ঢাকা, বুধবার 21 November 2018, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের তাণ্ডব

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

মাদক ও অস্ত্রসহ দুই ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করার প্রতিবাদে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ব্যাপক ভাংচুর, হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটানো সহ তাণ্ডবলীলা চালিয়েছে সরকার সমর্থক ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ।এ সময় তারা বিশ্ববিদ্যালয়েল প্রধান ফটকের কাছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালেও ঢিল ছোড়ে বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য।

মঙ্গলবার (২৭ মার্চ) রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (রাত সাড়ে ১০টা) ক্যাম্পাসে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। ইবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রতন শেখ ও উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী এ খবর নিশ্চিত করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, সন্ধ্যা ৬টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে লালন শাহ হলে অভিযান চালায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি। এসময় হলের ১২৮ নং রুম থেকে ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিনের গ্রুপের কর্মী ও লোক প্রশাসন বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী আকাশ, বহিরাগত দানিয়েলকে মাদক ও অস্ত্রসহ আটক করা হয়। ওই সময় সেখান থেকে তরিকুল নামের আরেক বহিরাগত পালিয়ে যায়। এর কিছুক্ষণ পরই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় এবং অর্ধশতাধিক হাতবোমার বিষ্ফোরণ ঘটায়।

এ ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে ইবি থানার ওসি রতন শেখ জানিয়েছেন।

এ ঘটনার আগে মঙ্গলবার সকালে স্বাধীনতা দিবসের বিশেষ খাবার না পাওয়ার অজুহাতে  লালন শাহ হলের প্রভোস্ট অফিসে গিয়ে রেজিস্ট্রার খাতা, ওয়াইফাই রাউটারসহ বিভিন্ন কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে আসে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিন ও তার অনুসারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সন্ধ্যায় লালন শাহ হলে অভিযান চালিয়ে ১০ বোতল ফেনসিডিল ও কয়েকটি চাপাতিসহ ছাত্রলীগকর্মী আকাশ এবং দানিয়েল নামের এক বহিরাগতকে আটক করে প্রক্টরিয়াল বডি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ছাত্রলীগ কর্মীরা পরে প্রক্টরিয়াল বডির কাছ থেকে আকাশকে ছিনিয়ে নিয়ে আসে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদ্দাম হোসেন হল ও লালন শাহ হলের সামনে অবস্থান নেয়।

পরে দুই হলের নেতা-কর্মীরা একজোট হয়ে প্রক্টর অধ্যাপক মাহবুবর রহমানের পদত্যাগের দাবিতে মিছিল বের করে।

এক পর্যায়ে লাঠি ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ওই মিছিল প্রশাসন ভবনের দিকে যায়। মিছিল থেকে টিএসসিসির সিসি ক্যামেরা ও জানালার কাচ, মেইন গেটের কাছে সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য বানানো ফেয়ারাসহ বিভিন্ন ফ্রেম ভাংচুর করা হয়। তখনই বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ‘মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব’-এ ঢিল ছোড়া হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

এদিকে রাত ৮টার দিকে প্রধান ফটকে তালা লাগিয়ে কুষ্টিয়া শহর থেকে ক্যাম্পাসগামী শিক্ষার্থীদের বহনকারী বাস আটকে দেয় ছাত্রলীগ কর্মীরা। এতে শিক্ষার্থীরা ভোগান্তিতে পড়ে।

এ বিষয়ে কথা বলতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মাহবুবর রহমান বলেন, মাদকসহ যে বহিরাগতকে আটক করা হয়েছে, তার বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়া চলছে।

আর ইবি থানার ওসি রতন শেখ বলেন, “প্রক্টরিয়াল বডি একজনকে থানায় সোপর্দ করেছে। আকাশ সাকিব নামে একজন পলাতক রয়েছে। যে মাদকদ্রব্য পাওয়া গেছে তার ভিত্তিতে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।”

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ