ঢাকা, শুক্রবার 30 March 2018, ১৬ চৈত্র ১৪২৪, ১১ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বাজারে এককভাবে কেউ প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না --- বাণিজ্যমন্ত্রী

 

স্টাফ রিপোর্টার : বাজারে প্রতিযোগিতা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, বাজারে এককভাবে কেউ প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না। সরকার বাজারে প্রতিযোগিতা নিশ্চিত করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। পণ্যের উৎপাদক, আমদানিকারক, ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সভা করে সমস্যা চিহ্নিত করে সমস্যা সমাধানের পদক্ষেপ নেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় সিরডাপ মিলনায়তনে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত নবগঠিত বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন আয়োজিত ‘ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রতিযোগিতা নিশ্চিত করণ: বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপার্সন মো. ইকবাল খান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব শুভাশীষ বসু, এফবিসিসিআই-এর প্রেসিডেন্ট শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন ড. শিবলী রুবায়েত উল ইসলাম। আলোচনা করেন বিআইডিএস-এর সিনিয়র রিসার্স ফেলো ড. নাজনিন আহমেদ, উন্নয়ন সমন্বয়-এর ইমিরেটাস ফেলো ড. এনামূল হক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. ফয়সল আহমেদ।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাজাবে যেন কোনও পণ্যের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি না হয়, সে ব্যাপারে সরকার কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে। নবগঠিত বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন বাজারে প্রতিযোগিতা নিশ্চিত করতে যথাযথভাবে কাজ করবে। এ কমিশনকে সময়োপযোগী করে ভোক্তাস্বার্থ রক্ষা করতে হবে। 

তিনি বলেন, দেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রেক্ষাপটে ব্যবসা-বাণিজ্যে সুস্থ প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ নিশ্চিত করতে সরকার ২০১২ সালে প্রতিযোগিতা আইন পাস করেছে। বাজারে যেন অসম বিপণন ব্যবস্থার সৃষ্টি না হয়, ভোক্তাস্বার্থ পরিপন্থী কিছু না হয়, সে উদ্দেশ্যেই এ আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। এখন এ কমিশনকে শক্তিশালী করে গড়ে তোলা হচ্ছে। ব্যবসাবান্ধব বর্তমান সরকারের আমলে ব্যবসায়ীদের সব ধরনের সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। একইসঙ্গে ভোক্তার অধিকার নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার।

উল্লেখ্য, প্রতিযোগিতা আইন বাংলাদেশের জন্য নতুন হলেও এর আগে ১৮৮৯ সালে প্রথম কানাডায়, ১৮৯০ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ও ১৯৪৭ সালে জাপানে প্রতিযোগিতা সংক্রান্ত আইন প্রণয়ন করা হয়। ১৯৯০ সাল পর্যন্তবিশ্বের মাত্র ১০টি দেশে এ আইন প্রচলিত ছিল। ২০১৭ সালে এ আইন ১৩০টি দেশে চালু হয়। এখন এশিয়ার ১৭টি দেশে প্রতিযোগিতা আইন চালু আছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ