ঢাকা, সোমবার 2 April 2018, ১৯ চৈত্র ১৪২৪, ১৪ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষা শুরু আজ

স্টাফ রিপোর্টার : প্রশ্নপত্র ফাঁসকারীদের চ্যালেঞ্জ সামনে রেখে এইচএসসি, আলিম ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আজ সোমবার। এবার ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নেবে; যা গতবারের চেয়ে প্রায় ১১ শতাংশ বেশি। সারা দেশের মোট ৮ হাজার ৯৪৩টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এবার দুই হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে উচ্চ মাধ্যমিকে বসবে। পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ‘সাধ্যমতো’ প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।
সারা দেশের মোট ৮ হাজার ৯৪৩টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এবার দুই হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে উচ্চ মাধ্যমিকে বসবে। গতবারের চেয়ে এবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বেড়েছে ৭৯টি; কেন্দ্র বেড়েছে ৪৪টি। এইচএসসিতে আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে ১০ লাখ ৯২ হাজার ৬০৭ জন, মাদরাসা বোর্ডের  অধীনে আলিমে এক লাখ ১২৭ জন, কারিগরি বোর্ডের অধীনে এইচএসসি বিএম-এ এক লাখ ১৭ হাজার ৭৫৪ জন এবং ডিআইবিএসে ৯৬৯ জন পরীক্ষা দেবে এবার। মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে এবার ৬ লাখ ৯২ হাজার ৭৩০ জন ছাত্র এবং ৬ লাখ ১৮ হাজার ৭২৭ জন ছাত্রী।
১৩ মে পর্যন্ত হবে এইচএসসির তত্ত্বীয় পরীক্ষা। আর ১৪ থেকে ২৩ মের মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা হবে। গত বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল। এই হিসাবে এবার পরীক্ষার্থী বেড়েছে এক লাখ ২৭ হাজার ৭৭১ জন।
প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের ওপেন চ্যালেঞ্জ! সরকারের নানামুখী পদক্ষেপ নেয়ার পরও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক গ্রুপে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ওপেনে চ্যালেঞ্জ দেয়া হচ্ছে। চঝঈ ক্স ঔঝঈ ক্স ঝঝঈ ক্স ঐঝঈ ঊীধস ঐবষঢ়রহম ঈবহঃবৎ, চঝঈ ক্স ঔঝঈ ক্স ঝঝঈ ক্স ঐঝঈ ঊীধস ঐবষঢ়রহম ঈবহঃবৎ ১৮+১৯+২০+২১ইউ ছাড়াও বেশ কয়েকটি গ্রুপে পরীক্ষা শুরুর পাঁচ দিন আগে থেকেই চলছে বিজ্ঞাপন। বিজ্ঞাপনের সঙ্গে জুড়ে দেয়া হচ্ছে কিছু প্রশ্নের ছবি। ছবির কিছু অংশ ঘোলা করে দিয়ে শুধুমাত্র ওপরের অংশ স্পষ্ট দেখার ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছে দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য।
 ফেসবুকে প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী একটি গ্রুপের ঘোষণাসামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপে প্রতিযোগিতা করে খোলা হচ্ছে বিভিন্ন গ্রুপ। ঐঝঈ ২শ, ঐঝঈ ২০১৮ ছাড়াও নানা নামে তৈরি এসব গ্রুপের অ্যাডমিনরা এর আগেও এসএসসি পরীক্ষার সময়ে আন্তর্জাতিক নম্বর ব্যবহার করে গ্রুপ খুলেছিল। সেখানে প্রতিদিনই সরবরাহ করা হয়েছে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন। নাম ও নম্বর দিয়ে এসব গ্রুপে বিজ্ঞাপন দেয়া হলেও তারা এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে।
আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষাকে সামনে রেখে এসব গ্রুপে বলা হচ্ছে, ‘প্রশ্ন দেবো, ১০০% নিশ্চিত কমনের পর টাকা। এমসিকিউ মাত্র ২৫০ টাকা। বাংলা ১ম পত্রের এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তরপত্রসহ দেয়া হবে সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ৮টার মধ্যে। আর সিকিউ প্রশ্ন দেয়া হবে আজ (রোববার দিবাগত) রাত ১২টা থেকে ২টার মধ্যে। যাদের প্রশ্ন লাগবে তারা ইনবক্স করো।’
এই চক্র বিভিন্ন গ্রুপে যুক্ত হতে কিছু শর্তও দিচ্ছে। বলছে, ‘অ্যাডমিট কার্ডের ছবি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নামসহ আইডিকার্ড, পরীক্ষার্থীর নিজের রিয়েল ফেসবুক আইডি দিলেই কেবল তাকে গ্রুপে অ্যাড করা হবে। এরপর যথাসময়ে প্রশ্ন দেয়া হবে। পরীক্ষা দিয়ে বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কমন পড়লেই টাকা পাঠাতে হবে। চিটার-বাটপাররা দূরে থাকুন।’
এসব চ্যালেঞ্জ মোকবাবিলার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অনুযায়ী শিক্ষা বোর্ডগুলোও ব্যবস্থা নিয়েছে, নেয়া হয় নানা উদ্যোগ।
প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রবেশের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রত্যেক কেন্দ্রের জন্য একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট/দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নিয়োজিত থাকবেন। ট্রেজারি বা থানা থেকে কেন্দ্রসচিবসহ পুলিশ পাহারায় কেন্দ্রের দূরত্ব অনুযায়ী কেন্দ্রে প্রশ্নপত্র পৌঁছানো হবে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বা দায়িত্বশীল কর্মকর্তা, কেন্দ্রসচিব ও পুলিশ কর্মকর্তার উপস্থিতিতে বিধি অনুযায়ী প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলা হবে। এসব দায়িত্ব যথাযথ পালনে কেন্দ্রসচিবদের নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা বোর্ডগুলো।
‘সাধ্যমতো’ প্রস্তুতি মন্ত্রণালয়ের: উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ‘সাধ্যমতো’ প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। গতকাল রোববার চট্টগ্রামের একটি কনভেনশন হলে চিটাগাং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির (সিআইইউ) প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের একথা জানান তিনি।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে লিখিত বক্তব্য দেন শিক্ষামন্ত্রী; অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে কথা বলেন।
নাহিদ বলেন, আগামীকাল থেকে এইচএসসি এবং সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে। আমরা আমাদের সাধ্যমতো, মানুষের সাধ্যে যা কুলায়- অতীতের অভিজ্ঞতাগুলো সবকিছু যুক্ত করে প্রস্তুতি ও ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। আমরা আশা করি, এবার সুষ্ঠু পরিবেশে ভালো পরীক্ষা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ