ঢাকা, সোমবার 2 April 2018, ১৯ চৈত্র ১৪২৪, ১৪ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

তিনি সরকারি টাকা খরচ করে নৌকায় ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন অন্যরা সুযোগই পাচ্ছে না -মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আবারো আন্দোলনের মাধ্যমে মুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল রোববার দুপুরে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ ঘোষণা দেন। এর আগে মির্জা ফখরুল ওই এলাকায় জনসাধারণের মাঝে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে লিফলেট বিতরণ করেন।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিরোধী মতকে আটকে রেখে সরকার যে নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে, তা রুখে দেয়ার জন্য আমরা আহ্বান জানাচ্ছি। আমাদের আরও কর্মসূচি আছে। আন্দোলনের মাধ্যমেই দেশনেত্রীকে মুক্ত করে আনতে সক্ষম হব। তিনি বলেন, প্রতিহিংসা চরিতার্থ এবং একদলীয় শাসন পোক্ত করার জন্য গণতন্ত্রের মা খালেদা জিয়াকে অবৈধ সরকার মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারান্তরীণ করেছে।
মির্জা ফখরুল বলেন, দেশনেত্রীর মুক্তির দাবিতে বিএনপিসহ ২০-দলীয় জোট এবং গণতন্ত্রকামী মানুষ শান্তিপূর্ণ সংগ্রাম করছেন। তাকে মুক্ত না করা পর্যন্ত কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার শপথ নিয়েছি। এরই অংশ হিসেবে সারাদেশে আজ (গতকাল) লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। এ লিফলেট বিতরণ আরও কয়েকদিন চলবে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা রাজনীতিকরা ময়দানে অনেক কথাই বলি। তেমনই একটি কথা বলেছিলাম-বড়রা দল ছাড়তে পারে, কিন্তু কর্মীরা কখনো যাবে না। এখন এই বক্তব্যের মূল বিষয় আপনারাই বের করে নেন।
বিএনপি মহাসচিব সংবাদমাধ্যমের সমালোচনা করে বলেন, বাংলাদেশে দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো মিডিয়ার একটি প্রবণতা রয়েছে, মূলে না গিয়ে অন্য জায়গায় দোষ খুঁজে বেড়ানো। এটাই সমস্যা, আজকের মূল সমস্যা দেশে গণতন্ত্র নেই, অধিকার নেই। মিডিয়াকে এই জায়গাগুলো চিহ্নিত করে ভূমিকা রাখতে হবে।
খালেদা জিয়ার অসুস্থতা বিষয়ে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমরা বক্তব্য দিয়েছি। জাতি ইতোমধ্যে জেনেছে কি হচ্ছে। এ বিষয়ে মিডিয়ার আরও বেশি জানার দরকার হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।
সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের সিনিয়র নেতাদের বৈঠক আছে। সেখানেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।
নৌকায় ভোট চাওয়া আমার রাজনৈতিক অধিকার- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রাজনৈতিক অধিকার কতটুকু, তা সংবিধান ও নির্বাচন কমিশনের আরপিওতে স্পষ্ট করা আছে। কিন্তু, তিনি (শেখ হাসিনা) তো সরকারি টাকা খরচ করে নৌকায় ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন। আর অন্যরা কোনো সুযোগই পাচ্ছেন না। এটা কখনো মেনে নেয়া যায় না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ