ঢাকা, শুক্রবার 30 March 2018, ১৬ চৈত্র ১৪২৪, ১১ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শাবি শিক্ষার্থী মাহিদ হত্যা মামলায় আসামী রাসেল ৫ দিনের রিমান্ডে

 

সিলেট ব্যুরো : শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষর্থী মাহিদ আল সালাম হত্যা মামলার আসামী রাসেল আহমদকে ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত বুধবার রাতে নগরীর দক্ষিণ সুরমার বারখলা গ্রামের আব্দুল ওয়াদুদের ছেলে রাসেলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এই হত্যার ঘটনায় আগেই গ্রেফতার হওয়া মির্জা আতিকের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে রাসেলকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল। তিনি বলেন, আগে গ্রেফতার করা দুই আসামীর সাক্ষ্যের ভিত্তিতে বুধবার রাতে রাসেলকে গ্রেফতার করা হয়। গতকাল দুপুরে তাকে সিলেট মহানগর হাকিম (এমএম-১) আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড চাইলে আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। এ দুজন ছাড়াও ভার্থখলা এলাকা থেকে তায়েফ মো. রিপন নামে আরেকজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বুধবার দুপুরের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয় আতিক। এতে সে মাহিদকে হত্যার দায় স্বীকার করে। এই হত্যাকা-ে চারজন অংশ নেয়ার আতিক। 

আতিক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে আদালতে বলে, রাতে খাবার খাওয়ার জন্য তাদের হাতে কোনো টাকা ছিল না। এ জন্য কদমতলীর কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল এলাকার একটি রেস্তোরাঁয় বসে ছিনতাইয়ের জন্য যাত্রীদের ওপর নজর রাখছিলো। এ সময় মাহিদকে দেখতে পায়। তারা চারজন মাহিদকে ঘিরে প্রথমে মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয়। পরে মানিব্যাগ নিতে চায়। কিন্তু মানিব্যাগ মাহিদ দিচ্ছিলো না। পরে ডান পায়ের হাঁটুর ওপর ছুরিকাঘাত করে আতিক। তখন তার সঙ্গে থাকা তায়েফ মানিব্যাগ কেড়ে নিয়ে পালায়। মানিব্যাগে মাত্র ২৫০ টাকা পেয়ে তাদের সবার মন খারাপ হয়। মাহিদের মারা যাওয়ার খবর রাতেই পেয়েছিলেন জানিয়ে জবানবন্দীতে আতিক বলেন, রাত দেড়টার দিকে মারা যাওয়ার খবর পেয়ে ছুরি ও মোটরসাইকেল কবরস্থানে রেখে আসে।

ওসি খায়রুল ফজল বলেন, গ্রেফতার হওয়া তিনজনই পেশাদার ছিনতাইকারী। এদের বিরুদ্ধে ছিনতাইয়ের আরো কয়েকটি মামলা রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ