্তর্জাতিক নৌরুট দিয়ে চলাচলকারীদের কোনো জাহাজের সমস্যায় পড়তে না হয়।  গুরুত্বপূর্ণ এই চ্যানেল থেকে কার্গোটি উদ্ধারের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।  মালিক পক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে ডুবে যাওয়া কার্গোটি উদ্ধার কাজ সম্ভব হবে।
ডুবে যাওয়া কার্গোটির মালিক মো. রফিকুল ইসলাম জানান, সোমবার বিকেল পর্যন্ত কার্গোটি উদ্ধারের জন্য তিনি বিআইডব্লিউটিএর কোনো চিঠি বা নির্দেশনা পাননি। ডুবে যাওয়া কার্গোটি উদ্ধারের জন্য তিনি বিআইডব্লিউটিএর সহায়তার দাবি জানান। তবে বিআইডব্লিউটিএ এগিয়ে না এলে ডুবে যাওয়া কার্গো উদ্ধার কাজ শুরু করবেন বলে জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ