ঢাকা, শনিবার 24 March 2018, ১০ চৈত্র ১৪২৪, ৫ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নিত্যপণ্যের বাজারে অস্থিরতা

স্টাফ রিপোর্টার : নিত্যপণ্যের বাজারে অস্থিরতা চলছেই। অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে বিভিন্ন জিনিসপত্রের দাম। নতুন করে বাড়ছে সবজির দাম। সেই সাথে পাল্লা দিয়ে মাছ গোশতের দামও বেড়েছে। সপ্তাহের ব্যবধানে সকল প্রকার সবজিতে বেড়েছে ৫ থেকে ১০ টাকা, মাছের দাম বেড়েছে ৩০ থেকে ৫০ টাকা এবং গোশতের দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা।
গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে দেখা গেছে, পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ৪০ টাকা কেজি। অথচ গত সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে। ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া মুলা শুক্রবার বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা দরে। ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি হওয়া করলা বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা কেজি। এছাড়া বেগুন (কালো) ৪০ টাকা ও বেগুন (সাদা) ৬০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা ও ঢেড়শ ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
এদিকে চালের বাজারে মোটা চালের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ২ থেকে ৩ টাকা। কিন্তু চিকন চালের দাম রয়েছে আগের মতই। বাজারে স্বর্ণা চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৭ টাকা কেজি দরে। যার গত সপ্তাহের বাজার মূল্য ছিল ৪৩ থেকে ৪৫ টাকা। পায়জাম বিক্রি হচ্ছে ৪৮ টাকা, বিআর২৮ কেজি প্রতি ৫০ থেকে ৫২ টাকা কেজি। এছাড়া ভাল মানের নাজিরশাইল ৬৫ টাকা, ইন্ডিয়ান নাজিরশাইল ৬২ টাকা এবং সাধারণ মানের নাজিরশাইল ৫২ টাকায় বেচাকেনা হচ্ছে। এদিকে পোলাও চাল ৮৫ টাকা ও বিরুই ( লাল) চাল ৬৫ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।
মসলা বাজারে কাঁচমরিচ বিক্রি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, দেশী পেঁয়াজ ৫০ টাকা, আমদানি করা পেঁয়াজ ৪৫, আদা ১২০ টাকা এবং রসুন মানভেদে ৮০ থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়।
এছাড়া মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায় ছোট মাছের চেয়ে বড় মাছের আধিপত্যই বেশি। ৬ কেজির অধিক ওজনের প্রতি কেজি রুই মাছ ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা, একই ওজনের কাতল ৫০০ টাকা, পাঙ্গাশ ১৫০ থেকে ২০০, গলদা চিংড়ি ৬০০ থকে ৮০০ টাকা এবং আকারভেদে প্রতিটি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা দরে।
সপ্তাহের ব্যবধানে গোশতের দাম বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। গরুর গোশত বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা, খাসি ৮০০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি ১৪০ টাকা এবং পাকিস্তানি লাল মুরগি ১৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ