ঢাকা, সোমবার 2 April 2018, ১৯ চৈত্র ১৪২৪, ১৪ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পুলিশি নির্যাতন থেকে রেহাই পেতে আন্দোলনের বিকল্প নেই

চট্টগ্রাম মহানগর গণপরিবহন চালক মালিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক কমিটির পরিচিতি সভা ও ট্রাফিক পুর্লিশের হয়রানি বন্ধ করা সহ বিভিন্ন দাবিতে এক সভা আমবাগানস্থ পরিষদের অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়।ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্ত্য রাখেন, পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মুজিবুর রহমান কোম্পানী, দীলিপ সরকার, টিটু মহাজন, নুর মোহাম্মদ, কবির হোসেন, মনির হোসেন, মিজানুর রহমান মোস্তফা, মোঃ ইব্রাহিম, ফিরোজ আলম, ইসহাক খান মাসুদ, শফিকুল ইসলাম, মোঃ মোশারফ, মোঃ সালাহ উদ্দিন বাবলু, আব্দুস  সাত্তার, রিয়াসত মোঃ ফারাবী, জামাল উদ্দিন, জসিম উদ্দিন প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, ট্রাফিক পুলিশ যে হারে রাস্তায় গাড়ি জব্ধ করাসহ মামলা দিয়ে হয়রানি করছে তাতে প্রতিরোধ গড়ে তোলা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। কোন কারণ ছাড়াই পথিমধ্যে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে গাড়ি জব্ধ করে নিয়ে যাচ্ছে। এতে করে গাড়ির মালিক যেমন ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তেমনি চালক হেলপার ও তার আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই পুলিশি নির্যাতন থেকে রেহাই পেতে আগামীতে যে কর্মসূচী হাতে নেওয়া হবে তা ঐক্যবদ্ধভাবে সফল করা ছাড়া মালিক শ্রমিক ভাইয়েরা ঘরে ফিরে যাবে না। বক্তারা আরো বলেন, কর্মূসূচি পালনে যদি গ্রেফতারও হতে হয় তাতে আমাদের ভয় নেই। যতক্ষণ পর্যন্ত পুলিশী হয়রানির থেকে মুক্ত হবো না ততক্ষণ পর্যন্ত রাজপথ ছেড়ে ঘরে ফিরে না যাওয়ার শপথ নিতে হবে। তাই আসুন চালক-মালিক ভাইদের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসে আগামী দিনে রাজপথে দূর্বার আন্দোলন গড়ে তুলে পরিবহন সেক্টরকে পুলিশী হয়রানি থেকে মুক্ত করি। তাই এ ব্যাটারী রিক্সা বন্ধে পুলিশী পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান। বক্তারা প্রশাসনের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে আরও বলেন, আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণার পূর্বেই ব্যাটারী রিক্সা বন্ধ হিউম্যান হলার সিএনজি টেক্সি টেম্পুতে মামলা দিয়ে হয়রানী ও কথায় কথায় গাড়ী জব্দ করা বন্ধ না হলে অচিরেই কঠোর কর্মসূচি দিতে মালিক শ্রমিকরা বাধ্য হবে।  প্রেস বিজ্ঞপ্তি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ