ঢাকা, বৃহস্পতিবার 22 March 2018, ৮ চৈত্র ১৪২৪, ৩ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

স্বামীকে তালাক দেয়ার পরও-

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে প্রাক্তন স্বামীর বিরুদ্ধে রায়হানা আক্তার (২২) নামে এক নারীর দু’পায়ের রগ কেটে ফেলার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে রায়হানার মা হাজেরা খাতুন বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় রায়হানার তালাক দেওয়া স্বামীসহ তিনজনকে আসামি করা হয়েছে। আহত রায়হানা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন  আছেন।
মামলার এজহারে বলা হয়, গত চার বছর আগে সরাইল উপজেলার শাহ্বাজপুর গ্রামের ইসমাইল মিয়ার মেয়ে রায়হানা আক্তারের সাথে একই গ্রামের মরহুম মহব্বত আলীর ছেলে কামরুল মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের পর রায়হানার পরিবারের লোকজন জানতে পারেন কামরুল মাদকাসক্ত। সে প্রায়ই যৌতুকের টাকার জন্য রায়হানাকে  নির্যাতন করতো। কামরুল পাঁচ লাখা টাকা যৌতুক দাবি করে রায়হানার পরিবারের কাছে। কিন্তু টাকা দিতে না পারায় রায়হানার উপর শারীরিক নির্যাতন আরো বেড়ে যায়। কামরুলের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে গত সাত মাস আগে রায়হানা কামরুলকে তালাক দেন। এরপর  সে স্থানীয় শাহ্বাজপুর হাজীপাড়া মহিলা মাদ্রাসায় ভর্তি হয়। তবে তালাকের পরও রায়হানার পিছু ছাড়েনি কামরুল। মাদারাসায় আসা-যাওয়ার পথে রায়হানাকে উত্যক্ত ও ভয়ভীতি দেখাতো।
গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে রায়হানা মাদারাসায় যাওয়ার পথে স্থানীয় হাবলিপাড়া মস্জিদের সামনে কামরুল ও তার সহযোগীরা তাকে এলোপাথাড়ি ছুরিকাঘাত করে। একপর্যায়ে তারা রায়হানার দু’পায়ের রগ কেটে দেয়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় রায়হানার মা সরাইল থানায় কামরুলসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। তবে এখনো পুলিশ মামলার কোন আসামীকে  গ্রেপ্তার করতে পারেনি। রায়হানার মা ও মামলার বাদী হাজেরা খাতুন বলেন, কামরুলের যন্ত্রণায় আমার মেয়ে সংসার ত্যাগ করেছে। এর পর আমার মেয়েকে শান্তি দিচ্ছে না সে। আমি আমার মেয়ের উপর হামলার ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ