ঢাকা, বৃহস্পতিবার 22 March 2018, ৮ চৈত্র ১৪২৪, ৩ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়ার সাজা বাড়াতে রোববার আপিল করবে দুদক

স্টাফ রিপোর্টার : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সাজা বাড়াতে হাইকোর্টে আপিলের প্রস্তুতি নিচ্ছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আগামী রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই আবেদন করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। বিষয়টি নিশ্চিত করে গতকাল বুধবার সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আপিলের প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়ে। আশা করছি আগামী রোববার আপিল দাখিল করতে পারবো। এর আগে সোমবার খালেদা জিয়ার সাজা বাড়াতে আপিলের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। এদিন দুদক ও রাষ্ট্রের আবেদনের প্রেক্ষিতে খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন ৮ মে পর্যন্ত স্থগিত করেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে এই জামিনের বিরুদ্ধে আপিলের অনুমতিও দেয়া হয়।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের  কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান। একই মামলায় খালেদা জিয়ার বড় ছেলে ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অন্য পাঁচ আসামীকে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে প্রত্যেককে অর্থদণ্ডও দেয়া হয়।
এদিন বিচারক আদালতে বলেন, খালেদা জিয়ার বয়স, শারীরিক অবস্থা ও সামাজিক মর্যাদা বিবেচনা করে তাকে অন্যদের চেয়ে কম সাজা দেয়া হয়েছে।  রায় ঘোষণার পর খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই থেকেই তিনি কারাবন্দী রয়েছেন।
আদালত দণ্ডবিধির ৪০৯ ও ১০৯ ধারায় তারেক রহমান, কাজী সালিমুল হক কামাল, শরফুদ্দিন আহমেদ, মমিনুর রহমান ও ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকীকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেন। একইসঙ্গে প্রত্যেককে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা জরিমানা করা হয়। আদালত রায়ে বলেন, খালেদা জিয়ার বয়স, তার শারীরিক অবস্থা ও সামাজিক মর্যাদা বিবেচনা করে তাকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হলো।
তবে এই রায়ের প্রতিক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার আইনজীবী আবদুর রেজাক খান বলেন, ৭৩ বছর বয়স্ক মহিলাকে কারাদ- দেয়ার ঘটনা নজিরবিহীন। মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এতিম তহবিলের ব্যাংক হিসাব খুলেছেন তার সচিব। কিন্তু এ ধরনের কোনো নির্দেশনার দলিল নেই। শুধু একজন সাক্ষী এটা বলেছেন। এর ওপর ভিত্তি করে সাজা দেয়া উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।
এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, প্রভাবিত রায়। খালেদা জিয়া কোনো অন্যায় করেননি। কোনো টাকা আত্মসাৎ করেননি। এমন কোনো প্রমাণ কেউ (সাক্ষীরা) দিতেও পারেননি। তার পরও অবৈধভাবে সাজা দেয়া হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ