ঢাকা, শনিবার 24 March 2018, ১০ চৈত্র ১৪২৪, ৫ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বগুড়ায় মা ও কিশোরীর মাথা ন্যাড়া করার আলোচিত কাউন্সিলর রুমকি বরখাস্ত

বগুড়া অফিস: বগুড়ায় ‘ধর্ষক’ ভগ্নিপতিকে বাঁচাতে মাসহ এক কিশোরীকে ক্যাডার দিয়ে বাড়িতে তুলে এনে শ্লীলতাহানী, নির্যাতন ও দু’জনের মাথা ন্যাড়া করে দেয়া মামলার আসামী বগুড়া পৌরসভার ২ নম্বর সংরক্ষিত এলাকার কাউন্সিলর মারজিয়া হাসান রুমকিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব আবদুর রউফ মিয়া স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯এর ৩১এর উপধারা (১) এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ সিদ্ধান্ত নেন। আদেশে বলা হয়েছে, “বগুড়া শহরের চকসুত্রাপুর এলাকার জাহিদ হাসানের স্ত্রী ও বগুড়া পৌরসভার ২ নম্বর সংরক্ষিত আসনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর মারজিয়া হাসান রুমকিসহ ১০ জন এবং অজ্ঞাত কয়েকজনের বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় গত বছরের ২৯ জুলাই পেনাল কোর্ডের বিভিন্ন ধারায় (নং-১৩০, জিআর-৮২৪/১৭) মামলা হয়। অভিযোগপত্র (নং-১০৮৭) অনুসারে প্রধান আসামী তুফান সরকার গত বছরের ১৭ জুলাই সকাল সাড়ে ৮টায় কিশোরীকে চকসুত্রাপুরের বাড়িতে তুলে এনে ধর্ষণ করে। এ ঘটনা জানাজানি হলে আসামী মারজিয়া হাসান রুমকির হুকুমে আসামীরা ২৮ জুলাই বেলা পৌণে ৩টার দিকে বাদিনী ও তার মেয়েকে অপহরণ করে রুমকির বাসায় নিয়ে আসে। রুমকি ও অন্যরা প্রথমে কাচি দিয়ে মা ও মেয়ের মাথার চুল কেটে দেয়। এরপর নাপিত এনে ন্যাড়া করে দেয়। মারপিট করে দু’জনকে জখম করে। প্রধান আসামী তুফান সরকার কিশোরীকে ধর্ষণ ও মাসহ তাকে নিজ বাড়ি থেকে অপহরণ করে রুমকির বাড়িতে নিয়ে আটক করে মারপিট, যৌণপীড়ন ও চুল কেটে মানহানিকর ঘটনা তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। মামলার তদন্ত শেষে প্রাথমিক সত্যতার ভিত্তিতে গত ৯ অক্টোবর দ্বিতীয় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল ও তা ২০ ডিসেম্বর গৃহিত হয়েছে। জেলা প্রশাসকের পত্রে জানা গেছে, রুমকি জেলে আছেন। এ অবস্থায় স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯এর ৩১এর উপধারা (১) অনুসারে এবং নির্ধারিত কর্তৃপক্ষের বিবেচনায় কাউন্সিলর কর্তৃক ক্ষমতা প্রয়োগ পৌরসভার স্বার্থের পরিপন্থী বা প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণে সমীচিন নয়। এছাড়া মারজিয়া হাসান রুমকি কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করলে পৌরসভায় কর্মরত কর্মকর্তা, কর্মচারি এবং সেবাগ্রহণকারী সাধারণ নাগরিকদের মধ্যে আতঙ্ক ও ভীতির সঞ্চার হতে পারে। সাক্ষীরা প্রভাবিত হবার আশংকা এবং কাউন্সিলরের ক্ষমতা প্রয়োগ পৌরসভার স্বার্থের পরিপন্থি এবং জনপ্রতিনিধি হিসেবে জনসেবায় নিয়োজিত থাকা প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণ থেকে সমীচিন নয়; তাই বগুড়া পৌরসভার ২ নম্বর সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মারজিয়া হাসান রুমকিকে স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইনে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।”
বগুড়া পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট একেএম মাহবুবর রহমান জানান, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব আবদুর রউফ মিয়া স্বাক্ষরিত ৮ মার্চের সাময়িক বরখাস্তের চিঠি ১৮ মার্চ হাতে পেয়েছেন। তিনি আরো জানান, কাউন্সিলর মারজিয়া হাসান রুমকি গ্রেফতার হবার পরপরই অন্য এলাকার কাউন্সিলরকে তার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। বগুড়ার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক সুফিয়া নাজিম জানান, মামলার চার্জশিট গৃহিত হবার পরপরই মন্ত্রণালয়ে রিপোর্ট করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ