ঢাকা, রোববার 1 April 2018, ১৮ চৈত্র ১৪২৪, ১৩ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

২৩ দেশের কূটনীতিকদের পাল্টা বহিষ্কার করল মস্কো

৩১ মার্চ, বিবিসি : পক্ষত্যাগী রুশ গুপ্তচর ও তার মেয়েকে বিষাক্ত নার্ভ এজেন্ট দিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে দেশে দেশে রুশ কূটনীতিক বহিষ্কারের যে হিড়িক দেখা গেছে তার পাল্টা ব্যবস্থা নিয়েছে মস্কো।

যুক্তরাজ্যের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে যেসব দেশ রুশ কূটনীতিক বহিষ্কার করেছিল, ক্রেমলিন এবার সেসব দেশের সমসংখ্যক কূটনীতিককে রাশিয়া ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে। 

পাশাপাশি রাশিয়ার যুক্তরাজ্য দূতাবাস থেকে কর্মী সংখ্যা কমাতেও ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

সলসবেরির উইল্টশায়ারে পক্ষত্যাগী রুশ গুপ্তচর সের্গেই স্ক্রিপাল ও তার মেয়ে ইউলিয়াকে হত্যাচেষ্টায় রাশিয়া সোভিয়েত আমলের নার্ভ এজেন্ট নোভিচক ব্যবহার করেছে অভিযোগ তুলে যুক্তরাজ্য প্রথম তাদের দেশে থাকা ২৩ রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করে। তাদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে পরে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের অন্যান্য মিত্ররাও শতাধিক রুশ কূটনীতিককে দেশ ছাড়ার নির্দেশ দেয়। সব মিলিয়ে ২৯টি দেশের প্রায় দেড়শ কূটনীতিক বহিষ্কারের খাড়ায় পড়েন।

মস্কো শুরু থেকেই স্ক্রিপাল ও তার মেয়েকে হত্যাচেষ্টায় কোনো ধরনের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। যুক্তরাজ্যের কূটনীতিক বহিষ্কারের পাল্টায় প্রথম দফায় সমান ২৩ ব্রিটিশ কূটনীতিককে দেশ ছাড়তে নির্দেশ দেয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধেও একই ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

শুক্রবার রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যুক্তরাজ্যের সঙ্গে সংহতি জানানো আলবেনিয়া, অস্ট্রেলিয়া,কানাডা, ক্রোয়েশিয়া, চেক রিপাবলিক, ডেনমার্ক, এস্তোনিয়া, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, আয়ারল্যান্ড, ইতালি, লাটভিয়া, লিথুনিয়া, মেসিডোনিয়া, মলদোভা, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, পোল্যান্ড, রোমানিয়া, স্পেন, সুইডেন ও ইউক্রেনের ৫৯ কূটনীতককে ‘পার্সন নন গ্রাটা’ ঘোষণা করে।   

পরে এক বিবৃতিতে তারা বলে, লন্ডনের সঙ্গে শেষ মুহুর্তে সংহতি জানানো বেলজিয়াম, হাঙ্গেরি, জর্জিয়া ও মন্টেনিগ্রোর বিরুদ্ধেও পাল্টা ব্যবস্থা নেওয়ার অধিকার রাখে রাশিয়া।

একইদিন যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত লরি বেরিস্টোকে তলব করে তার হাতে প্রতিবাদলিপিও ধরিয়ে দেয়া হয়।

রাশিয়া বলছে, যুক্তরাজ্যের ‘উসকানিমূলক পদক্ষেপ’ অন্য দেশের সরকারগুলোকে কূটনীতিক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিতে প্রভাবিত করেছে। 

বেরিস্টোকে যুক্তরাজ্য দূতাবাস থেকে কর্মী সংখ্যা কমাতেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যদিও ঠিক কতজন কর্মকর্তাকে রাশিয়া ছাড়তে হবে, সে সম্বন্ধে ধারণা দিতে পারেনি বিবিসি। 

যুক্তরাজ্যের শুল্ক কর্মকর্তারা হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে মস্কোগামী এরোফ্লোটের একটি বিমানে ক্রুদের উপস্থিতি ছাড়াই যাত্রীদের তল্লাশি করতে চেয়ে ‘নতুন করে উসকানি’ সৃষ্টি করেছে বলেও অভিযোগ রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের। 

রাশিয়া দূতাবাসের এক কর্মকর্তা উপস্থিত হওয়ার পর ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বাকবিত-া শেষে বিমানচালকের উপস্থিতিতে তল্লাশি চালানোর সিদ্ধান্ত হয়। বিমানটি পরে মস্কোর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় বলে বার্তা সংস্থা ইন্টারফ্যাক্স নিশ্চিত করেছে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সার্গেই ল্যাভরভ পক্ষত্যাগী গুপ্তচর হত্যাচেষ্টার ঘটনাকে ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য মস্কোর ওপর অযাচিত চাপ দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন। তিনি রুশ নাগরিক ইউলিয়াকে কনসুলার সুবিধা দিতে রাশিয়ার আহবানে সাড়া দিতে যুক্তরাজ্য সরকারের প্রতিও আহ্বান জানিয়েছেন।

স্ক্রিপাল ও তার মেয়েকে হত্যাচেষ্টার ঘটনার ‘সত্যতা তুলে ধরতে’ রাসায়নিক অস্ত্রনিরোধ সংস্থা ওপিসিডব্লিউর সঙ্গে বৈঠকেরও প্রস্তাব দিয়েছে রাশিয়া। এ দুজনের ওপর যে রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহৃত হয়েছে বলে অভিযোগ যুক্তরাজ্যের, তা পরীক্ষা করে দেখতে বিশেষজ্ঞ দল পাঠিয়েছে ওপিসিডব্লিউ। যুক্তরাজ্যের গণমাধ্যমগুলোর খবরে স্ক্রিপালের শারিরীক অবস্থা ‘জটিল হলেও স্থিতিশীল আছে’ বলে জানানো হয়েছে।  তার মেয়ে ইউলিয়ার পরিস্থিতি ‘উন্নতির পথে’।

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেস বৃহস্পতিবার কূটনীতিক বহিষ্কারের পাল্টাপাল্টি নিয়ে সাবধান করেছেন। “বড় পরিসরে দেখলে এখনকার পরিস্থিতিকে মনে হবে, যেন স্নায়ুযুদ্ধের সময়ে বসবাস করছি,” বলেছেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ