ঢাকা, সোমবার 26 March 2018, ১২ চৈত্র ১৪২৪, ৭ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এরশাদকে নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করে লাভ নেই -ওবায়দুল কাদের

গতকাল রোববার রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি) বিশেষ যাত্রী সেবার জন্য উপসার্ভিস, উত্তরা সার্কুলার সার্ভিস ও অফিস যাত্রী সার্ভিসের উদ্বোধনকালে মিডিয়া ব্রিফিং করেন সড়ক যোগাযোগ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : জাতিসংঘ বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জনের ঘোষণার পরই জার্মান গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বাংলাদেশকে স্বৈরাচারী দেশের তালিকাভুক্ত করায় তাদের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
গতকাল রোববার সকালে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে বিআরটিসির বাস সার্ভিস উদ্বোধনকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। সম্প্রতি জার্মানির একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বেরটেলসম্যান স্টিফটুং এর প্রকাশিত এক গবেষণায় বিশ্বের নতুন পাঁচ স্বৈরাচারী দেশের তালিকায় নাম রয়েছে বাংলাদেশের।
ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম সরকারের কথার সঙ্গে সহমত প্রকাশ করে একই কথা বলবো, বাংলাদেশকে জাতিসংঘ যখন সল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের তালিকায় তালিকাভুক্ত করেছে, ঠিক এমন সময়েই জার্মান গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি আমাদের স্বৈরাচারী দেশ হিসেবে চিহ্নিত করছে কেন? আমি তাদের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন রাখতে চাই।
ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বৈধ নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল হিসেবে শনিবার জাতীয় পার্টি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করেছিল। এ দেশে এ সকল বিষয় নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করে লাভ নেই।’
অবৈধ ক্ষমতা দখলের দিন জাতীয় পার্টির মহাসমাবেশ করে উদযাপনকে কীভাবে দেখছেন-জানতে চাইলে কাদের বলেন, ‘তারা তো নিবন্ধিত, বৈধ রাজনৈতিক দল হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। এ দেশে এ সকল বিষয় নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করে লাভ নেই।’
‘স্বৈরাচারী শক্তি হিসেবে আমরা যাকে বলি, পতনের কয়েক মাসের মধ্যে জাতীয় নির্বাচনে এরশাদ সাহেব পাঁচ সিটে (১৯৯১ সালের নির্বাচনে রংপুরের পাঁচটি আসনে জিতেছিলেন এরশাদ) বিজয়ী হয়েছিলেন।’
‘তারা তো নির্বাচন করে আসছে, এখন সংসদে বিরোধী দল হিসেবে আছে। বৈধ রাজনৈতিক দল হিসেবে তাদের সভা-সমাবেশ নতুন কিছু নয়। এখন সোহরাওয়ার্দী করার পর কেন প্রশ্ন আসবে?’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ