ঢাকা, শনিবার 24 March 2018, ১০ চৈত্র ১৪২৪, ৫ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মধ্যপ্রাচ্যে রফতানিকৃত মার্কিন ও ইউরোপীয় অস্ত্রের ৯৮ শতাংশই কিনেছে সৌদী

২৩ মার্চ : ২০১৩ থেকে ২০১৭ সাল সময়সীমায় অস্ত্র আমদানি দ্বিগুণ করেছে মধ্যপ্রাচ্য। ওই ৫ বছরে বিশ্বে মোট রফতানিকৃত অস্ত্রের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ গেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে। ধারাবাহিক অস্থিতিশীলতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘন সত্ত্বেও সেখানে অস্ত্র বিক্রি অব্যাহত রেখেছে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো। এতে মানবাধিকার নিয়ে তাদের অবস্থান প্রশ্নের মুখে পড়েছে। মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর মোট রফতানিকৃত অস্ত্রের ৯৮ শতাংশ কিনেছে সৌদি আরব। সেখানে অস্ত্র রফতানির প্রশ্নে এরইমধ্যে প্রশ্নের মুখে পড়েছেন কানাডিয়ান প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। ৫ বছরে মধ্যপ্রাচ্যে অস্ত্র আমদানি দ্বিগুণ হওয়ায় অস্থিতিশীল মধ্যপ্রাচ্যে সংঘাতের ঝুঁকি আরও বেড়ে গেছে।
সংঘাত ও সশস্ত্রীকরণসংক্রান্ত আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউট (এসআইপিআরই)-এর সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিগত ৫ বছরে মধ্যপ্রাচ্যের বেশিরভাগ দেশই সরাসরি সংঘর্ষে লিপ্ত ছিল। ওই অঞ্চলের দেশগুলোতে অস্ত্র আমদানি বেড়েছে ১০৩ শতাংশ। ২০১৩-২০১৭ মেয়াদে রফতানি হওয়া মোট অস্ত্র ৩২ শতাংশেরই আমদানিকারক মধ্যপ্রাচ্য।
২০১৩-২০১৭ মেয়াদে মধ্যপ্রাচ্যে অস্ত্র আমদানির ক্ষেত্রে শীর্ষস্থান সৌদি আরবের। পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয় বৃহত্তম অস্ত্র আমদানিকারক দেশ তারা। ওই মেয়াদকালে দেশটির অস্ত্র আমদানি বেড়েছে ২২৫ শতাংশ। একই সময়ে তৃতীয় বৃহত্তম অস্ত্র আমদানিকারক দেশ মিসরের অস্ত্র আমদানির পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে ২১৫ শতাংশ। সংযুক্ত আরব আমিরাত ২০১৩-২০১৭ মেয়াদে চতুর্থ বৃহত্তম অস্ত্র আমদানিকারক দেশ হিসবে চিহ্নিত হয়েছে। আর অস্ত্র আমদানিতে বিংশতম স্থানে থাকা কাতার যেমন অস্ত্র আমদানি বাড়িয়েছে, তেমন ভবিষ্যৎ সরবরাহ বাড়াতে স্বাক্ষর করেছে বেশ কয়েকটি নতুন অস্ত্রচুক্তি।
এসআইপিআরআই আর্মস অ্যান্ড মিলিটারি এক্সপেন্ডিচার প্রোগ্রামের জ্যেষ্ঠ গবেষক পিটার উইজম্যান বলেছেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপকভাবে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ায় মানবাধিকার রক্ষায় অস্ত্র রফতানি নিয়ন্ত্রণ করার দাবিতে পশ্চিম ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকায় রাজনৈতিক বিতর্ক শুরু হয়েছে। তারপরও যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো মধ্যপ্রাচ্যে অস্ত্র রফতানি অব্যাহত রেখেছে এবং যার ৯৮ শতাংশই গেছে সৌদি আরবে।
ইউরোনিউজকে পিটার উইজম্যান বলেছেন, ‘মিসর একাধিক পক্ষের বিরুদ্ধে সংঘর্ষে লিপ্ত। এমনকি মিসরের অভ্যন্তরে সিনাইতেও সংঘর্ষ চলছে। আমদানি করা অস্ত্র খুব দ্রুতই সেখানে ব্যবহৃত হয়। সিনাইয়ের পাশাপাশি ইসলামিক স্টেটকে নিয়ে বড় ঝামেলা রয়েছে। তাছাড়াও আছে লিবিয়া। সেখানেও মিসরকে আমদানি করা যুদ্ধাস্ত্র ব্যবহার করতে দেখা গেছে।’ আর এসআইপিআরআইয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি জ্যান এলিয়াসনের বক্তব্য উদ্ধৃত হয়েছে সংস্থাটির ওয়েবসাইটে, ‘এভাবে অস্ত্র সরবরাহ বাড়লে তা আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার ওপর প্রভাব ফেলবে। এটি আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে সমস্যাটির সমাধানে দরকার কার্যকর অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তির মতো আন্তর্জাতিকভাবে নেয়া পদক্ষেপ।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ